scorecardresearch
 

না, রাজ্য সিপিএম-কে "১১৭৬ হরেকৃষ্ণ" লেখার নিদান দেয়নি কেন্দ্রীয় কমিটি

সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রেন্ডে গা ভাসানো এই শব্দবন্ধের সঙ্গে এবার জুড়ে গেল রাজনীতিও।

বাংলার সিপিএম-কে "১১৭৬ হরেকৃষ্ণ" লেখার নিদান দিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি? বাংলার সিপিএম-কে "১১৭৬ হরেকৃষ্ণ" লেখার নিদান দিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি?

বিগত কয়েক দিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো তোলপাড় ফেলে দিয়েছে একটি শব্দবন্ধ। তা হল- "1176 হরে কৃষ্ণ।" এ বার নাকি সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটিও রাজ্য সিপিএম-কে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য সেই পথ অনুসরণ করতে বলেছে। এমনটা আমরা বলছি না। নেটিজেনদের একাংশ একটি প্রতিবেদনের স্ক্রিনশট শেয়ার করে এমনটাই দাবি করছেন। 

এক ফেসবুক ব্যবহারকারী এই স্ক্রিনশট শেয়ার করে লিখেছেন, "এবার হাল ফিরবেই কমরেড। ইনকিলাব জিন্দাবাদ।" ভাইরাল স্ক্রিনশটের শিরোনামে লেখা রয়েছে, "CPM: ঘুরে দাঁড়াতে লিখুন 1176, রাজ্য সিপিএম-কে নিদান কেন্দ্রীয় কমিটির।"

ভাইরাল স্ক্রিনশটের আর্কাইভ এখানেএখানে দেখা যাবে। 

ইন্ডিয়া-টুডে অ্যান্টি ফেক-নিউজ ওয়ার রুম (আফয়া) তদন্ত করে দেখেছে যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল খবরের স্ক্রিনশটটি আসলে সম্পাদিত। ফটোশপের দ্বারা তা এডিট করে বিকৃত করা হয়েছে। 

আফয়া অনুসন্ধান

সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকে আদৌ এই ধরনের কোনও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে কিনা তা জানতে সবার প্রথম আমরা ইংরেজিতে কিওয়ার্ড সার্চ করি। কিন্তু এমন কোনও ফলাফল উঠে আসেনি। 

তবে ভাইরাল স্ক্রিনশটের উপরের ভাগে "আনন্দবাজার" লেখাটি স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল। সেই সূত্র ধরে আমরা কিওয়ার্ড সার্চ করি, এবং আসল প্রতিবেদনের সন্ধান পাই। তখনই পরিষ্কার হয়ে যায় যে শিরোনামটির সঙ্গে কারসাজি করে তা ভাইরাল করা হচ্ছে। 

২০২১ সালের ১৩ অগস্ট মাসে আনন্দবাজারের ডিজিটাল সংস্করণে প্রকাশিত এই প্রতিবেদনের আসল শিরোনাম ছিল, "ঘুরে দাঁড়াতে বাড়ান হিন্দুত্ব বিরোধিতা, রাজ্য সিপিএম-কে নিদান কেন্দ্রীয় কমিটির।" সেই প্রতিবেদনেই লেখা হয়, বাংলায় দলকে ঘুরে দাঁড়াতে হলে হিন্দুত্ব বিরোধী প্রচার এবং আদর্শগত আন্দোলনের পথে হাঁটতে হবে। একুশের বিধানসভা ভোটের পর্যালোচনা করে এমনই রিপোর্ট দলের কেন্দ্রীয় ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে। 

ওই একই প্রতিবেদনে সিপিএমের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এই নিদানের অংশও তুলে ধরা হয়। বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত হতে আমরা সিপিএমের ওয়েবসাইট খুলে দেখি। ২০২১ সালে পাঁচ রাজ্যে হওয়া বিধানসভা নির্বাচনের পর্যালোচনা সংক্রান্ত রিপোর্টে এই পশ্চিমবঙ্গে "সাংগঠনিক দায়িত্ব" এই উদ্ধৃতি প্রকাশ করা হয়। যেখানে লেখা ছিল, "বর্তমান পরিস্থিতিতে হিন্দুত্বের বিরুদ্ধে আদর্শগত লড়াই ও প্রচরণকে ব্যাপকভাবে জোরদার করতে হবে। বাঙালিদের অসাম্প্রদায়িকতার প্রতি দায়বদ্ধতাকে কোনও ভাবেই ক্ষুণ্ণ করা যাবে না, এই বিভ্রান্তি যেন আমাদের মধ্যে না থাকে।"

"১১৭৬ হরেকৃষ্ণ"-র রহস্যটা কী?

সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনটা হঠাৎ করে কেন লেখা হচ্ছে, কেনই বা এই শব্দবন্ধ এমন ভাবে ছেয়ে গিয়েছে, তার এক কথায় উত্তর দেওয়া সত্যিই কঠিন। বিষয়টি এতটাই ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে যে 'প্রতিদিন'-এ এই সংক্রান্ত একটি খবরও প্রকাশিত হয়। তবে অনেকেই লিখছেন যে এই শব্দবন্ধ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করলে নাকি কারোর ইচ্ছেপূরণ হচ্ছে, কেউ আবার ভাল খবর পাচ্ছেন। যদিও এর কোনও সত্যতা আমরা যাচাই করতে যাইনি। 

শেষে একটা কথা বলাই যায় যে সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটি রাজ্যের শাখাকে ১১৭৬ হরেকৃষ্ণ লেখার নিদান দেয়নি। প্রতিবেদনের স্ক্রিনশটটি এডিট করে ভাইরাল করা হয়েছে।  


ফ্যাক্ট চেক

a facebook user

দাবি

ঘুরে দাঁড়াতে লিখুন 1176, হরেকৃষ্ণ, রাজ্য সিপিএম-কে নিদান কেন্দ্রীয় কমিটির।

ফলাফল

ভাইরাল স্ক্রিনশটটি ফটোশপের মাধ্যমে এডিট করা হয়েছে। আসল প্রতিবেদনটি ২০২১ সালে ১৩ অগস্ট আনন্দবাজার পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছিল। যার আসল শিরোনাম ছিল, "ঘুরে দাঁড়াতে বাড়ান হিন্দুত্ব বিরোধিতা, রাজ্য সিপিএম-কে নিদান কেন্দ্রীয় কমিটির"

ঝুট বোলে কাউয়া কাটে

যত বেশি কাক তত বেশি মিথ্যে

  • কাক: অর্ধসত্য
  • একাধিক কাক: বেশির ভাগ মিথ্যে
  • অনেক কাক: সম্পূর্ণ মিথ্যে
a facebook user
আপনার কী মনে হচ্ছে কোনও ম্যাসেজ ভুয়ো ?
সত্যিটা জানতে আমাদের সংখ্যা 73 7000 7000 উপর পাঠান.
আপনি আমাদের factcheck@intoday.com এ ই-মেইল করুন