scorecardresearch
 

Medical Test before Marriage: সামনেই বিয়ে? দাম্পত্য মধুর করতে জরুরি যে মেডিক্যাল টেস্ট

Relationship Tips: আপনি যদি বিয়ের পর জীবনে সুখ-শান্তি পেতে চান, তাহলে বিয়ের আগে এখানে উল্লেখিত মেডিক্যাল টেস্টগুলি অবশ্যই করুন। নইলে বিয়ের পর হাসপাতালের বিল দিতেই জীবন কেটে যাবে।

হাইলাইটস
  • বিয়ের আগে এই মেডিকেল টেস্ট করিয়ে নিন
  • সঙ্গীর সামনে আপনাকে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হবে না

Pre Marriage Medical Test: শুরু হয়েছে বিয়ের মরশুম। সামনেই হয়তো ছাদনাতলায় বসবেন অনেকেই। ভারতীয় পরিবারে বিয়ের প্রথাকে অত্যন্ত পবিত্র বলে মনে করা হয়। সবাই চায় তাদের দাম্পত্য জীবন খুব সুখে কাটুক। আপনিও যদি বিয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তাহলে অবশ্যই এখানে উল্লেখিত মেডিক্যাল টেস্ট করান। এতে বিয়ের পর যেকোনো ধরনের চিকিৎসা সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে এবং আপনি আপনার সন্তানদেরও জেনেটিক রোগ থেকে রক্ষা করতে পারবেন।

বিয়ের আগে এই বিষয়গুলো মাথায় রাখুন
উর্বরতা পরীক্ষা (Fertility Test)

মানুষ যেভাবে বিয়ের আগে পাত্র-পাত্রীর রাশিফল ​​মেলায় এবং তাদের এডুকেশন যাচাই করে, একইভাবে তাদের মেডিকেল টেস্টও করাতে হবে। ফার্টিলিটি টেস্ট করে জানা যায় যে দম্পতির মধ্যে যে কোনও একজন  ভবিষ্যতে সন্তান ধারণ করতে কোনও সমস্যায় পড়বেন কিনা। কোনো সমস্যা হলে তার চিকিৎসা করা যাবে।

জেনেটিক মেডিকেল হিস্ট্রি (Genetic Medical History)
বর্তমান যুগে ডায়াবেটিস বা হৃদরোগ খুবই সাধারণ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। অতএব, দম্পতি যদি একে অপরের পারিবারিক চিকিৎসা ইতিহাস জানেন, তবে এটি ভাল এবং ভবিষ্যতে এই রোগগুলির চিকিৎসা করা যেতে পারে।

থ্যালাসেমিয়া টেস্ট (Thalassemia Test)
বিয়ের আগে দম্পতিদের অবশ্যই থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা করাতে হবে কারণ এটি শিশুদের জন্মগত ত্রুটি সৃষ্টি করে। তাই বিয়ের আগে দম্পতিদের অবশ্যই এই পরীক্ষা করাতে হবে।

মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থা (Mental Health Status)
বিয়ের আগে দম্পতির মানসিক স্বাস্থ্যের অবস্থা দেখে নিতে হবে তিনি কোনো মানসিক রোগে ভুগছেন কিনা। এতে বিয়ের পর দাম্পত্য জীবনে সমস্যার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়।

এইচআইভি এবং এসটিডি পরীক্ষা  (HIV and STD Test)
এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা, যে কোনও ব্যক্তির অবশ্যই বিয়ের আগে এইচআইভি এবং এসটিডি পরীক্ষা করাতে হবে। এটি নিরাপদ যৌনতার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি বিয়ের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তাহলে অবশ্যই সেরোলজি স্ক্রিনিং করান। 

এই পরীক্ষাগুলিও গুরুত্বপূর্ণ
উপরে উল্লিখিত পরীক্ষাগুলি ছাড়াও রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা, জিনোটাইপ পরীক্ষা এবং পেলভিক আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষা করতে হবে। পেলভিক আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষা হল একটি গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা যা জরায়ু, সার্ভিক্স, ডিম্বাশয় এবং ফ্যালোপিয়ান টিউবের অবস্থা দেখায়।

(Disclaimer: এখানে দেওয়া তথ্য ঘরোয়া প্রতিকার এবং সাধারণ তথ্যের উপর ভিত্তি করে। এটি গ্রহণ করার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। আজতক বাংলা এটি নিশ্চিত করে না।)

 
; ; ;