scorecardresearch
 
 

টার্গেট ছিল রামলীলা-নবরাত্রি, ফাঁস পাকিস্তানের নাশকতার ষড়যন্ত্র, অস্ত্র-সহ গ্রেফতার ৬ জঙ্গি

ভারতীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলি পাকিস্তানের অর্থসাহায্যে পরিচালিত একটি সন্ত্রাসী মডিউলের পর্দা ফাঁস করেছে। এই ঘটনায় তদন্তকারী সংস্থাগুলি ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতরা ভারতে এই সন্ত্রাসী মডিউল পরিচালনা করছিল। তাদের ক্রমাগত জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

উৎসবের মরশুমে দেশজুড়ে সন্ত্রাসের ছক উৎসবের মরশুমে দেশজুড়ে সন্ত্রাসের ছক
হাইলাইটস
  • উৎসবের মরশুমে দেশজুড়ে সন্ত্রাসের ছক
  • পাকিস্তানের অর্থসাহায্যে চলছিল সন্ত্রাসী মডিউল
  • ষড়যন্ত্র ফাঁস করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলি

ভারতীয় তদন্তকারী সংস্থাগুলি পাকিস্তানের অর্থসাহায্যে  পরিচালিত একটি সন্ত্রাসী মডিউলের পর্দা ফাঁস করেছে। এই ঘটনায় তদন্তকারী সংস্থাগুলি ৬  জনকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতরা  ভারতে এই সন্ত্রাসী মডিউল পরিচালনা করছিল। তাদের ক্রমাগত জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

দিল্লিতে পাকিস্তানের বড় ষড়যন্ত্র প্রকাশ পয়েছে। ইতিমধ্যে ৬  জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তথ্য অনুযায়ী, এরা  পাকিস্তানি সন্ত্রাসী মডিউলের জন্য কাজ করত। এদের মধ্যে   দুজন পাকিস্তানে গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়েছিল।

এই সন্ত্রাসী মডিউলের পর্দা ফাঁস করতে  এজেন্সি উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র এবং দিল্লিতে অভিযান চালায়। মোট ৬  জনকে গ্রেফতার করে। এজেন্সির দাবি, এই সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। পাকিস্তানভিত্তিক সন্ত্রাসী মডিউলের ছয় সদস্য দুই পাকিস্তানীর নির্দেশে কাজ করছিল।

পাকিস্তানভিত্তিক সন্ত্রাসী মডিউলের সদস্যরা দুজন পাকিস্তানীর নির্দেশে কাজ করছিল। তাদের উদ্দেশ্য ছিল নবরাত্রি এবং অন্যান্য উৎসবে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করা। তাদের কাছ থেকে আইইডি উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতার হওয়া সন্ত্রাসীদের বয়স ২২ থেকে ৪৩ বছরের মধ্যে।

 

 

দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের স্পেশাল সিপি নীরজ ঠাকুর জানিয়েছেন যে এই সন্ত্রাসী মডিউলের সংযোগ ডি কোম্পানি সঙ্গে রয়েছে বলে বলা হচ্ছে। এই সন্ত্রাসী মডিউল আইএসআই-এর পৃষ্ঠপোষকতায়  বড় ষড়যন্ত্রের পরিকল্পনা করছিল। গ্রেফতার হওয়া জঙ্গিদের মধ্যে ২ জন পাকিস্তান থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে ফিরে এসেছে। এটা ছিল দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেলের বহু রাজ্যে  অভিযান।

স্পেশাল সিপি নীরজ ঠাকুরের মতে, এই সন্ত্রাসী মডিউল সম্পর্কে তথ্য গোয়েন্দা সংস্থার কাছ থেকে পাওয়া গিয়েছিল। অনুসন্ধানে জানা গেছে যে তাদের নেটওয়ার্ক অনেক রাজ্যে ছড়িয়ে আছে। কোটা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে মহারাষ্ট্রের এক সন্ত্রাসীকে। ইউপি এটিএসের সহায়তায় ৩ সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করা হয়। যদিও দুজন সন্দেহভাজনকে দিল্লি থেকে ধরা পড়েছে। এর মধ্যে ২ জনকে মাস্কাটে নিয়ে যাওয়া হয়।  সেখান থেকে তাদের নৌকায় করে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়।

অভিযুক্তরা বলেছিল যে ১৪  জন তাদের সাথে বাংলায় কথা বলত। সেখানে তাদের  একটি ফার্ম হাউসে অস্ত্র প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। জানা গেল, একটি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন আনিস ইব্রাহিম। তার কাজ ছিল অর্থ জোগাড় করা। একজন অভিযুক্ত লালা ধরা পড়েছে, যে আন্ডারওয়ার্ল্ডের সঙ্গে যুক্ত। সন্ত্রাসীরা ২ টি দল গঠন করেছিল।

দ্বিতীয় দলের কাজ ছিল ভারতে উৎসব উপলক্ষে সারা দেশে বিস্ফোরণের জন্য শহরগুলি চিহ্নিত করা। বিশেষ সিপি নীরজ আরও জানান যে তিনি ইনপুট পেয়েছেন। যা থেকে জানা গেছে যে ভারতের কিছু অংশে সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটতে চলেছে। প্রযুক্তিগত নজরদারির মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে এই ধরনের ষড়যন্ত্র হচ্ছে। যে দুজনকে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল তাদের ১৫ দিনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল।

স্পেশাল সিপি নীরজ ঠাকুরের মতে, পাকিস্তানের প্রশিক্ষণ সম্পর্কে অনেক তথ্য পাওয়া গেছে। যা কেন্দ্রীয় সংস্থার সাথেও ভাগ করা হবে। নীরজ ঠাকুরের মতে, উৎসব মরশুমে জায়গায় জায়গায় বিস্ফোরন ঘটানো তাদের মূল ষড়যন্ত্র ছিল। যেখানে রামলীলা এবং নবরাত্রি ছিল  টার্গেটে।