scorecardresearch
 

India VS Australia U-19 WC Final: U19 ক্রিকেট বিশ্বকাপ ফাইনালেও অজিদের কাছে হার, কোথায় সমস্যা? ৫ বড় কারণ

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ টিম ইন্ডিয়ার। রোহিত শর্মারাও বিশ্বকাপ ফাইনালে অজিদের কাছেই হেরে গিয়েছিলেন। আর এবার যুব দলের হারও হল অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধেই। ফাইনালে ভারতকে ২৫৪ রানের টার্গেট দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। টুর্নামেন্টের ফাইনালে আজ পর্যন্ত কোনো দলই এত বড় স্কোর করতে পারেনি। এমন পরিস্থিতিতে এই চাপে ভেঙে পড়ে ভারতীয় দল। লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে টিম ইন্ডিয়া ৪৩.৫ ওভারে ১৭৪ রানে শেষ হয়ে যায় টিম ইন্ডিয়ার ইনিংস। এমন পরিস্থিতিতে জেনে নেওয়া যাক ফাইনালে টিম ইন্ডিয়ার কোথায় ভুল হল। তবে ঠিক কোন কোন কারণে হেরে যেতে হল সচিন ধাসদের?

Advertisement
ইন্ডিয়া অনূর্ধ্ব-১৯ দল (@গেটি ইমেজ) ইন্ডিয়া অনূর্ধ্ব-১৯ দল (@গেটি ইমেজ)

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ টিম ইন্ডিয়ার। রোহিত শর্মারাও বিশ্বকাপ ফাইনালে অজিদের কাছেই হেরে গিয়েছিলেন। আর এবার যুব দলের হারও হল অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধেই। ফাইনালে ভারতকে ২৫৪ রানের টার্গেট দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। টুর্নামেন্টের ফাইনালে আজ পর্যন্ত কোনো দলই এত বড় স্কোর করতে পারেনি। এমন পরিস্থিতিতে এই চাপে ভেঙে পড়ে ভারতীয় দল। লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে টিম ইন্ডিয়া ৪৩.৫ ওভারে ১৭৪ রানে শেষ হয়ে যায় টিম ইন্ডিয়ার ইনিংস। এমন পরিস্থিতিতে জেনে নেওয়া যাক ফাইনালে টিম ইন্ডিয়ার কোথায় ভুল হল। তবে ঠিক কোন কোন কারণে হেরে যেতে হল সচিন ধাসদের?

ভাল শুরু করলেও অজিদের আটকে রাখতে ব্যর্থ ভারত
ভারতের বিপক্ষে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় অস্ট্রেলিয়া। রাজ লিম্বানির বলে স্যাম কোনাটস দ্রুত বোল্ড হন। মাত্র ১৬ রানে প্রথম উইকেট হারালেও পরে জুটি গড়ে তোলেন হ্যারি ডিক্সন এবং হিউ উইবগেন। দ্বিতীয় উইকেটে ৭৮ রানের জুটি গড়ে ওঠে। অস্ট্রেলিয়ার এই জুটি রানের গতি বাড়াতে না পারলেও, উইকেটে টিকে ছিলেন। যার কারণে টিম ইন্ডিয়ার বোলাররা ভাল শুরুর সুবিধা নিতে পারেনি। 

রাজ লিম্বানি ছাড়া কেউই ভাল বল করতে পারেননি
রাজ লিম্বানি ছাড়া বোলিংয়ে ভারতের পক্ষে আর কেউই সেভাবে প্রভাব ফেলতে পারেননি। লিম্বানি সময়ে সময়ে টিম ইন্ডিয়াকে উইকেট এনে দিলেও তাই লাভ হয়নি। মোট তিন উইকেট তুলে নেন তিনি। সৌম্য পান্ডে এবং নমন তিওয়ারির মতো বোলাররা পুরোপুরি ব্যর্থ। ফলে অস্ট্রেলিয়া দল ২৫৩ স্কোর করে। 

আরও পড়ুন

ফাইনালে চাপে ছিলেন মুশির
অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ফাইনালে ফর্মে থাকা মুশির খানকে বেশ নার্ভাস বলে মনে হয়েছে। টুর্নামেন্টে দুটি সেঞ্চুরি করা সত্ত্বেও তাড়াহুড়ো করে শট খেলতে গিয়ে তিনি আউট হন। দুইবার মুশির জীবন পেলেও লাভ হয়নি। উইকেট বাঁচিয়ে টিম ইন্ডিয়ার ইনিংস সামলানো উচিত ছিল তাঁর। তবে, তিনি তা করেননি এবং নিজের উইকেট হারিয়ে টিম ইন্ডিয়াকে হারের দিকে ঠেলে দেন। 

Advertisement

ওপেনার আদর্শের স্লথ ব্যাটিং

ভারতীয় দলের হয়ে ওপেন করতে নেমেছিলেন আদর্শ সিং। তাঁর সঙ্গে ওপেন করতে মাঠে আসা আরশিন কুলকার্নি তাড়াতাড়ি আউট হলেও, মুশির খানের সঙ্গে একটি ছোট জুটি গড়েন আদর্শ। কিন্তু তাঁর স্ট্রাইকরেট একেবারেই ভাল ছিল না। মুশিরও হাত খুলতে পারেননি। ফলে আদর্শের উচিত ছিল দ্রুত গতিতে ব্যাটিং করে অস্ট্রেলিয়ান বোলারদের উপর পাল্টা চাপ সৃষ্টি করার চেষ্টা করা, কারণ তিনি শুরু থেকেই ক্রিজে ছিলেন। আদর্শ এটা করতে পারলে অন্য ব্যাটাররা সুযোগ পেতে পারে। ৭৭ বলে ৪৭ রান করে আউট হন আদর্শ।


মিডল অর্ডারের ব্যর্থতা
মিডল অর্ডার ব্যাটিং, ভারতীয় দলের অন্যতম শক্তিশালী দিক। ফাইনালে শোচনীয়ভাবে হারতে হয় ভারতীয় দলকে। অধিনায়ক উদয় সাহারান এবং চার মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানও দুই অঙ্ক পার করতে পারেননি। উদয় করেন ৮ রান। শচীন ধস এবং প্রিয়াংশু মোলিয়া ৯ রান করেন এবং আরভেলি অবিনাশ ০ রানেই আউট হন। মিডল অর্ডারের পারফরম্যান্সের অভাবও টিম ইন্ডিয়ার পরাজয়ের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।


 

Advertisement