scorecardresearch
 

Maharashtra Politics Crisis: কড়া ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি শিবসেনার, শিন্ডেকেই নেতা নির্বাচন বিদ্রোহীদের

Maharashtra Politics Crisis: বৃহস্পতিবার রাতেই গুয়াহাটিতে উপস্থিত বিদ্রোহী শিবসেনা বিধায়করা গভীর রাতে একটি বৈঠক করেন, যেখানে একনাথ শিন্ডেকে শিবসেনার বিদ্রোহী গোষ্ঠীর নেতা নির্বাচিত করা হয়। এছাড়াও এই বৈঠকে ভরত গোগাওয়ালেকে চিফ হুইপ হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছিল।

একনাথ শিন্ডে এবং উদ্ধব ঠাকবে একনাথ শিন্ডে এবং উদ্ধব ঠাকবে
হাইলাইটস
  • কড়া ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি শিবসেনার
  • শিন্ডেকেই নেতা নির্বাচন বিদ্রোহীদের
  • জানুন বিস্তারিত তথ্য

Maharashtra Politics Crisis: মহারাষ্ট্রে ক্রমশ জটিল হচ্ছে রাজনৈতিক পরিস্থিতি। বৃহস্পতিবারের বৈঠকে যোগ না দেওয়া শিন্ডে শিবিরের ১২ জন বিদ্রোহী বিধায়কের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থার ইঙ্গিত দিয়েছিল শিবসেনা। অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার রাতেই গুয়াহাটিতে উপস্থিত বিদ্রোহী শিবসেনা বিধায়করা গভীর রাতে একটি বৈঠক করেন, যেখানে একনাথ শিন্ডেকে শিবসেনার বিদ্রোহী গোষ্ঠীর নেতা নির্বাচিত করা হয়। এছাড়াও এই বৈঠকে ভরত গোগাওয়ালেকে চিফ হুইপ হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছিল। এর পরে ডেপুটি স্পিকার নরহরি জিরওয়াল, বিধানসভা সচিব এবং রাজ্যপাল ভগত সিং কোশিয়ারিকে একটি চিঠি পাঠানো হয়। এই চিঠিতে শিবসেনার ৩৭ জন বিধায়কের স্বাক্ষর রয়েছে। বিদ্রোহী বিধায়কদের এটি দ্বিতীয় বৈঠক। আগের বৈঠকে জারি করা চিঠিতে ৩০ জন বিধায়কের স্বাক্ষর ছিল। অপরদিকে দাবি করা হচ্ছে, আরও ৩ শিবসেনা বিধায়ক কাল রাতে গুয়াহাটিতে পৌঁছেছে। ফলে বিদ্রোহী শিবসেনা বিধায়কদের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

১২ জন বিধায়কের সদস্যপদ বাতিলের সিদ্ধান্ত

শিবসেনার বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না এমন ১২ জন বিধায়কের সদস্যপদ বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পার্টির সাংসদ অরবিন্দ সাওয়ান্ত আজতককে বলেছেন যে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের বাসভবন বর্ষা বাংলোতে শিবসেনা বিধায়কদের একটি বৈঠক ডাকা হয়েছিল। যার জন্য হুইপ জারি করা হয়। তা সত্ত্বেও, এর কিছু বিধায়ক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না। কিছু বিধায়ক এই নোটিশের জবাব দিয়েছেন। তাঁদের উত্তর থেকে মনে হয়, তিনি মিথ্যা কারণ দিয়েছেন। এ কারণে তাঁদের সদস্যপদ বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। আমরা ডেপুটি স্পিকারের কাছে একটি পিটিশন জমা দিয়েছি, যাতে ১২ জন বিধায়কের নাম রয়েছে।

এর পর বিদ্রোহী শিবসেনা নেতা একনাথ শিন্ডে বলেন, কাকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছেন। আমরা আপনার পদ্ধতি এবং আইন জানি। তিনি বলেন, দশম (তফসিল) হুইপটি সমাবেশের জন্য ব্যবহার করা হয়, সভার জন্য নয়। সুপ্রিম কোর্টে এরকম অসংখ্য মামলা রয়েছে। ১২ জন বিধায়কের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে আপনি আমাদের ভয় দেখাতে পারবেন না। তিনি আরও বলেন, আমরাই আসল শিবসেনা, বাল ঠাকরের শিবসেনা। আমরা আইন জানি, তাই আমাদের হুমকি দেবেন না। তিনি আরও বলেন, বিরোধীদের সংখ্যা নেই, তারপরও তারা সরকার চালাচ্ছে। এখন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

শিন্ডের দাবি, সাহায্য করতে প্রস্তুত জাতীয় দল

শিন্ডে দাবি করেছেন তাঁর কাছে ৪২ জন বিধায়কের সমর্থন রয়েছে। তিনি ডেপুটি স্পিকারের কাছে চিঠি লিখেছেন যে তিনিই শিবসেনা আইনসভা দলের আসল নেতা। শিন্দের একটি ভিডিওও প্রকাশিত হয়েছে, যেখানে তিনি বলেছেন যে একটি জাতীয় দল তাকে সম্ভাব্য সব উপায়ে সাহায্য করতে প্রস্তুত।

গুয়াহাটিতে পৌঁছেছেন ৪ জন বিধায়ক

বৃহস্পতিবার, গুয়াহাটির হোটেল রেডিসন ব্লুতে আরও কিছু বিধায়কের প্রবেশ হয়েছিল। এর মধ্যে রয়েছেন বিধায়ক সঞ্জয় রাঠোর, দাদা ভুস, গীতা জৈন, স্বতন্ত্র বিধায়ক কিশোর জোরগেওয়ার এবং এমএসলি রবীন্দ্র ফাটক। এর মধ্যে রবীন্দ্র ফাটক সেই ২ জনের মধ্যে রয়েছেন যাকে উদ্ধব ঠাকরে বিদ্রোহী বিধায়কদের সাথে কথা বলতে সুরাটে পাঠিয়েছিলেন। সুরাটে পৌঁছে তিনি নিজেই মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরেকে একনাথ শিন্ডেকে রাজি করাতে তাঁর সঙ্গে কথা বলছিলেন। এখন এই নেতাকেই বিদ্রোহী শিবিরে দেখা গিয়েছে।