scorecardresearch
 

ঘরেই খুশকি তাড়ান প্রাকৃতিক উপায়ে, কোনও ওষুধ লাগবে না

খুশকির সমস্যা একটা বড় সমস্য়া। আপাতভাবে সাধারণ মনে হলেও খুশকি মানুষের জীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। ঘরেই খুশকি তাড়ান প্রাকৃতিক উপায়ে, কোনও ওষুধ লাগবে না। জেনে নিন কীভাবে...

খুশকি তাড়ান প্রাকৃতিক উপায়ে খুশকি তাড়ান প্রাকৃতিক উপায়ে
হাইলাইটস
  • ঘরেই খুশকি তাড়ান প্রাকৃতিক উপায়ে
  • কোনও ওষুধ লাগবে না
  • ঘরেই রয়েছে সহজ উপায়

ঋতু, বয়স বা লিঙ্গ নির্বিশেষে একজন ব্যক্তির অন্তর্গত, খুশকি একটি গুরুতর সমস্যা। যা তাদের মানসিকতা এবং ত্বকে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। আয়ুর্বেদে খুশকি সহ ত্বকের যত্নের প্রতিটি সমস্যার জন্য একটি চিকিৎসা রয়েছে।

অত্যধিক তেল উৎপাদনের ফলে আপনার মাথার ত্বকে শুষ্ক ত্বকের ছোট ছোট টুকরো হয়ে গেলে খুশকি দেখা দেয়। যেহেতু ত্বকের স্তরগুলি ক্রমাগত অটোমোটিক প্রতিস্থাপিত হয়, কোষগুলি বাইরের দিকে ঠেলে দেওয়া হয়, যেখানে তারা মারা যায় এবং ছিটকে যায়। এই ঘটনাটি আপনার শরীরের অন্যান্য অংশেও ঘটতে পারে। ত্বক শুষ্ক, মোটা, চুলকানি এবং কিছু চরম ক্ষেত্রে লাল এবং ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়।

খুশকি যখন মৃদু থেকে গুরুতর হয়ে যায়, তখন এটি ত্বকের কোষগুলি স্বাভাবিকের চেয়ে দ্রুত বৃদ্ধি করতে পারে, যার ফলে ভারী ফ্লেক্স, ক্রমাগত চুলকানি এবং আরও দৃশ্যমান প্রদাহ হতে পারে।

খুশকির কারণঃ

শুষ্ক ত্বক: শীতকালে, বাতাসে আর্দ্রতার অভাবের কারণে ত্বক দ্রুত শুষ্ক হয়ে যায়, যা খুশকির কারণও হতে পারে।

কন্টাক্ট ডার্মাটাইটিস: অ্যালার্জেন বা বিরক্তিকর কারণে ত্বকের জ্বালা যা চুলকানি এবং বেদনাদায়ক ফুসকুড়িতে পরিণত হয়। খুশকির ক্ষেত্রে, এই প্রতিক্রিয়া মাথার ত্বকে ঘটে। এটি সাধারণত চুলের যত্নের পণ্যের রাসায়নিকের কারণে ঘটে যার সাথে আপনি যোগাযোগ করেন।

খারাপ শ্যাম্পু করার অভ্যাস: কদাচিৎ চুল ধোয়া খুশকিকে বাড়িয়ে তুলতে পারে যা অতিরিক্ত তেল, ধুলোবালি, ময়লা এবং ত্বকের মৃত কোষ তৈরি করে।

প্রাকৃতিকভাবে খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য এখানে কয়েকটি ঘরোয়া উপায় রয়েছে:

খুশকি

১. চা গাছের তেল এবং ভার্জিন নারকেল তেল

একটি মিক্সিং বাটিতে, ৫-১০ ফোঁটা টি ট্রি অয়েলের সাথে ৫ টেবিল চামচ ভার্জিন কোকোনাট অয়েল মেশান। এই পুষ্টিকর মিশ্রণটি আপনার মাথার ত্বকে এবং চুলে ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন।

এটি দূর করতে একটি মৃদু হেয়ার ক্লিনজার ব্যবহার করুন। নারকেল তেল কার্যকরভাবে ত্বককে হাইড্রেট এবং ময়শ্চারাইজ করার ক্ষমতার জন্য পরিচিত। এটি ছত্রাকের সাথে লড়াই করতেও সহায়তা করে এবং এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য একজিমার চিকিত্সায় সহায়তা করে।

২. আপেল সিডার ভিনেগার:

২-৩ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার সমান অংশ জলের সাথে একত্রিত করুন। এই মিশ্রণটি আপনার মাথার ত্বকে এবং চুলে লাগান এবং ৩-৫ মিনিটের জন্য রেখে দিন।

হালকা হেয়ার ক্লিনজার দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। আপেল সিডার ভিনেগার নিয়মিত প্রয়োগ মাথার ত্বকের প্রাকৃতিক pH স্তরের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং খুশকি কমাতে সাহায্য করে।

৩. নিম পাতা:

প্রায় ১০-১৫ টি নিম পাতা নিন এবং ফুটন্ত জলে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। তারপরে আপনি এটি একটি সূক্ষ্ম পেস্টে পিষে নিতে পারেন এবং ১-২ টেবিল চামচ দই মেশান।

৩০ মিনিটের জন্য এই হেয়ার মাস্কটি প্রয়োগ করুন এবং তারপরে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিতভাবে আপনার চুলে নিম পাতার ব্যবহার আপনার চুল এবং মাথার ত্বকে খুশকি সৃষ্টিকারী ছত্রাককে জীবাণুমুক্ত করবে।

৪. বেকিং সোডা পাউডার

২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা পাউডার সরাসরি ভেজা চুলে লাগান, বৃত্তাকার গতিতে আলতো করে ম্যাসাজ করুন। একটি মৃদু হেয়ার ক্লিনজার দিয়ে ধুয়ে ফেলার আগে এটি ২-৩ মিনিটের জন্য বসতে দিন।

বেকিং সোডা পাউডার, যখন একটি হালকা এক্সফোলিয়েন্ট হিসাবে ব্যবহার করা হয়, তখন চুলকানি এবং প্রদাহ কমানোর সাথে সাথে মাথার ত্বকের অতিরিক্ত মৃত কোষগুলিকে সরিয়ে দেয়, এটি খুশকির জন্য প্রাকৃতিক স্ক্যাল্পের চিকিৎসায় পরিণত হয়।

৫. জৈব আমলা পাউডার এবং তুলসি পাতা

একটি মিশ্রণ বাটিতে, জৈব আমলা পাউডার এবং জলের সমান অংশ একত্রিত করে একটি পাতলা পেস্ট তৈরি করুন। এতে ৮-১০ টি তুলসি পাতা এবং জল পেস্ট করুন।

এই পেস্টটি আপনার মাথার ত্বকে উদারভাবে প্রয়োগ করুন এবং ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। এটি দূর করতে একটি মৃদু হেয়ার ক্লিনজার ব্যবহার করুন।

আমলকির উচ্চ ভিটামিন সি উপাদান এবং তুলসীর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য খুশকির চিকিৎসায় সাহায্য করে।

৬. মেথি বীজ এবং লেবুর রস

২ টেবিল চামচ মেথি বীজ একটি পাত্রে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। সকালে, ভেজানো মেথি বীজ থেকে একটি সূক্ষ্ম, পাতলা পেস্ট তৈরি করতে একটি ব্লেন্ডার ব্যবহার করুন।

এই পেস্টে এক টেবিল চামচ লেবুর রস যোগ করুন। পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে মিশ্রিত করুন এবং আপনার মাথার ত্বক এবং চুলে লাগান।

আপনার পছন্দের একটি মৃদু হেয়ার ক্লিনজার দিয়ে মুছে ফেলার আগে এটি ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। এই মাস্ক আপনার মাথার ত্বকের স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধার করতে এবং চুল পড়া এবং খুশকি রোধ করতে সাহায্য করবে।