scorecardresearch
 

৪ বলে ৪ উইকেট! বাংলার মাসুম মনে করালেন লাসিথ মালিঙ্গাকে

এনসি চ্যাটার্জি ট্রফিতে গতকাল হাওড়া ইউনিয়নের বিরুদ্ধে মোহনলাল ক্লাবের হয়ে খেলতে নেমেছিলেন মাসুম আহমেদ। সেই ম্যাচে তিনি চার বলে চারটে উইকেট শিকার করেন। একে তো হ্যাটট্রিক, তার উপর একটা উইকেট ফাউ!

লাসিথ মালিঙ্গা এবং মাসুম আহমেদ লাসিথ মালিঙ্গা এবং মাসুম আহমেদ
হাইলাইটস
  • চার বলে চারটে উইকেট শিকার করেন মাসুম আহমেদ
  • এনসি চ্যাটার্জি ট্রফিতে গতকাল এই কাণ্ড ঘটে
  • মোহললাল ক্লাব হেরে গেলেও মাসুমের পারফরম্যান্স সকলেরই নজর কেড়েছে

এনসি চ্যাটার্জি ট্রফিতে গতকাল হাওড়া ইউনিয়নের বিরুদ্ধে মোহনলাল ক্লাবের হয়ে খেলতে নেমেছিলেন মাসুম আহমেদ। সেই ম্যাচে তিনি চার বলে চারটে উইকেট শিকার করেন। একে তো হ্যাটট্রিক, তার উপর একটা উইকেট ফাউ!

প্রথম ইনিংসের শেষ ওভারে হাওড়া ইউনিয়নের দু'জন থিতু হয়ে যাওয়া ব্যাটসম্যান আবদুল হাদি (৩২) এবং দীপ্তনারায়ণ আদককে (৩৮) তিনি প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। পরের দুটো ডেলিভারিতে সৈকত পাঁজা এবং দীপায়ন রাহাকেও আউট করে দেন। তাঁরা অবশ্য রানের খাতা খুলতে পারেননি। অবশেষে সাত উইকেট হারিয়ে ১৬০ রান তোলে হাওড়া ইউনিয়ন।

ইতিপূর্বে দলকে প্রথম ব্রেক থ্রু'টা দেন সেই মাসুমই। তাঁর বলে ১৭ রানে আউট হয়ে ফিরে যান মহম্মদ শেহনাওয়াজ়। এছাড়া তিনি একটা ওভার মেইডেনও নিয়েছেন। মাত্র চার ওভারে ১৩ রান দিয়ে তিনি পাঁচটি উইকেট শিকার করলেন।

তবে এই ম্যাচে হেরে যায় মোহনলাল ক্লাব। কারণ হাওড়া ইউনিয়নের হয়ে দুর্ধর্ষ বোলিং করেন শ্রী গণেশন এবং দীপ্ত নারায়ণ। তাঁরা দুজনেই তিনটে করে উইকেট শিকার করেছেন। 

তবে মোহললাল ক্লাব হেরে গেলেও মাসুমের পারফরম্যান্স সকলেরই নজর কেড়েছে। আর সেকারণেই তাঁকে ম্যান অফ দ্য ম্যাচের পুরস্কার দেওয়া হয়।

ঘরোয়া নয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও এমন দুই বোলার রয়েছেন যাঁরা চার বলে চারটে উইকেট শিকার করেছেন। তাঁরা হলেন শ্রীলঙ্কার পেসার লাসিথ মালিঙ্গা এবং আফগানিস্তানের অফ স্পিনার রশিদ খান।

মালিঙ্গার চার বলে চার উইকেট

২০০৭ সালে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কা মাত্র ২০৯ রান করেছিল। ৪৪ ওভার পর্যন্ত প্রোটিয়া ব্রিগেডের ব্যাটিং বেশ ভালোই এগোচ্ছিল। দায়িত্ব নিয়ে রান তাড়া করছিলেন জ্যাক কালিস। 

এরপর আসে মালিঙ্গার সেই স্মরণীয় স্পেল, যা দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং ব্রিগেডকে একেবারে তছনছ করে দেয়। ৪৫ ওভারের শেষ দুটো বলে মালিঙ্গা শন পোলক এবং অ্যান্ড্রু হল উইকেট শিকার করেন। এরপর ৪৭ ওভারের প্রথম দুটো বলেই তিনি কালিস এবং মাখায়া এনতিনির উইকেট শিকার করেন।

তবে মালিঙ্কার এই কৃতিত্বের পরেও দক্ষিণ আফ্রিকা শ্রীলঙ্কাকে এক উইকেটে হারিয়ে দেন। মালিঙ্গার বোলিং পরিসংখ্যান ছিল ৯.২-০-৫৪-৪।

রশিদ খানের চার বলে চার উইকেট

বর্তমানে টি-২০ ক্রিকেটে অন্যতম সেরা বোলার হলেন রশিদ খান। সম্প্রতি তিনি যথেষ্ট ভালো ফর্মের মধ্যে দিয়ে এগোচ্ছেন। তো, এই রশিদ খানও একবার চার বলে চারটে উইকেট শিকার করেছিলেন।

গত বছরের শুরুর দিকে আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে তৃতীয় টি-২০ ম্যাচ খেলতে নেমেছিল আফগানিস্তান। এই ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে আফগান ব্রিগেড। মহম্মদ নবির ৩৬ বলে ৮১ রানের ধামাকাদার ইনিংসের দৌলতে ২০ ওভারে ২১০ রান তুলেছিল আফগানিস্তান।

জবাবে আয়ারল্যান্ডও শুরুটা খারাপ করেনি। কেভিন ও'ব্রায়ান এবং অ্যান্ড্রু বলবার্নি দ্বিতীয় উইকেটে ৯৬ রান যোগ করেন। তবে রশিদ খানের ডেলিভারি গোটা ম্য়াচের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। 

১৬ ওভারের শেষ বলে তিনি কেভিন ও'ব্রায়ানের উইকেটটা তুলে নেন। সেটা আয়ারল্যান্ডের আত্মবিশ্বাসে কিছুটা হলেও প্রভাব ফেলেছিল। ১৮ ওভারে বল করতে এসে রশিদ পরপর তিনটে বলে জর্জ ডকরেল, শেষ গেটকেট এবং সিমি সিংয়ের উইকেট তুলে নেন।

টি-২০ ক্রিকেটে প্রথম এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্বিতীয় বোলার হিসেবে রশিদ নাম লেখালেন যিনি চার বলে চারট উইকেট শিকার করেছেন। এই ধাক্কা আয়ারল্য়ান্ড আর সামলাতে পারেনি এবং ২০ ওভারে ১৭৮ রানে তারা অলআউট হয়ে যায়। হারতে হয় ৩২ রানে।

ওই ম্যাচে রশি০ ৪ ওভারে ২৭ রান দিয়ে পাঁচটা উইকেট শিকার করেছিলেন।