scorecardresearch
 

East Bengal Club:'আগে চুক্তি সই, তারপর দল গঠন,' ইস্টবেঙ্গলকে জানালেন ইমামি কর্তা

চুক্তি সই করার পরেই শুরু হবে দল গঠনের কাজ এমনটা জানিয়ে দিলেন আদিত্য। তিনি বলেন,''আমরা কিন্তু স্পন্সর হিসেবে আসিনি। ইনভেস্টর হিসেবে এসেছি। আপনি কি বলেন? চুক্তি সই না করে ইনভেস্ট করা উচিত।  আমিও তাই বলছি।  ইস্টবেঙ্গলকে আমরা চুক্তির খসড়া পাঠিয়েছি।  ওদের পাঠান চিঠিও পেয়েছি। উত্তর দিয়েছি।  পুরোটাই এখন ক্লাবের হাতে। আইনজীবিরা দেখছেন।'' 

ইস্টবেঙ্গল ক্লাব ইস্টবেঙ্গল ক্লাব
হাইলাইটস
  • চুক্তি জটে ইস্টবেঙ্গল
  • সই করতে হবে ক্লাবকে

কবে কাটবে ইস্টবেঙ্গলের  চুক্তি জট? ঠিক কোন জায়গায় আটকে রয়েছে ইস্টবেঙ্গল ও ইমামির গাঁটছড়া বাঁধার প্রক্রিয়া? দল গঠন কী ভাবে হবে? এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর খুঁজে বেড়াচ্ছেন ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা। ক্লাব কর্তাদের বক্তব্য, তাঁরা চুক্তির ড্রাফট হাতে পেয়েছেন তা নিয়ে আইনজীবিদের সঙ্গে কথা বলছেন। তবে দল গঠনের কাজ শুরু করে দেওয়া হোক। এমনটাই চাইছেন ক্লাব কর্তারা। এই মর্মে ইনভেস্টরকে চিঠিও দিয়েছেন তাঁরা। তবে কী ভাবছেন ইমামি কর্তারা? আজতক বাংলার সঙ্গে ফোনে কথা বললেন ইমামির অন্যতম কর্তা আদিত্য আগরওয়াল।  

চুক্তি সই করার পরেই শুরু হবে দল গঠনের কাজ এমনটা জানিয়ে দিলেন আদিত্য। তিনি বলেন,''আমরা কিন্তু স্পন্সর হিসেবে আসিনি। ইনভেস্টর হিসেবে এসেছি। আপনি কি বলেন? চুক্তি সই না করে ইনভেস্ট করা উচিত।  আমিও তাই বলছি।  ইস্টবেঙ্গলকে আমরা চুক্তির খসড়া পাঠিয়েছি। ওদের পাঠান চিঠিও পেয়েছি। উত্তর দিয়েছি।  পুরোটাই এখন ক্লাবের হাতে। আইনজীবিরা দেখছেন।'' 

শেয়ার নিয়েও নিয়েও আলোচনা চলছে। এমনটাই জানালেন আদিত্য। তিনি বলেন, ''আশা করছি সব কিছুই ইতিবাচক হবে।  চুক্তি সই হলেই আমরা কোম্পানি গঠন হবে।  সেই কোম্পানির মাধ্যমে দলগঠন হবে।'' 

আরও পড়ুন: সুনীলদের জন্য জ্যোতিষী নিয়োগ AIFF-এর, ১৬ লক্ষ টাকা খরচ!

ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের কার্যকরী কমিটি বৈঠকের পরে যতই চুক্তি প্রক্রিয়া এভং দলগঠন সমান্তরালভাবে  চলার কথা বলুক না কেন তাতে লগ্নিকারী ইমামী গোষ্ঠী আমল দিচ্ছে না তা বোঝা যাচ্ছে। ইস্টবেঙ্গলের শীর্ষকর্তা দেবব্রত সরকার জানিয়েছেন তাদের আইনজীবিরা চুক্তির খুটিনাটি দেখছে।  তারপর তাঁরাও স্বাক্ষরের বিষয়টি সম্পন্ন করবেন। গত দুই মরশুমে আইএসএলের মঞ্চে ইস্টবেঙ্গলের ফলাফল একেবারেই ভাল নয়। নতুন মরশুমে প্রতিটি টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়ার কথা লাল হলুদ শীর্ষকর্তা বলেছেন। দলগঠনের প্রক্রিয়া প্রিকন্ট্যাক্টের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল। তবে চুক্তি সই করতে সময় লাগায় তা থমকে গিয়েছে। ইতিমধ্যে লগ্নিকারী তাদের অবস্থান স্পষ্ট করেছে। এখন দেখার কবে চুক্তিপত্রে সই করেন কর্তারা।