scorecardresearch
 

ফ্যাক্ট চেক: যুদ্ধ-বিধ্বস্ত এই বাড়ির ছবিটি সিরিয়ার নয়, বরং প্যালেস্তাইনের 

যে বাড়িটির ছবি ভাইরাল হয়েছে, তাতে অসংখ্য ছিদ্র দেখা যাচ্ছে। এগুলি আসলে গুলির দাগ, ও এই দৃশ্য় গৃহযুদ্ধে নাজেহাল সিরিয়ায় ধরা পড়েছে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করা হচ্ছে। 

ফ্যাক্ট চেক: যুদ্ধ-বিধ্বস্ত এই বাড়ির ছবিটি সিরিয়ার নয়, বরং প্যালেস্তাইনের  ফ্যাক্ট চেক: যুদ্ধ-বিধ্বস্ত এই বাড়ির ছবিটি সিরিয়ার নয়, বরং প্যালেস্তাইনের 

একটি যুদ্ধ-বিধ্বস্ত বাড়ির ছবি ইদানীং সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ সাড়া ফেলে দিয়েছে। ছবিতে দেখা যাচ্ছে, একটি তিন তলা বাড়ির দোতলায় দুই খুদে দাঁড়িয়ে রয়েছে। কিন্তু বাড়িটি যে অবস্থায় দেখা যাচ্ছে, তা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে বেশি। 

যে বাড়িটির ছবি ভাইরাল হয়েছে, তাতে অসংখ্য ছিদ্র দেখা যাচ্ছে। এগুলি আসলে গুলির দাগ, ও এই দৃশ্য় গৃহযুদ্ধে নাজেহাল সিরিয়ায় ধরা পড়েছে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবি করা হচ্ছে। 

উদাহরণস্বরূপ, বেদুইন নামক একটি ফেসবুক পেজ থেকে ছবিটি পোস্ট করে ইংরাজিতে যা লেখা হয়েছে তার বাংলা তর্জমা করলে দাঁড়ায়, সিরিয়ার একটি বাড়ি, যারা জানেন না তাঁদের জন্য- এগুলি সব বুলেট দ্বারা সৃষ্টি গর্ত। 

ইন্ডিয়া টুডে অ্যান্টি ফেক নিউজ ওয়ার রুম অনুসন্ধান করে দেখেছে যে দাবিটি অর্ধসত্য়। এই ছবিটি সিরিয়ার নয়, বরং প্রায় ১৩ বছর আগে প্যালেস্তাইনে তোলা হয়। 

আফয়া অনুসন্ধান

ভাইরাল ছবিটি রিভার্স ইমেজ সাহায্যে খুঁজতেই আমরা এই ছবিটি ফটো সরবরাহকারী বিখ্যাত সংস্থা গেটি ইমেজের ওয়েবসাইটে দেখতে পাই। 

ছবিটি পোস্ট করে তা প্যালেস্তাইনের দৃশ্য় বলে উল্লেখ করা হয় গেটি ইমেজের ওয়েবসাইটে। ইংরাজি ক্যাপশনে যা লেখা হয় তার বাংলা অনুবাদ করলে দাঁড়ায়, ২০০৯ সালে নাগাড়ে ২২ দিন যে সময় ইজরায়েল গাজা স্ট্রিপে হামলা চালিয়েছিল, সেই সময় ৯ জুলাই গাজা দক্ষিণ স্ট্রিপের রাফাতে এই ছবিটি তোলা হয়েছিল। 

এই ছবিটি যে চিত্রগ্রাহক তুলেছিলেন তার নামও গেটি ইমেজের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছিল। লেখা হয় যে সাইদ খাতিব নামক এক ব্যক্তি এই ছবিটি তোলেন। 

অর্থাৎ, এক্ষেত্রে পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে যে ছবিটি সিরিয়ার বলে দাবি করা হচ্ছে, সিরিয়ার সঙ্গে তার আদৌ কোনও সংযোগ নেই। এটি বরং প্যালেস্তাইনের ছব

ফ্যাক্ট চেক

facebook users

দাবি

যুদ্ধ-বিধ্বস্ত এই বাড়ির ছবিটি সিরিয়ায় তোলা হয়েছে।

ফলাফল

বাড়িটি সিরিয়া নয়, বরং গাজা স্ট্রিপের প্যালেস্তাইনের অধীন রাফাতে ২০০৯ সালে তোলা।

ঝুট বোলে কাউয়া কাটে

যত বেশি কাক তত বেশি মিথ্যে

  • কাক: অর্ধসত্য
  • একাধিক কাক: বেশির ভাগ মিথ্যে
  • অনেক কাক: সম্পূর্ণ মিথ্যে
facebook users
আপনার কী মনে হচ্ছে কোনও ম্যাসেজ ভুয়ো ?
সত্যিটা জানতে আমাদের সংখ্যা 73 7000 7000 উপর পাঠান.
আপনি আমাদের factcheck@intoday.com এ ই-মেইল করুন