scorecardresearch
 

Mamata on Maharashtra Crisis: 'অন্য সরকারের উপরেও হামলা হবে,' মহারাষ্ট্র নিয়ে BJP-কেই টার্গেট মমতার

শিবসেনার বিদ্রোহী বিধায়ক একনাথ শিন্ডেকে মুখ্যমন্ত্রীপদে বসিয়ে জোট সরকার টিকিয়ে রাখতে মরিয়া কংগ্রেস এবং এনসিপি। এমন বার্তা পেয়েই একনাথ ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন, শিবসেনাকে টিকিয়ে রাখতে অবিলম্বে দুই শরিকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা জরুরি। আর এই আবহে বালাসাহেব ঠাকরের ছেলে উদ্ধবের পাশেই দাঁড়ালেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পুরো পরিস্থিতির জন্য নাম না করে বিজেপিকেই দায়ি করেন তৃণমূলনেত্রী।

উদ্ধবের পাশে মমতা উদ্ধবের পাশে মমতা
হাইলাইটস
  • একের পর এক নাটকীয় মোড় মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে
  • যে কোনো মুহূর্তে পদত্যাগ করতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে
  • উদ্ধবের পাশে মমতা

একের পর এক নাটকীয় মোড় মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে। এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে, যে কোনো মুহূর্তে পদত্যাগ করতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। সরকারি বাসভবনও ছেড়ে দিয়েছেন তিনি। পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে শিবসেনার বিদ্রোহী বিধায়ক একনাথ শিন্ডেকে মুখ্যমন্ত্রীপদে বসিয়ে জোট সরকার টিকিয়ে রাখতে মরিয়া কংগ্রেস এবং এনসিপি। এমন বার্তা পেয়েই একনাথ ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন, শিবসেনাকে টিকিয়ে রাখতে অবিলম্বে দুই শরিকের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করা জরুরি। আর এই আবহে বালাসাহেব ঠাকরের ছেলে উদ্ধবের পাশেই দাঁড়ালেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পুরো পরিস্থিতির জন্য নাম না করে বিজেপিকেই দায়ি করেন তৃণমূলনেত্রী।

ক্রমেই দলের রাশ ছুটছে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের হাত থেকে। একনাথ শিন্ডে দল পরিচালনা করছেন অসমে বসেই। আর এর জেরে সংকটে পড়েছে মহাবিকাশ অঘাড়ি সরকার। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের এই খারাপ সময়ে পাশে দাঁড়ালেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। অসমের রাজধানী গুয়াহাটিতে যে পাঁচতারা হোটেলে শিন্ডে বাহিনী রয়েছেন সেখানে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে অসম তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকরা। তৃণমূল কংগ্রেসের এই মিছিলের নেতৃত্ব দেন অসম তৃণমূলের প্রধান রিপুন বোরা। এর নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মহারাষ্ট্রের প্রসঙ্গে নিজের মতামত ব্যক্ত করেব বাংলার মুখ্যমন্ত্রী।

যা বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
এদিন নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলনে মহারাষ্ট্র প্রসঙ্গ উঠলে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, "অনৈতিক ভাবে সরকার ভাঙার চেষ্টা চলছে। মহারাষ্ট্রের পর অন্য সরকারে ওপরও হামলা হবে। এটা পরিকল্পনা করেই হচ্ছে। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে ওদের কাছে নম্বর নেই, তাই সরকার ভাঙার চেষ্টা করছে। টাকা, ইডি, সিবিআই দিয়ে চলছে সবকিছু। যতই বাহুবল দেখান, একদিন না একদিন যেতেই হবে আপনাদের। উদ্ধাব ঠাকরের সুবিচার চাইছি।" নিজের বক্তব্যে নাম না করে বিজেপিকেই নিশানা করেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী।