scorecardresearch
 

পাঞ্জাবিতে লেখা 'কান'ট টাচ মি,' ED-CBI-কে চ্যালেঞ্জ TMC-র ইদ্রিশের

ঘটনার সূত্রপাত বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে। সাঁতরাগাছির মিছিয়ে যোগ দেওয়ার সময়ে রাস্তাতেই আটকানো হয় শুভেন্দু অধিকারীকে। সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যকে নর্থ কোরিয়া বানিয়ে দিয়েছে। আমাদের যেতে দেওয়া হচ্ছে না। পথ আটকে দিয়েছে পুলিশ।

ইদ্রিশ আলি। ইদ্রিশ আলি।
হাইলাইটস
  • পাঞ্জাবিতে লেখা 'ক্যান'ট টাচ মি,'
  • ED-CBI-কে চ্যালেঞ্জ TMC-র ইদ্রিশের
  • জানুন বিস্তারিত তথ্য

"আমি Male, সিবিআই-ইডি আমাকে ছুঁতেও পারবে না।" এমনই এক পঞ্জাবিতে এদিন দেখা গেল তৃণমূল বিধায়ক ইদ্রিশ আলিকে। তিনি বলেন, একজন বিজেপি নেতা ভাবেন সিবিআই এবং ইডি তাঁকে কোনওদিন ছুঁতে পারবেন না। রাজনৈতিক মহলের মতে নাম না করে তিনি শুভেন্দু অধিকারীকে নিশানা করেছেন। প্রসঙ্গত, এবারই প্রথম নয়। কদিন আগেও শুভেন্দুকে নিশানা করে পোস্টার নিয়ে কয়েকদিন আগেই বিধানসভাতে বিক্ষোভ দেখিয়েছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলের বিধায়করা। 

ঘটনার সূত্রপাত বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে। সাঁতরাগাছির মিছিয়ে যোগ দেওয়ার সময়ে রাস্তাতেই আটকানো হয় শুভেন্দু অধিকারীকে। সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যকে নর্থ কোরিয়া বানিয়ে দিয়েছে। আমাদের যেতে দেওয়া হচ্ছে না। পথ আটকে দিয়েছে পুলিশ। একথা বলতে বলতেই শুভেন্দু বলেন এক মহিলা পুলিশ কর্মীকে লক্ষ্য করে বলেন 'ডোন্ট টাচ মি। আপনি একজন মহিলা পুলিশ। আমার শরীর স্পর্শ করবেন না। এরপর শুভেন্দু ওই মহিলা কর্মীকে লক্ষ্য করে বলেন, আপনি আমার গায়ে হাত দেবেন না। আমি আপনাকে গায়ে হাত দিতে দেব না। আপনি একজন মহিলা। আপনারা পুরুষ পুলিশ অফিসার ডাকুন। আমি কথা বলব। আপনারা আপনাদের সিনিয়ারকে ডাকুন। আইপিএস-কে ডাকুন। আমি কথা বলব।' 

সেই সময় দক্ষিণ কলকাতার ডেপুটি কমিশনার আকাশ মাঘারিয়া সেখানে আসেন। তাঁকে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, 'আপনার মহিলা পুলিশ কর্মীরা কেন আমার গায়ে হাত দেবে। এটা তো উচিত নয়। আমি আইন মেনে চলা নাগরিক। আপনারাও আইন মেনে সব কিছু করবেন এই প্রত্যাশা রাখি।' তখন পাশ থেকে একজন পুলিশ অফিসার বলে ওঠেন,'পুলিশ তো পুলিশই। মহিলা-পুরুষের ব্যাপার নেই।'তখন শুভেন্দু বলেন 'এটা হতে পারে না। এখানে সব লেডি পুলিশ আমার গায়েও হাত দিচ্ছে। আমি হাইকোর্টে যাব।' এরপরেই শুভেন্দুকে নিয়ে সেদিন লালবাজারে নিয়ে যাওয়া হয়।

যদিও পরেই এই ঘটনা নিয়ে শুভেন্দু জানান, 'আপনারা দেখে থাকবেন ওখানে সূর্যপ্রকাশ যাদব বলে একজন আইপিএস ও আকাশ মাঘারিয়া ছিলেন। ওঁরা জ্ঞানবন্ত সিংকে ডেকে নিয়ে এলেন। জ্ঞানবন্ত সিং এলেন ও ইশারা করলেন। ওখানে ৮ জন মহিলা পুলিশ অফিসার ছিলেন। তাঁরা জগিংয়ের পোশাকে ছিলেন। তাঁদের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন, হিন্দি ভাষায় কথা বলছিলেন ক্রিস্টিনিয়া মারিয়া বলে একজন এএসআই। উনি আমাকে ধাক্কা দেন। আমি ওঁকে কী বলেছিলাম সেটা আপনারা দেখেছেন। আমি বলেছি আপনি মাতৃশক্তি। আমি পুরুষ। আমার বডিতে আপনি টাচ করবেন না। এটা সবাই দেখেছে। ফলে ভাইপো ও জ্ঞানবন্ত সিংয়ের পরিকল্পনা ব্যর্থ হয়েছে। আপনারা জানেন যে সব পুলিশরা সরে গিয়েছিলেন। ছিলেন শুধু ৮ জন মহিলা। আমি ওঁদের ফাঁদে পা দিইনি। ওই ফাঁদে পা দিইনি বলে ভাইপোর রাগ হয়েছে।'