scorecardresearch
 
 

Upper Primary:'ইন্টারভিউ চললেও নিয়োগ নয়', উচ্চ প্রাথমিক নিয়ে নির্দেশ হাইকোর্টের

উচ্চ-প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ-জট যেন কাটছেই না। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শিক্ষক নিয়োগ করা যাবে না। আজ এই নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ।

উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগে স্থগিতাদেশ জারি হাইকোর্টের উচ্চ প্রাথমিকে নিয়োগে স্থগিতাদেশ জারি হাইকোর্টের
হাইলাইটস
  • উচ্চ-প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ-জট যেন কাটছেই না
  • পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শিক্ষক নিয়োগ করা যাবে না
  • আজ এই নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ

উচ্চ-প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ-জট যেন কাটছেই না। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শিক্ষক নিয়োগ করা যাবে না। আজ এই নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ। তবে যেভাবে ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া চলছে, সেভাবেই চলবে বলেও জানিয়ে দিয়েছেন দুই বিচারপতি সুব্রত তালুকদার ও সৌগত ভট্টাচার্য। 

যাঁদের নিয়োগ সংক্রান্ত অভিযোগ রয়েছে, তাঁদের ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে কমিশনে অভিযোগ জানাতে হবে। ১২ সপ্তাহের মধ্যে সেই অভিযোগের সমাধান করবে কমিশন। এর আগে এই  নির্দেশ দিয়েছিল সিঙ্গল বেঞ্চ। আজ ডিভিশন বেঞ্চও সেই নির্দেশ জারি রেখেছে। 

আরও পড়ুন : শুভেন্দুর বিরুদ্ধে এক ডজন স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের পুলিশের

প্রসঙ্গত, গত ২১ জুন স্কুল সার্ভিস কমিশন ১৪ হাজারেরও বেশি টি পদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য ইন্টারভিউ তালিকা প্রকাশ করেছিল।  তবে সেই তালিকা প্রকাশ নিয়ে কমিশনের বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে একাধিক মামলা হয়। তার ভিত্তিতে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় প্রথমে নিয়োগ প্রক্রিয়ার উপর স্থগিতাদেশ দেন। পরে হাইকোর্টের নির্দেশে ফের প্রার্থীর প্রাপ্ত নম্বর-সহ তালিকা প্রকাশ করে কমিশন। তারপর গত ৯ তারিখ স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নেন বিচারপতি। তবে চাকরি প্রার্থীদের একাংশ হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ডিভিশন বেঞ্চে যায়। গত সপ্তাহে সেই মামলার শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও হয়নি। 

তবে নিয়োগে জট থাকলেও ১৯ জুলাই থেকে শুরু হয়েছে উচ্চ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ইন্টারভিউ পর্ব। চলবে আগামী ৪ আগস্ট পর্যন্ত। উচ্চ প্রাথমিকে (Upper Primary) মোট শূন্যপদের সংখ্যা ১৪ হাজার ৩৩৯টি। 

আরও পড়ুন : এখনও জ্বলছে মহেশতলার রাসায়নিক কারখানা, বাড়ছে আগুন

গত ২১ জুন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, রাজ্যে প্রাথমিক (Primary) এবং উচ্চ প্রাথমিক (Upper Primary) মিলিয়ে মোট ৩২ হাজার শিক্ষককে চাকরি দেওয়া হবে। পুজোর আগে ও পরে প্রাথমিক শিক্ষকদের চাকরি দেওয়া হবে।