scorecardresearch
 

এই অভ্যাসগুলি ক্ষতি করে মস্তিষ্কের, এখনই না ছাড়লে বিপদ

আমাদের যৌবনের কিছু বদভ্যাস বদলে দিতে পারে আমাদের জীবনের বড় উপায়। সময়ের আগেই সংকুচিত করে ফেলে মস্তিষ্ক। এখনই বদলে না ফেলতে পারলে বিপদ।

মস্তিষ্ক সংকুচিত হয়ে পড়ে ভুল খাদ্যাভ্যাসে মস্তিষ্ক সংকুচিত হয়ে পড়ে ভুল খাদ্যাভ্যাসে
হাইলাইটস
  • এখনই ছাড়তে না পারলে বিপদ
  • এই অভ্যাসগুলি সংকুচিত করে দেয় মস্তিষ্ক
  • ভুল খাদ্যাভ্যাস ও অন্য অভ্যাস ছাড়তে হবে

ধীরে ধীরে আপনি যখন মধ্যবয়সের দিকে পৌঁছাতে থাকবেন। শরীরের সঙ্গে আপনার মস্তিষ্ক বদলাতে থাকবে।যেমন আপনি ৩০ থেকে ৪০ বছর বয়সে যখন পৌঁছে যান, আপনার ব্রেইন সংকুচিত হতে শুরু করে। সে কারণে আমরা বলি যে একটা সময়ের পর পড়াশোনা নতুন কিছু শেখা অনেক কঠিন হয়ে যায়। যখন আপনি ৬০ বছর পর্যন্ত পৌছে যাবেন, আপনার মস্তিষ্ক সংকোচন আরও দ্রুত বেড়ে যাবে। এই কারণে ধীরে ধীরে অনেকে স্মৃতিভ্রংশ হন।

জানিয়ে দেওয়া যাক যে ব্রেন কখনও একবারে সবদিক দিয়ে সংকুচিত হয় না। বরং কিছু জায়গা থেকে খুব দ্রুত সংকুচিত হতে থাকে। তখন আবার কিছু জায়গা থেকে তার ধীরে ধীরে সংকুচিত হয়। যেমন আপনি বড় হতে শুরু করেন, মস্তিষ্ক সংকোচনের এই সমস্যা আরও বেশি বাড়তে থাকে। আজ আপনাকে আমরা কিছু এমন বিষয়ের কথা জানাবো যা ব্রেইনকে সংকুচিত করার সমস্যা আরও বাড়িয়ে দেয়। অনেক সময় দেখা যায় যে ৪০ বা ৪৫ বছরে ৬০-৬৫ বছরের মতো সংকুচিত হয়ে যায়। তা শুধুমাত্র হয় আমাদের কিছু বদভ্যাসের জন্য। সেটিকে যত বিলম্বিত করা যায় ততই শরীরের পক্ষে মঙ্গল। আসুন আমরা জেনে নেই সেই বিষয়গুলো যাতে যতটা সম্ভব দূরে রাখা যায়।

১. পিঠে ব্যথা, (Cronic Backpain) 

লম্বা সময় থেকে চলে আসা ব্যাকপেইনের সমস্যার কারণে ব্রেন সংকুচিত হতে শুরু করে। ১১ শতাংশ ব্রেন সংকোচনের সমস্যা বেড়ে যায় এই ব্যাকপেইনের কারণে। ২০০৪ সালে নর্থ ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীদের রিপোর্ট অনুসারে গ্রে ম্যাটারস পাতলা হওয়ার কারণে ব্যাক পেনের সমস্যা শুরু হয়। আমাদের মস্তিষ্কের সেন্ট্রাল নার্ভাস সিস্টেমের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং কন্ট্রোল অনুভব যেমন দেখাশোনা স্পর্শ এই ধরনের অনুবাদগুলিকে কন্ট্রোল করে।

২. মদ্যপান (liquor consumption) 

অত্যন্ত অধিক মাত্রায় মদ্যপান করলে থাকলে মস্তিষ্ক সংকুচিত হতে শুরু করে। শোধন করার অনুযায়ী বেশি মাত্রায় মদ্যপান করতে শুরু করলে মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতো হয় না। এবং মস্তিষ্কের আকারে একটি প্রভাব পড়ে।

৩. ইন্টারনেটের অভ্যাস (Internet Surfing)

ইন্টারনেটের অভ্যাস মস্তিস্ককে সংকুচিত করে। সাইন্টিফিক আমেরিকান এ প্রকাশিত একটি রিসার্চ রিপোর্টে কলেজ পড়ুয়া যুবকদের ব্রেন স্ক্যান করা হয়। যার মধ্যে পাওয়া যায় ইন্টারনেটের ব্যবহার করার কারণে যুবকদের মস্তিষ্ক বিভিন্ন ছোট ক্ষেত্রে সংকুচিত হয়ে গিয়েছে। কিছু যুবকদের এই সমস্যা ১০ থেকে ২০ শতাংশ পাওয়া গিয়েছে।

৪. ঘুম কম (Insufficient Sleeping)

ঘুম না হওয়ার কারণে ব্রেন স্রিংকেজ এ সমস্যার মধ্যে পারতে হয়। এ ছাড়া যারা অনিদ্রায় ভোগেন, তাদের সমস্যা আরও বেশি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তাদের মস্তিষ্ক সংকুচিত হতে শুরু করে। রিসার্চ অনুসারে বেশি বয়সের লোকদের কম ঘুম হয়। তাদের মস্তিষ্ক সংকোচনের সমস্যা অত্যন্ত দ্রুত হয়।

৫. নিরামিষাশী ভোজন (Heavy Vegetable Diet)

হেবি ভেজিটেবিল ডায়েট নিতে গিয়ে খুব দ্রুততার সঙ্গে মস্তিষ্ক সংঘটিত হওয়ার সমস্যার সামনা করতে হয়। ডায়েটে ভিটামিন এবং বি-টুয়েলভ এর ক্ষমতা তৈরি হয়। ভিটামিন বি টুয়েলভ মস্তিষ্কের জন্য ভালো। যাঁরা একেবারেই আমিষ এবং প্রাণিজ প্রোটিন সেবন করেন না, তাঁদের আমিষভোজীদের চেয়ে  ৬ গুণ বেশি মস্তিষ্ক সংকুচিত হয়।

 

 
; ; ;