scorecardresearch
 
 

'GST বৈঠকে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল মাইক!' বিস্ফোরক অমিত

অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra) বলেন, গুজরাটের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) এই জিএসটি (GST)-র বিরোধিতা করেছিলেন। মধ্যপ্রদেশের তৎকালীন অর্থমন্ত্রী ও বিরোধীতা করেছিলেন এমপাওয়ার্ড কমিটিতে।

রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র
হাইলাইটস
  • জিএসটি পরিষদের বৈঠকে আমার মাইকের শব্দ কোনও এক অজ্ঞাত কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল
  • সোমবার এই অভিযোগ করেছেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র
  • এদিন তিনি কেন্দ্র সরকারের আর্থিক নীতির তুমুল সমালোচনা করেন

জিএসটি পরিষদের বৈঠক (GST Council Meeting)-এ আমার মাইকের শব্দ কোনও এক অজ্ঞাত কারণে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। সোমবার এই অভিযোগ করেছেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra)। এদিন তিনি কেন্দ্র সরকারের আর্থিক নীতির তুমুল সমালোচনা করেন।

ভিডিয়ো কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra) বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলছিলেন। জানান, বিভিন্ন রাজ্য তাদের করের অধিকারের প্রায় ৭০ শতাংশ ছেড়ে দিতে রাজি হয়েছিল জিএসটি তে যাওয়ার জন্য। অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra) বলেন, গুজরাটের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) এই জিএসটি (GST)-র বিরোধিতা করেছিলেন। মধ্যপ্রদেশের তৎকালীন অর্থমন্ত্রী ও বিরোধীতা করেছিলেন এমপাওয়ার্ড কমিটিতে।

অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra) জানান, পরবর্তীকালে বিজেপি কেন্দ্রে ক্ষমতায় আসার পর এই জিএসটি (GST) নিয়ে আসার সময় যখন খসড়া আলোচনা চলছিল, তখন অনেকেই জানতে চেয়েছিলেন রাজ্যের ক্ষতিপূরণের কী হবে?

এদিন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra) জানান, তখন তৎকালীন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বলেছিলেন যা আর্থিক ক্ষতি হবে রাজ্যগুলিকে পরবর্তী ৫ বছরে মিটিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হবে। কিন্তু আমরা (বেশিরভাগ রাজ্যের অর্থমন্ত্রী) দাবি করি 'চেষ্টা নয়, মেটাতেই হবে।' এটা রাখতে হবে।

অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র (WB Finance Minister Amit Mitra) আরও দাবি করেন, সংখ্যাধিক্যের মতকে প্রাধান্য দেওয়া হোক। কিন্তু সেটা এখন মানা হচ্ছে না। কেন্দ্র তো আরবিআই থেকে ঋণ করে রাজ্যের ক্ষতি মেটাতে পারে। কেন রাজ্যগুলোকে বাজার থেকে ঋণ নেওয়ার জন্য ঠেলে দেওয়া হল? আমি এটাই বলেছিলাম, কিন্তু আমার বা আমাদের সব উপদেশ ই সরিয়ে রাখা হল।

তিনি আরও জানান, জিএসটি পরিষদের বৈঠক (GST Council Meeting) করার কথা প্রতি তিন মাস অন্তর। কিন্তু গত অক্টোবর থেকে এতদিন পর বৈঠক হল। মাঝখানে সাত মাস কেন বৈঠক হল না? সেটা একটা চিঠি দিয়েও জানানো যেত। 

তিনি অভিযোগ করেন, জিএসটি (GST) কাউন্সিলের রুল ব‌ইয়ের ৮,৯, ২১-সহ বেশকিছু আইন সংশোধন করা হল। কাউন্সিলের সদস্যদের সবাইকে না জানিয়েই এটা করা হয়েছে।

এদিন অমিত মিত্র বলেন, শেষ বৈঠকে ৯-১০টা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, এই অতিমারীর সময় কোভিড চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় পণ্য়ের ওপর করের পরিমান শূন্য করা হোক। সেটা মানা হল না। সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে এটা করা যেতেই পারত।

তিনি আরও বলেন, অন্ততপক্ষে ০.১ শতাংশও করা যেত। সেটাও করা হল না। বিহারের বর্তমান উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদী, যিনি আমার আগে এই কাউন্সিলের এমপাওয়ার্ড কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন, তিনিও বলেছিলেন ০.১ শতাংশ করা যেতে পারে।

তিনি জানান, ৮,৯১১ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে রাজ্যের। আর সব মিলিয়ে সব রাজ্যের পাওনা প্রায় ৬৩ হাজার কোটি টাকা। তিনি দাবি করেন, আমাদের আপত্তির পর দেখলাম অ্যাম্বুল্যান্সের ক্ষেত্রে কর ১৮ শতাংশ কমিয়ে ১২ শতাংশ করা হল।

তিনি আরও জানান, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী কে চিঠি দিয়েছি। তার কোনও উত্তর এখনও পাইনি। ওঁরা কোনও কথা শুনছেন না। তাই বাধ্য হয়ে মানুষের দরবারে আমাদের কথা বলছি।