scorecardresearch
 

Vegetables: ডায়াবেটিস থেকে জন্ডিস, ৬ সবজি মোক্ষম দাওয়াই

Vegetables: লাউ দেখতে সুস্বাদু হওয়ার পাশাপাশি পুষ্টির ভান্ডার। গ্রীষ্মের মৌসুমে, বেশিরভাগ মানুষই খুব আবেগের সাথে লাউ শাক খান। লাউতে ক্যালসিয়াম থাকে যা হাড়ের জন্য ভালো বলে মনে করা হয়। পেট সংক্রান্ত সমস্যা, উচ্চ কোলেস্টেরল এবং নিয়মিত রক্তে শর্করার ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে লাউ ব্যবহার করা হয়।

খাবার খাবার
হাইলাইটস
  • ডায়াবেটিস থেকে জন্ডিস
  • ৬ সবজি মোক্ষম দাওয়াই
  • জানুন বিস্তারিত তথ্য

Vegetables: গরমে প্রত্যেক সবজির নিজস্ব উপকার রয়েছে। এখন বর্ষার মরসুম চলছে। তবে ভ্যাপসা গরম কিছুটা হলেও রয়েছে। এই কিছু সবজি নিয়মিত খাওয়া উচিত। এই সবজিগুলি বর্ষার মরসুমে শরীরে দুর্দান্ত উপকার দেয়। 

লাউ- লাউ দেখতে সুস্বাদু হওয়ার পাশাপাশি পুষ্টির ভান্ডার। গ্রীষ্মের মৌসুমে, বেশিরভাগ মানুষই খুব আবেগের সাথে লাউ শাক খান। লাউতে ক্যালসিয়াম থাকে যা হাড়ের জন্য ভালো বলে মনে করা হয়। পেট সংক্রান্ত সমস্যা, উচ্চ কোলেস্টেরল এবং নিয়মিত রক্তে শর্করার ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে লাউ ব্যবহার করা হয়।

বেগুন- অধিকাংশ মানুষ সবজি বা ভর্তা বানিয়ে বেগুন খান। এটি অন্যান্য সবজির সাথে মিশিয়েও খাওয়া হয়। বেগুনে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে যা পাকস্থলী ও অন্ত্রের জন্য ভালো। এ ছাড়া বেগুনে রয়েছে ফ্ল্যাভোনয়েড, ভিটামিন এবং পটাশিয়াম যা পুরো শরীরের জন্য উপকারী।

করলা- এটি স্বাদে তেতো হতে পারে কিন্তু করলা শরীরের জন্য খুবই উপকারী। বিশেষ করে হৃৎপিণ্ড ও পেটের জন্য করলার রস ওষুধের মতো কাজ করে। করলাতে রয়েছে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি, আয়রন ও পটাশিয়াম। এটি পরিপাকতন্ত্র ঠিক রাখে এবং রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে গরমে শরীর ঠান্ডা থাকে।

শসা- এই মরসুমে শসা সবচেয়ে বেশি খাওয়া হয়। শসা অনেক পুষ্টিগুণে ভরপুর। কেউ এটি সালাদে খান আবার কেউ শাকসবজিতেও রাখেন। শসাতে জলর পরিমাণ বেশি থাকে, তাই গ্রীষ্মকালে এটি খাওয়া ভালো বলে মনে করা হয়। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ার পাশাপাশি এতে ভিটামিন কে এবং সি পাওয়া যায়। এটি শরীরকে হাইড্রেটেড রাখে।

কুমড়া- কুমড়ার টক-মিষ্টি সবজি প্রায় সবাই পছন্দ করে। কুমড়া ভিটামিন এ সমৃদ্ধ যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে। এ ছাড়া কুমড়া অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং বিটা ক্যারোটিনের ভালো উৎস যা শরীরের তাপমাত্রা ঠিক রাখার পাশাপাশি হৃদরোগ থেকে দূরে রাখে।

টমেটো- ভারতে প্রায় প্রতিটি সবজিতে টমেটো ব্যবহার করা হয়। সালাদ, জুস, তরকারি বা সস, টমেটো যেকোনোভাবেই খাওয়া যেতে পারে। এর 95%ই জল দিয়ে তৈরি, তাই এটি খেলে শরীরে জলর অভাব হয় না। টমেটোতে রয়েছে লাইকোপিন যা অনেক রোগকে দূরে রাখে। এছাড়া এতে রয়েছে পটাশিয়াম ও ক্যালসিয়াম।