scorecardresearch
 

এবার ঐতিহাসিক ফোর্ট উইলিয়মের নাম বদলের দাবি, আবেদন রাজ্যপালকে

ফোর্ট উইলিয়ামে ভারতের পতাকা উত্তোলন করার স্বপ্ন দেখেছিলেন রাসবিহারী বসু ও বাঘা যতীন। সুতরাং, ফোর্ট উইলিয়ামের নাম পাল্টে রাসবিহারীর নামে রাখা উচিত। এমনই প্রস্তাব দেওয়া হল রাজ্যপালকে। বৃহস্পতিবার স্বাধীনতা সংগ্রামী রাসবিহারী বসুর ১৩৮তম জন্মদিবস ছিল। চন্দননগর বাগবাজারে রাসবিহারী ইনস্টিটিউট ও মিউজিয়াম পরিদর্শনে আসেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাজ্যপাল।

হাইলাইটস
  • ফোর্ট উইলিয়ামে ভারতের পতাকা উত্তোলন করার স্বপ্ন দেখেছিলেন রাসবিহারী বসু ও বাঘা যতীন।
  • সুতরাং, ফোর্ট উইলিয়ামের নাম পাল্টে রাসবিহারীর নামে রাখা উচিত।

ফোর্ট উইলিয়ামে ভারতের পতাকা উত্তোলন করার স্বপ্ন দেখেছিলেন রাসবিহারী বসু ও বাঘা যতীন। সুতরাং, ফোর্ট উইলিয়ামের নাম পাল্টে রাসবিহারীর নামে রাখা উচিত। এমনই প্রস্তাব দেওয়া হল রাজ্যপালকে। বৃহস্পতিবার স্বাধীনতা সংগ্রামী রাসবিহারী বসুর ১৩৮তম জন্মদিবস ছিল। চন্দননগর বাগবাজারে রাসবিহারী ইনস্টিটিউট ও মিউজিয়াম পরিদর্শনে আসেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাজ্যপাল।

রাসবিহারী ইনস্টিটিউট-এর পক্ষ থেকে রাজ্যপালের কাছ আবেদন করা হয়, রাসবিহারী এক সময় ফোর্ট উইলিয়ামে চাকরি করতেন। তিনি আর বাঘাযতীন ফোর্ট উইলিয়ামে ভারতের পতাকা ওড়ানোর স্বপ্ন দেখেছিলেন। তাই ফোর্ট উইলিয়াম রাসবিহারী ফোর্ট হলে রাসবিহারী বসুর নামে হলে শ্রদ্ধা জানানো হবে।

স্বাধীনতা সংগ্রামী রাসবিহারী বসু। ফাইল ছবি।

রাজ্যপাল তার ভাষনে বলেন, বর্তমান প্রজন্মের কাছে রাসবিহারীর চিন্তা ধারা, ভাবনা যদি পৌঁছে দেওয়া যায় তাহলে আরও একটা শক্ত বুনিয়াদের ভারতবর্ষ গড়ে তোলা যাবে এবং সেই বুনিয়াদ গড়ে তুলতে রাসবিহারী চর্চা জরুরি। যা রাসবিহারী ইনস্টিটিউট করে যাচ্ছে।

চন্দননগর রাসবিহারী ইন্সটিটিউট এর কর্নধার কল্যাণ চক্রবর্তী বলেন, রাজ্যপাল তাদের কাজ দেখে এক লক্ষ টাকা দান করেন। রাসবিহারী চর্চার জন্য কোনও সরকার বা কর্পোরেট সংস্থার কাছ থেকে অর্থ সাহায্য নেওয়া হয় না। অন্যদিকে রাজভবন থেকে যদি রাসবিহারী বসুর ওপর কোনও বই লেখা হয় সেই বই এর পৃষ্ঠপোষকতা করতে পারে চন্দননগরের ইন্সটিটিউট।

এই বিষয়টি জানানো হয় রাজ্যপালকে। রাজ্যপাল তাদের জানিয়েছেন বিষয়টি তার জানা ছিল না। তবে বই এর ব্যাপারটা তিনি চেষ্টা করবেন বলেছেন। অনুষ্ঠানে রাসবিহারী বসুর জন্মদিনে তাঁর জীবনী নিয়ে সায়ন্তন বসুর লেখা একটি বই প্রকাশ করেন রাজ্যপাল।

আরও পড়ুন-অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া বেঁধে দিল রাজ্য, দায়িত্ব পরিবহণ দফতরকে, অনিয়মে পুলিশে অভিযোগ