scorecardresearch
 

ফ্যাক্ট চেক: বিশ্বকাপের মাঠে হওয়া কোনও ঝামেলা নয়, ভাইরাল ভিডিয়োটি দশ বছর পুরনো

ভিডিয়োটি শেয়ার করার সময় একজন দাবি করেছেন, "বিশ্বকাপ খেলার মাঠের ভয়ংকর গন্ডগোল!!খেলোয়ারদের নিরাপদে অবস্থান,আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন।"

ভাইরাল ভিডিয়ো থেকে নেওয়া স্ক্রিনশট ভাইরাল ভিডিয়ো থেকে নেওয়া স্ক্রিনশট

শুরু হয়ে গিয়েছে বিশ্বকাপের রাউন্ড অফ সিক্সটিনের লড়াই। এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে একটি ভিডিয়ো যেখানে দেখা যাচ্ছে, একটি ফুটবল মাঠে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েছেন দুই দলের খেলোয়াড় ও সমর্থকরা। মশাল জ্বালিয়ে অনেকে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন। ভিডিয়োটি শেয়ার করার সময় একজন দাবি করেছেন, "বিশ্বকাপ খেলার মাঠের ভয়ংকর গন্ডগোল!!খেলোয়ারদের নিরাপদে অবস্থান,আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন।" (পোস্টের বানান অপরির্তিত)

একই দাবি-সহ ভিডিয়োটি অনেকেই শেয়ার করেছেন। 

যদিও যদিও ইন্ডিয়া টুডে অ্যান্টি ফেক নিউজ ওয়ার রুম (আফয়া) তদন্ত করে দেখেছে যে, ভাইরাল ভিডিয়োটির সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ায় করা দাবিটি সম্পূর্ণ ভুল। কারণ, ভাইরাল ভিডিয়োটি কাতার বিশ্বকাপের নয়, বরং বুন্দেশলিগার এবং ১০ বছর পুরনো।

আফয়া অনুসন্ধান

তদন্তের শুরুতে খেলোয়াড়দের জার্সিতে প্রিন্টেড নাম ও লোগো দেখে আমরা, হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়া দুটো দলকে চিহ্নিত করার চেষ্টা করি। আমরা জানতে পারি, দল দুটো হল জার্মানির হল, নাম- Hertha BSC এবং Fortuna Düsseldorf।

এরপর ইন্টারনেটে কিওয়ার্ড সার্চ করে আমরা জানার চেষ্টা করে ঠিক কোন খেলায় এই দুটো দল ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছিল। Ultras-Tifo.Net ওয়েবসাইটে ২০১২ সালের ১৫ মে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন আমাদের নজরে আসে। সেখান থেকে জানা যায়, ২০১২ সালের মে মাসে মুখোমুখি হয়েছিল দুটি দল-Hertha BSC এবং Fortuna Düsseldorf। ওই ম্যাচেই দু'দলের খেলোয়াড় এবং সমর্থকরা ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছিল। প্রতিবেদনে প্রকাশিত বেশ কয়েকটি ছবির সঙ্গে ভাইরাল ভিডিয়োর বেশ কিছু ফ্রেমের মিল পাওয়া যায়। 

আমরা দেখতে পাই ২০১২ সালের ১৫ মে আরও তিনটি ওয়েবসাইট- spox.com, dw.com-এর ইংরেজি এবং হিন্দি মাধ্যমে এই ঝামেলা সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হয়েছে।

এমনকী ইউটিউবে বেশ কয়েকটি আনঅফিসিয়াল চ্যানেলে ১০ বছর আগে বর্তমানে ভাইরাল ভিডিয়োটি আপলোড করা হয়েছে, এমনটাও দেখতে পাই। এর থেকে আমরা একটা কথা নিশ্চিত ভাবে বলতে পারি যে, বর্তমানে ভাইরাল ভিডিয়ো কোনও ভাবেই কাতার বিশ্বকাপ বা অন্য কোনও বিশ্বকাপের নয়। ১০ বছর আগে থেকেই ভিডিয়োটির অস্তিত্ব সোশ্যাল মিডিয়ায় রয়েছে।

 

এই বিষয়ে আরও নিশ্চিত হতে আমরা ফের কিওয়ার্ড সার্চ করে ২০১২ সালে যে স্টেডিয়ামে Hertha BSC এবং Fortuna Düsseldorf-এর মধ্যে ঝামেলাটি হয়েছিল, সেই স্টেডিয়ামটি খোঁজার চেষ্টা করি। আমরা জানতে পারি MERKUR SPIEL-ARENA -তে খেলাটি হয়েছিল। এরপর গুগল স্ট্রিট ভিউ-এর সাহায্য নিয়ে আমরা ভাইরাল ভিডিয়োটির সঙ্গে MERKUR SPIEL-ARENA স্টেডিয়ামটির মিল খোঁজার চেষ্টা করি। ভাইরাল ভিডিয়োতে দেখতে পাওয়া স্টেডিয়ামের ছাদ, 'Supporters Club Düsseldorf 2003' লেখা একটি স্ট্যান্ড এবং চেয়ারের রঙ মেলানোর চেষ্টা করি। সফলতাও পাই। 

সুতরাং সবশেষে এটা স্পষ্ট যে, বিশ্বকাপের মাঠে ঝামেলা বলে যে ভিডিয়োটি শেয়ার করা হয়েছে এবং যে দাবিটি করা হয়েছে, তা ভুল। এই ভিডিয়োটির সঙ্গে বিশ্বকাপের কোনও যোগ নেই। আসলে ভিডিয়োটি ২০১২ সালে জার্মানির দুটো ক্লাবের মধ্যে হওয়া ঝামেলার।
 

ফ্যাক্ট চেক

Facebook

দাবি

বিশ্বকাপ খেলার মাঠের ভয়ঙ্কর গন্ডগোল। খেলোয়ারদের নিরাপদে অবস্থান,আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন।

ফলাফল

বিশ্বকাপের মাঠে ঝামেলা বলে যে ভিডিয়োটি শেয়ার করা হয়েছে এবং যে দাবিটি করা হয়েছে, তা ভুল। এই ভিডিয়োটির সঙ্গে বিশ্বকাপের কোনও যোগ নেই। আসলে ভিডিয়োটি ২০১২ সালে জার্মানির দুটো ক্লাবের মধ্যে হওয়া ঝামেলার।

ঝুট বোলে কাউয়া কাটে

যত বেশি কাক তত বেশি মিথ্যে

  • কাক: অর্ধসত্য
  • একাধিক কাক: বেশির ভাগ মিথ্যে
  • অনেক কাক: সম্পূর্ণ মিথ্যে
Facebook
আপনার কী মনে হচ্ছে কোনও ম্যাসেজ ভুয়ো ?
সত্যিটা জানতে আমাদের সংখ্যা 73 7000 7000 উপর পাঠান.
আপনি আমাদের factcheck@intoday.com এ ই-মেইল করুন