scorecardresearch
 

একটি ইলিশ কিনেই হতে পারেন কোটিপতি, গবেষণার গোপন রিপোর্ট ফাঁস

কৌন বনেগা করোড়পতি? অমিতাভ বচ্চনের মুখোমুখি না হয়েও কোটিপতি হওয়ার খুল্লম খুল্লা অফার। মাত্র একটা ইলিশ বাড়ি নিয়ে এসেই সে সুযোগ মিলবে। তবে তার জন্য একটু পরিশ্রম করতে হবে, কি রাজি তো? তাহলে জেনে নিন পদ্ধতি...

কোটিপতি হওয়ার সুযোগ কোটিপতি হওয়ার সুযোগ
হাইলাইটস
  • একটা ইলিশ ঘরে আনলেই কেল্লা ফতে
  • এক ইলিশেই মিলবে ১৬ লক্ষ ডিম
  • পুকুরে হোক বা চৌবাচ্চা, বাঁচাতে পারলেই কোটিপতি

ইলিশকে ঘিরে ফ্যান্টাসির শেষ নেই বাঙালির। বিভিন্ন সাহিত্যে ইলিশের আলাদা জায়গা রয়েছে বরাবরই। তাছাড়া শুধু ইলিশের রেসিপির নানা রকম ভিডিও ইউটিউবে পোস্ট করেই লাখপতি হয়ে গিয়েছেন অনেকেই। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানেন না। এত কিছু না করেও ইলিশকে ঘিরে কোটিপতি হওয়ার একটা সুবর্ণ সুযোগ রয়েছে। কীভাবে ?

২০০ গ্রামের একটি ইলিশ ফেরাবে ভাগ্য

মাত্র একটি ২০০ গ্রামের ইলিশ ধরে আনতে বা কিনে আনতে পারলেই আপনি হয়ে যেতে পারেন কোটিপতি। জীবনে আর কিছু করতে হবে না। আপনাকে। যদিও একবার ইলিশের টাকার স্বাদ পেলে থমকাবেন কেন ? কিন্তু একটা ইলিশকে ঘিরে কোটিপতি ! ভাবছেন কিনতে গিয়ে কয়েক হাজার বেরিয়ে যাচ্ছে আর এখানে উল্টো কথা শোনানো হচ্ছে ! 

গল্প নয়, গবেষণা বলছে এ কথা

মিথ্যে নয় একেবারেই। একটা মাত্র ইলিশ আপনাকে চিরদিনের জন্য কোটিপতি করে দিতে পারে। এ চরম সত্যি। তবে ওই ইলিশটি জ্যান্ত হতে হবে। শর্ত এটিই। তাহলেই আপনার সামান্য ধৈর্য আর একটু পরিশ্রম। তাহলেই চিরদিনের মতো কোটিপতি হতে আপনাকে কেউ আটকাতে পারবে না। আর যে কোনও ব্যবসার মূলমন্ত্র কে না জানে ! টাকা থেকে টাকা আসে। একবার কোটিপতি হয়ে গেলে কোটি থেকে কোটির দিকে দৌড়নো আপনার কাছে হবে সময়ের অপেক্ষা। কিন্তু কীভাবে ? আসুন এবার বিষয়টি জেনে নেওয়া যাক।

১৬ লাখ ইলিশ বেচতে পারবেন তো !

গবেষণা বলছে, ‘মা’ ইলিশদের যদি ডিম দেওয়ার পরিপূর্ণ সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়া যায়, তাহলে ২০০ গ্রামের একটি ইলিশ মাছ থেকে প্রায় দেড় লাখ ইলিশের বাচ্চা পাওয়া যাবে। পদ্মা নদীর ইলিশ নিয়ে গবেষণা করে দেখা গিয়েছে ১৪০০ গ্রামের একটি ইলিশ যদি ডিম দেওয়ার সুযোগ পায়, তাহলে প্রায় ১৬ লাখ ইলিশের বাচ্চা হবে। যদি আর্থিক লাভের কথা চিন্তা করা হয় তাহলে একটি মাত্র ইলিশ থেকে ৭৬ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা আয় হবে।’

২ বছরের গবেষণার ফসল এই চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট

ইলিশসহ সামুদ্রিক মাছ নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই গবেষণা করছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. ইয়ামিন হোসেন। সম্প্রতি তাঁর গবেষণা রিপোর্টে এই তথ্য তুলে ধরেছেন। আর বিচার করে দেখতে গেলে কথাটি ভুল নয় মোটেও। গবেষণা না করলেও আম জনতা জানে, ইলিশের প্রচুর পরিমাণ ডিমের কথা। ওই গবেষক ইলিশের সঠিক প্রজনন সময় নির্ধারণ, বংশ বৃদ্ধির পরিবেশ সৃষ্টি এবং সংরক্ষণ নিয়ে তার মূল গবেষণাটি করেছেন। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের আর্থিক সহযোগিতায় টানা দুই বছর ইলিশ সংরক্ষণ নিয়ে একটি প্রজেক্টের আওতায় গবেষণা করেছেন তিনি।

সুযোগ করে দিন, সুযোগ করে নিন

গবেষণা রিপোর্টে বলা হয়েছে, মা ইলিশদের যদি ডিম দেওয়ার পরিপূর্ণ সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়া যায়, তাহলে ১৪০০ গ্রামের একটি ইলিশ থেকে ১৬ লাখ ইলিশের বাচ্চা পাওয়া যাবে। এটা শুধু ইলিশের ক্ষেত্রেই সম্ভব। যদি আর্থিক লাভের কথা চিন্তা করি তাহলে একটি মাত্র ইলিশ থেকে ৭৬ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা আয় হবে।

আর ছোট মাছ নয়, ইলিশেই ফিরুক ভাগ্য

তাই গর্ভবতী ইলিশ নিয়ে এসে তা পুকুরে ছেড়ে, সঠিক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ডিম ফুটিয়ে বাচ্চা করা যায়, তাহলেই কেল্লা ফতে। কি প্রস্তুতি নেবেন নাকি ! যে কেউ পরিকল্পনা করে এই সুযোগ নিতে পারেন। আর যারা মাছের চাষ করেন, তাঁরা তো প্রস্তুতি নেওয়াই আছে। াতাহলে আর ছোটখাটো মাছে সময় নষ্ট কেন ? এক মরশুম ইলিশ চাষ করে দেখুনই না। বলা তো যায় না। ভাগ্যলক্ষ্মী আপনার দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে কি না !

 

 
; ; ;