scorecardresearch
 

Pori-Mim Controversy: 'কাল আরেক নায়িকার হাত ধরতে পারি', পরী-মিম চুলোচুলির মাঝেই জবাব রাজের

পরাণ ও দামাল সিনেমায় শরিফুল রাজ ও বিদ্যা সিনহা মিম জুটি সফল হয়েছে। তাদের ঘিরে নতুন করে আশার আলো দেখছিল ঢালিউড। নির্মাতারাও আশায় বুক বাঁধা শুরু করেছিলেন তাদের নিয়ে। গুঞ্জন চলছিল নতুন সিনেমাতে জুটি বাঁধতে যাচ্ছেন মিম ও শরিফুল। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি সিনেমার প্রস্তাবও পেয়েছিলেন তারা। কিন্তু তাতে ইতি টানলেন মিম। স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন শরিফুল রাজের সঙ্গে আর কাজ করবেন না।

 শরিফুল  রাজের সঙ্গে আর কাজ করবেন না মিম শরিফুল রাজের সঙ্গে আর কাজ করবেন না মিম
হাইলাইটস
  • পরাণ ও দামাল সিনেমায় শরিফুল রাজ ওবিদ্যা সিনহা মিম জুটি সফল হয়েছে
  • তাদের ঘিরে নতুন করে আশার আলো দেখছিল ঢালিউড
  • নির্মাতারাও আশায় বুক বাঁধা শুরু করেছিলেন

পরাণ ও  দামাল সিনেমায় শরিফুল রাজ ও বিদ্যা সিনহা মিম জুটি সফল হয়েছে। তাদের ঘিরে নতুন করে আশার আলো দেখছিল ঢালিউড। নির্মাতারাও আশায় বুক বাঁধা শুরু করেছিলেন তাদের নিয়ে।  গুঞ্জন চলছিল নতুন সিনেমাতে জুটি বাঁধতে যাচ্ছেন মিম ও শরিফুল। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি সিনেমার প্রস্তাবও পেয়েছিলেন তারা। কিন্তু তাতে ইতি টানলেন মিম। স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন শরিফুল  রাজের সঙ্গে আর কাজ করবেন না।  

রাজের বিপরীতে আর কাজ করব না : মিম
স্বামীর সঙ্গে মিমকে জড়িয়ে পরকিয়ার অভিযোগ তুলেছিলেন অভিনেত্রী পরীমনি। তবে পরীমনির অভিযোগ তাঁর বর শরিফুল রাজের সঙ্গে পরপর দুটো ছবি করার পরই নাকি সম্পর্কে জড়িয়েছেন মিম। এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় দু-চার কথা শুনিয়েও দিয়েছেন প্রকাশ্যে। কিছুক্ষণের মধ্যে পালটা জবাব এসেছে মিমের থেকেও। বাংলাদেশের দুই নায়িকার চুলোচুলিতে  সোশ্যাল মিডিয়া জমজমাট। আর এর মাঝেই বড় ঘোষনা করলেন মিম। নির্মাতা আবু রায়হান জুয়েলের পরবর্তী সিনেমা ‘পথে হলো দেখা’ সিনেমাতে দেখা হওয়ার সম্ভাবনা ছিল রাজ ও মিমের। তবে সেখানেই বিপত্তি ঘটালেন মিম। তিনি জানান, রাজের সঙ্গে আর কোন কাজ করবেন না। ‘পথে হলো দেখা’ সিনেমাতে রাজের সঙ্গে কাজ করার কথা থাকলেও পরিচালককে না করে দিয়েছেন এই অভিনেত্রী। মিম বলেন, রাজের সঙ্গে পরপর দুটি সিনেমা ভালো গেছে আমার। রাজ খুব ভালো সহশিল্পী। জুয়েল ভাইয়ের পরিচালনায় এই সিনেমাতেও রাজের বিপরীতে কাজের কথা ছিল। কিন্তু এখন আর রাজের বিপরীতে কাজ করব না। এ কথা বলে দিয়েছি পরিচালককে। গল্পের প্রয়োজনে সিনেমাতে রোমান্টিক দৃশ্য থাকতে পারে। এখন রাজের সঙ্গে এসব দৃশ্য করতে গেলে তাদের পরিবারে আবার অবিশ্বাস তৈরি হবে, ঝামেলা তৈরি হবে। তাতে আমার ও আমার পরিবারের জন্য মানসম্মান ক্ষুন্ন হবে। সামাজিক ও পারিবারিকভাবে আবারও হেয় হতে পারি। আমি চাই রাজ ও পরীমনি ভালো থাকুক।

জন্মদিনে রাজকে উপহার পরীর
তাঁকে নিয়ে বিতর্কের মাঝেই ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় নায়ক শরিফুল রাজ নিজের জন্মদিন পালন করলেন। শুক্রবার ছিল রাজের জন্মদিন। রাত ১২টা ১ মিনিটে স্ত্রী পরীমনি ও তিন মাসের সন্তান রাজ্যকে নিয়ে বাড়িতেই কেক কাটেন  তিনি। জন্মদিন পালনের পর সংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন রাজ। অভিনেতা  বলেন, ‘বিয়ে, সন্তান— এসবের আগে আমি যখন একা ছিলাম, তখন আমার মতো করে আড্ডা মেরে, ফুর্তি করে জন্মদিন উদ্যাপন করেছি। কিন্তু এবার একেবারেই নিজের মতো করে আমরা তিনজন বাড়িতে জন্মদিনের কেট কেটেছি। বাইরের কাউকে রাখতে চাইনি। নিজের জন্মদিন নিজের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে চেয়েছি। এমনকি জন্মদিনের কেক কাটার ছবিও তুলিনি আমরা।’ জন্মদিনের রাতে স্ত্রীর কাছ থেকে একটি উপহারও পেয়েছেন বলে জানান রাজ। তবে সেটি কী, তা প্রকাশ করেননি তিনি, বলেন ‘উপহার হিসেবে পরী যে জিনিসটি আমাকে দিয়েছে, তা পৃথিবীর কাউকে বলতে পারব না।’

মিমকে নিয়ে মুখ খুললেন রাজ
রাজের স্ত্রী পরীমনির ফেসবুকে লেখা দুটি স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে বিত্রক তৈরি হয়।  বিদ্যা সিনহা মিম ঘোষণা করেন রাজের সঙ্গে আর কাজ করবেন না। এ ব্যাপারে রাজ বলেন, ‘আমি এ বিষয় নিয়ে কথা বলতে চাই না। কারণ এ বিষয় নিয়ে আমি প্রশ্নের জন্ম দেইনি, কাউকে কিছু বলিনি। সংসার, পরিবার মানুষের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ। সংসার সবার আগে। আমার বাবাকে দেখছি সংসারকে অগ্রাধিকার দিতে। সারাটা জীবন সংসারের জন্য কাজ করে গেছেন বাবা। আমার জীবনটাও এর বাইরে নয়।’ রাজ আরও বলেন, ‘অন্য কোনো কিছু নিয়ে আমার আক্ষেপ নাই। বাট এ কয়েক দিন ধরে যা যা হয়েছে, কেন হয়েছে, কী কারণে হয়েছে- এসবের উত্তর আমার কাছে নেই। যদি থাকত বলতে পারতাম, এই কারণে এসব হয়েছে। যেহেতু এসব ঘটনা আমার কাছ থেকে প্রকাশ হয়নি, তাই এসব নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নাই।’ রাজের কথায়- সিনেমার প্রচারে আজ মিমের হাত ধরেছি, কাল আরেক ছবিতে অন্য নায়িকার হাত ধরতে হতে পারে। সিনেমা করতে গেলে এটা থাকবেই। কারণ সিনেমা আমার কাজ, পেশা। সুতরাং এখানে এই হাত ধরাধরিটা সাধারণ ব্যাপার। দুঃখ করে রাজ আরও বলেন, ‘এক সপ্তাহ ধরে মানুষ আমাকে পাগল করে দিয়েছে। এর উত্তর চেয়েছে। কিন্তু আমি কারও ফোনই ধরিনি। ঘটনাটি সত্যি হলে উত্তর দিতাম। আমি পরীকে সম্মান করি, সংসারকে সম্মান করি। আমার জীবনের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও পরিবার, সংসারকে সম্মান দিয়ে যাব।’

জন্মদিনে রাজের দুঃখ
জন্মদিনের পুরো দিনটিই পরিবারের তিনজন মিলে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরেছেন রাজ। জানিয়েছেন  পরিবার হওয়ার আগে একসময় ধানমন্ডি ১৫ নম্বর, রবীন্দ্রসরোবর, মহাখালী বাসস্ট্যান্ড এলাকাতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আড্ডা মেরে, গল্প করে সময় কেটেছে তার। জন্মদিনে তিনজন মিলে সেসব জায়গায় ঘুরেছেন। তিনি বলেন, ‘আমি একসময় যেসব জায়গা থেকে এ পর্যায়ে উঠে এসেছি, জায়গাগুলো আমার পরিবারের সদস্যদের দেখিয়েছি। কারণ আমি খুবই স্মৃতিকাতর মানুষ, আবেগপ্রবণ মানুষ।’ বউ ও সন্তানের সঙ্গে প্রথম জন্মদিনে দুঃখ করে রাজ বলেন, ‘আমার আর্থিক অবস্থাটা যদি আরও ভালো থাকত, তাহলে আমার সংসার, আমার স্ত্রী, সন্তানকে আরও বেশি সময় দিতে পারতাম, কেয়ার নিতে পারতাম। এখন আমাকে শুটিংয়ে যেতে হয়, কাজে যেতে হয়। এসবের ফাঁকে ফাঁকে পরিবারকে সময় দিতে হয়। আমি যদি পুরো সময়টাই পরিবারকে দিতে পারতাম, তাহলে আমার ভালো লাগত। এ কারণে দুর্ভাগ্যের কথা বললাম।’

 
; ; ;