scorecardresearch
 
অপরাধ

১০ হাজার বাঙালি মেয়েকে পাচার-সেক্স ব়্যাকেট! পুলিশের জালে কিংপিন

মহিলাদের
  • 1/13

হাজার হাজার বাংলাদেশি মহিলাদের পাচার এবং দেহব্যবসার অভিযোগে ৪ মহিলা সহ মোট ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে ইন্দোর পুলিশ। তাদের মধ্যে মূল অভিযুক্ত বিজয় দত্ত ওরফে মুমিনকে ধরতে পেরেছে পুলিশ। (সব ছবি প্রতীকী)

ভারতে
  • 2/13

মুমিন বাংলাদেশের বাসিন্দা। ১০ বছর আগে ভারতে পালিয়ে এসেছিল বলে অভিযোগ। এখানে বিজয় দত্ত নামে থাকত সে।

হাওয়ালার
  • 3/13

অভিযোগ, বাংলাদেশে তার স্ত্রী রয়েছে। সেখান থেকে হাওয়ালার মাধ্যমে বাঙালি মেয়েদের নিয়ে এসে এদেশে পাচার ও দেহব্যবসার কাজে নামাত মুমিন।

দেহব্যবসার
  • 4/13

ইন্দোর, রাজগড়, খান্ডওয়া, খারগোন সহ অনেক জেলায় এই গ্যাং হাজার হাজার মেয়েকে দেহব্যবসার কাজে নামিয়েছে মুমিন। 

পর্দাফাঁস
  • 5/13

২০২০ সালে ইন্দোরে বড় সড় সেক্স ব়্যাকেটের পর্দাফাঁস করে পুলিশ। ২১ জন বাংলাদেশি মহিলা পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। তাদের সঙ্গে মাদক যোগও পাওয়া যায়। 

গ্রেফতার
  • 6/13

ওই মহিলাদের ছাড়া আরও ৩৩ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তখন তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেই প্রথম বার বিজয় দত্ত ওরফে মুমিন সম্পর্কে জানতে পারেন তদন্তকারীরা। 

বিজয়নগরে
  • 7/13

১৫ নভেম্বর বিজয়নগরে আরেকটি হোটেলে মধুচক্রের পর্দাফাঁস করে পুলিশ। ৫ জন বাংলাদেশি যুবতীকে গ্রেফতার করা হয়। তখনও বিজয় দত্তের নাম উঠে আসে। 

বিশেষ
  • 8/13

ইন্দোর পুলিশের বিশেষ দল মুম্বইতে যায়। সেখানে ১ সপ্তাহ ধরে মুমিনের সম্পর্কে খোঁজ নিতে থাকে। তখন জানা যায় আদতে মুমিন বাংলাদেশের বাওয়ান জেলার বাসিন্দা। 

আসে
  • 9/13

১০ বছর আগে মুমিন বাংলাদেশ থেকে মুম্বইয়ে পালিয়ে আসে। জাল কাগজ তৈরি করে নাম পরিবর্তন করে। মুম্বইতে দ্বিতীয় বিয়েও করে।

এনজিও
  • 10/13

তার প্রথম স্ত্রী বাংলাদেশে একটি এনজিও চালায়। সেখান থেকে আর্থিক ভাবে দুর্বল মহিলাদের এদেশে পাঠাত তার স্ত্রী। মুমিন সেই সব মেয়েদের মধ্যপ্রদেশের বিভিন্ন জেলায় পাচার করত।
 

মেয়েদের
  • 11/13

জানা গিয়েছে, প্রতি বছর হাজার হাজার মেয়েদের এভাবে নিয়ে আসা হত। হাওয়ালার মাধ্যমেই টাকা লেনদেন চলত।
 

মধ্যপ্রদেশসহ
  • 12/13

অভিযোগ, মুমিনের নেটওয়ার্ক গুজরাট, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশসহ দেশের সব রাজ্যে ছড়িয়ে। অন্তত ১০ হাজার বাংলাদেশি মহিলাকে এদেশে পাচার করিয়ে এনেছে মুমিন। 

জড়িত
  • 13/13

মুমিন এবং তার সহযোগীদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই চক্রে আরও কেউ জড়িত রয়েছে কিনা, তারও খোঁজ চালাচ্ছে তদন্তকারীরা।