scorecardresearch
 

Kolkata International Book Fair : কলকাতা বইমেলা পেতে চলেছে দু'টি শনি এবং দু'টি রবিবার

Kolkata International Book Fair: কলকাতা বইমেলা (Kolkata International Book Fair) উদ্বোধন করার কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় (WB CM Mamata Banerjee)-এর। আয়োজক পাবলিশার্স অ্যান্ড বুক সেলার্স গিল্ড (Publishers and Booksellers Guild)

৩১ জানুয়ারি শুরু হবে কলকাতা বইমেলা ৩১ জানুয়ারি শুরু হবে কলকাতা বইমেলা
হাইলাইটস
  • কলকাতা বইমেলা পাচ্ছে দু'টি শনি এবং দু'টি রবিবার
  • ৩১ জানুয়ারি শুরু হতে চলেছে কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা
  • সে কথা দিন কয়েক আগেই ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে

Kolkata International Book Fair: কলকাতা বইমেলা (Kolkata International Book Fair) পাচ্ছে দু'টি শনি এবং দু'টি রবিবার। ৩১ জানুয়ারি শুরু হতে চলেছে কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা। সে কথা দিন কয়েক আগেই ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। তবে শেষ কবে হবে, তা নিয়ে উদ্বেগে ছিলেন প্রকাশক থেকে শুরু করে বইপ্রেমীরা। কলকাতা বইমেলা (Kolkata International Book Fair) উদ্বোধন করার কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় (WB CM Mamata Banerjee)-এর।

উদ্বেগ কেন?
প্রকাশকদের উদ্বেগের কারণ, দু'টি করে শনি-রবিবার না পেলে তাঁদের ব্যবসা ঠিক জমবে না। অনেকের বক্তব্য, যদি ব্যবসায়ী না ঠিকঠাক হয় তাহলে এত টাকা খরচ করার মানে কী? স্টল দেওয়ার কী দরকার? স্টল দিতে তো খরত কম হয় না। ছোট হোক বা বড়- সব প্রকাশকদের কমবেশি একই বক্তব্য। কলকাতা বইমেলা (Kolkata International Book Fair)-র আয়োজন পাবলিশার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ড (Publishers and Booksellers Guild)-এর কাছে সে ব্য়াপারে জানানোও হয়েছিল বলে খবর।

শনি-রবিতে জোর দেওয়ার কারণ
তাঁদের বক্তব্য, শনি এবং রবিবার সবথেকে ভাল ব্যবসা হয়, বইয়ের বিক্রিবাটা বেশি হয়। কারণ ওই দু'দিন ছুটিছাটা থাকে। সরকারি অফিস তো বটেই অনেক বেসরকারি অফিস সে-সময় ছুটি থাকে। ফলে মানুষ ভিড় বেশি করেন।

মেলা (Kolkata International Book Fair)-র অন্য দিনের তুলনায় বিক্রিও হয় বেশি। এমনও বলা হয়ে থাকে, বইপ্রেমীরা এক শনিবার বই দেখে যান আর পরের শনিবার বই কেনেন। তাই বইপ্রেমীরা দু'টি শনি এবং দু'টি রবিবার না পেলে ব্যবসা অনেকটাই মার খাওয়ার আশঙ্কা করেছেন প্রকাশকেরা।

এ ব্যাপারে গিল্ডের কাছে অনেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বলেও খবর। তাইপর কলকাতা বইমেলা (Kolkata International Book Fair)-র আয়োজক পাবলিশার্স অ্যান্ড বুক সেলার্স গিল্ড (Publishers and Booksellers Guild)-এর বৈঠক বসে। সেখানে সময়ের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর।

জানা গিয়েছিল, বইমেলা (Kolkata International Book Fair) চলবে ৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। আর তারপরই উদ্বেগে পড়ে গিয়েছিলেন প্রকাশকদের একাংশ। কারণ ওই৩১ জানুয়ারি শুরু এবং ৭ ফেব্রুয়ারি শেষ হলে দু'টি শনি এবং দুটি রবিবার মিলছে না।

ফলে তাঁদের ব্যবসা মার খাবে বলে আশঙ্কা করা হয়েছিল। কিন্তু তা নিরসন হয়েছে। কারণ তাঁদের চাহিদা মতো বইমেলার সময়সীমা নির্ধারিত হতে চলেছে।

দস্তুর মতো জানুয়ারি মাসের শেষ বুধবার কলকাতা বইমেলা (Kolkata International Book Fair)-র উদ্বোধন উদ্বোধন করা হয়। আর প্রতিবার মেলে দু'টি করে শনি এবং রবিবার। কিন্তু এবার উদ্বোধনরে ক্ষেত্রে তার ব্যতিক্রম হচ্ছে।

করোনার ধাক্কা
করোনা সংক্রমণের কারণে ২০২১ সালের বইমেলা (Kolkata International Book Fair)-র আয়োজন আর করা গেল না বলা যেতে পারে। কারণ জানুয়ারি মাসের পরিস্থিতি ছিল একেবারেই আলাদা। সংক্রমণ নিয়ে আশঙ্কা ছিল। তারপর গিল্ড (Publishers and Booksellers Guild) ঠিক করেছিল, কলকাতা বইমেলার আয়োজন করা হতে পারে জুন-জুলাই মাসে।

কিন্তু তখনও সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য জমায়েতে কড়া বিধি-নিষেধ ছিল। লোকাল ট্রেনের পরিষেবা বন্ধ রাখা হয়েছিল। ফলে তখনও আয়োজন করা যায়নি। এরপর অনেকটা সময় কেটে গিয়েছে, আলোচনা হয়েছে। আর সময় পাওয়া যায়নি। 

সেন্ট্রাল পার্কে আয়োজন
এবারও কলকাতা বইমেলা হতে চলেছে বিধাননগরের সেন্ট্রাল পার্কে। গত কয়েক বছর ধরে তা সেখানেই হয়ে আসছে। তার আগে হত ইএম বাইপাসের মিলন মেলায়।

কিন্তু এখন মিলন মেলার সংস্কারের কাজ চলছে। জানুয়ারি মাসে বইমেলা। ফলে হাতে আর কয়েকদিন সময়। ওই সময়সীমার মধ্যে মিলন মেলা সংস্কারের কাজ শেষ হয়ে যাবে, এমন মনে হচ্ছে না। তাই বিধাননগরের সেন্ট্রাল পার্কে কলকাতা বইমেলার আয়োজন করা হবে বলে জানা গিয়েছে।

 

 
; ; ;