scorecardresearch
 

সিরাজের আমলের দুর্গামন্দির তৈরি করেন ইংরেজরা, এখনও আসে নীলকণ্ঠ পাখি

নবাব সিরাজ-উদ-দৌলার আমলে তৈরি ইংরেজদের প্রতিষ্ঠিত দুর্গামন্দিরে ঠিক কবে থেকে পুজো শুরু হয়, তা জানা যায়নি। পুজোর চারদিন এখনও আসে নীলকণ্ঠ পাখি। জৌলুস কমলেও ঐতিহ্য রয়েছে দে-বাড়ির পুজোর।

দুর্গাপুজো দুর্গাপুজো
হাইলাইটস
  • নবাব সিরাজের আমলে তৈরি হয় মন্দির
  • মন্দির তৈরি করান ইংরেজ বণিকরা
  • পুজোর চারদিন এসে বসে নীলকণ্ঠ পাখি

তখনও পলাশীর যুদ্ধ হয়নি। বাংলার মসনদে আসীন নবাব সিরাজদৌল্লা ৷ সপ্তমীর শেষ মুহূর্তে শোনা গেল কামানের গর্জন ৷ আশেপাশের সমস্ত গ্রামের লোকজন বুঝে গেলেন, সন্ধিপুজো শুরু হতে চলেছে ৷ এভাবেই দে-পরিবারের দুর্গাপুজো বৈঁচিগ্রামে প্রসিদ্ধি পেয়েছিল ৷

বলছিলেন সত্যেন্দ্রনাথ দে

মালদা জেলা পরিষদের অবসরপ্রাপ্ত কর্মী, ৭৩ বছরের সত্যেনবাবু দে পরিবারের বর্তমান পুরুষ ৷ জানালেন, ৭ পুরুষ আগে তাঁর পূর্বপুরুষ কাশীনাথ দে বৈঁচিগ্রামে এই পুজোর প্রবর্তন করেন ৷ সেখানেই ছিল তাঁর জমিদারি ৷ এই পুজোর বয়স ঠিক কত বছর, তার হিসেব নেই তাঁদের কাছে ৷ তবে সিরাজদৌল্লার রাজত্বকালের হিসেব ধরলে পুজোর বয়স ৩৫০ বছর পেরিয়ে গিয়েছে ৷ কিন্তু বৈঁচিগ্রামে এই পুজো বেশিদিন থাকেনি ৷

ডাকাতদের উৎপাতে জমিদারির জায়গা বদল

সেই সময় সেখানে ডাকাতদের উৎপাত শুরু হয় ৷ ডাকাতদের হাত থেকে সম্পত্তি রক্ষা করতে পূর্বপুরুষরা বৈঁচিগ্রামের জমিদারি বিক্রি করে চলে যান রাজশাহী জেলার মহারাজপুরে ৷ বর্তমানে সেই গ্রামটি বাংলাদেশে ৷ সেখানে ফের জমিদারির পত্তন হয় ৷ দেশভাগের সময় বাংলাদেশ থেকে তাঁরা মালদা শহরের বাঁশবাড়ি এলাকায় চলে আসেন ৷ গত ৬৭ বছর ধরে এখানেই তাঁদের পারিবারিক পুজো হয়ে আসছে ৷ শুরুর পর থেকে একবারের জন্যও তাঁদের পুজো বন্ধ হয়নি ৷ তবে শুধু পুজোর ৪ দিন নয়, তাঁদের পরিবারে বছরের ৩৬৫ দিনই দুর্গার নিত্যপুজো হয় ৷

ইংরেজদের তৈরি নাটমন্দিরে পুজো হয়

সত্যেনবাবু জানালেন, মহারাজপুর গ্রামে ইংরেজ বণিকরা তাঁদের বাড়িতে বিশাল এক নাটমন্দির তৈরি করে দিয়েছিল ৷ এর পিছনেও রয়েছে এক কাহিনী ৷ তখন নদীপথে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এদেশে ব্যাবসা করত ৷ তাদের দুশো নৌকো গঙ্গা-পদ্মায় ঘুরে বেড়াত ৷ একবার মহারাজপুর গ্রামের পাশে পদ্মায় এমনই একটি বিশাল নৌকোর নোঙর হঠাৎ পড়ে যায় ৷ ৪ দিন, ৪ রাত সেই নৌকো পদ্মাতেই আটকে ছিল ৷ কেউ তার নোঙর ওঠাতে পারছিল না ৷

জনশ্রুতি যা বলে

তখন নৌকোর সারেংরা নৌকোতে থাকা ইংরেজ সাহেবদের বলে, তারা ঈশ্বরে বিশ্বাসী ৷ মহারাজপুর গ্রামে দে পরিবারে জাগ্রত দুর্গা রয়েছে ৷ সেখানে পুজো দিলে এই সমস্যা থেকে তারা মুক্তি পাবে ৷ সাহেবদের অনুমতি নিয়ে সারেংরা তাঁদের পরিবারের অধিষ্ঠিত দেবীকে পুজো দেয় ৷ অবাক কাণ্ড, তারপরেই আটকে যাওয়া সেই নৌকোর নোঙর উঠে যায় ৷ সেই আশ্চর্য ঘটনা দেখে সাহেবরা তাঁদের বাড়িতে যান ৷ তারা তাঁদের বাড়িতে পাকা নাটমন্দির তৈরি করার জন্য পরিবারের কর্তার কাছে অনুমতি চায় ৷ পরিবারের কর্তা বলেন, মা তো সবার ৷ তাই ইংরেজ বণিকদের এই প্রস্তাবে তাঁদের কোনও অসম্মতি নেই ৷ এরপরেই ইংরেজরা তাঁদের বাড়িতে বিশাল নাটমন্দির তৈরি করে দেয় ৷ সেই মন্দিরের কাঠামো এখনও মহারাজপুর গ্রামে গেলে দেখা যাবে ৷ 

চার ভাই মিলে চলে পুজো

বর্তমানে সত্যেনবাবু ছাড়াও এই পুজোর দায়িত্বে রয়েছেন তাঁর আরও ৪ ভাই তাপস দে, রণেন্দ্রনাথ দে, সুদীপ্তকুমার দে ও পীযুষকান্তি দে ৷ সত্যেনবাবু জানালেন, মহাপঞ্চমী থেকে তাঁদের পুজো শুরু হয় ৷ পুজোতে গঙ্গাজল ছাড়া অন্য জল ব্যবহার করা হয় না ৷ অন্নভোগ নেই ৷ একসময় সন্ধিপুজোর আগে কামান দাগা হত ৷ তাঁর বাবার আমলে বন্দুকের গুলি ছুঁড়ে শুরু হত সন্ধিপুজো ৷ কিন্তু সেই কামান কিংবা বন্দুক আর নেই ৷ এখন বাজি ফাটিয়েই সন্ধিপুজো শুরু হয় ৷

নীলকণ্ঠ পাখির কিংবদন্তী

তাঁদের পুজোয় প্রথম থেকেই নীলকণ্ঠ পাখির আবির্ভাব হয় ৷ অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, এখনও পুজোর চারদিন মায়ের কাঠামোর বিভিন্ন জায়গায় নীলকণ্ঠ পাখি উড়ে এসে বসে ৷ কিন্তু সেই পাখি কখন আসবে, তা তিনি হলফ করে বলতে পারবেন না ৷ তাই কেউ যদি তাঁর কাছে সেই পাখি দেখতে চায়, তবে তিনি তা দেখাতে পারবেন না ৷ কিন্তু নীলকণ্ঠ দেখার প্রতিজ্ঞা নিয়ে কেউ তাঁদের পুজো দেখতে এলে তিনি সেই পাখি অবশ্যই দেখতে পাবেন ৷

আগের জৌলুস আর নেই

 এতদিন অনেক কষ্টের মধ্যেও নিজেদের পারিবারিক প্রাচীন এই দুর্গাপুজোকে ধরে রেখেছেন তাঁরা ৷ কালের সঙ্গে পুজোর জৌলুস অনেকটাই কমেছে ৷ জানেন না, আর কতদিন মা তাঁদের কাছে পুজো নেবেন ৷ কিন্তু পুজোর জৌলুস কমলেও ভক্তি, শ্রদ্ধা, আচারের কোনও খামতি এখনও তাঁরা হতে দেননি ৷ শুধু তাঁদেরই নয়, একই অবস্থা তাঁদের মতো অনেক কৌলিক পুজোরই ৷