scorecardresearch
 

করোনার মধ্য়েও অটুট প্রেম, প্রেমিকাকে ফিরে পেতে ধরণায় প্রেমিক

করোনার মধ্য়েও অটুট প্রেম। পুরনো প্রেমিককে ফিরে পেতে ধরণায় বসলো যুবক। রীতিমতো নিজের অন্তরের বার্তা ও আকুতিকে পোস্টারে লিখে এনে টাঙিয়ে দিলেন প্রেমিকার বাড়ির মূলিবাঁশের বেড়ায়।

প্রেমিকের অপেক্ষায় ধরণায় প্রেমিক প্রেমিকের অপেক্ষায় ধরণায় প্রেমিক
হাইলাইটস
  • করোনাকে উপেক্ষা করে ধরণায় প্রেমিক
  • প্রেমিকার বিয়েতে আপত্তি প্রেমিকের
  • এক মাস ধরে যোগাযোগ নেই, তাই মন খারাপ

করোনার মধ্য়েও অটুট প্রেম। পুরনো প্রেমিককে ফিরে পেতে ধরণায় বসলো যুবক। রীতিমতো নিজের অন্তরের বার্তা ও আকুতিকে পোস্টারে লিখে এনে টাঙিয়ে দিলেন প্রেমিকার বাড়ির মূলিবাঁশের বেড়ায়।

করোনা পরিস্থিতিতে হেলায় উপেক্ষা প্রেমিকের

কোভিড সতর্কতা দেশজুড়ে। আংশিক লকডাউন শুরু হয়েছে রাজ্যে। প্রাণ বাঁচাতে মানুষের নাভিশ্বাস অবস্থা। সেখানে ও সমস্ত কিছু পরোয়া না করে প্রেমের টানে প্রেমিকার বাড়ির সামনে করুণা ভিক্ষায় বসলো প্রাক্তন প্রেমিক। মালদা জুড়ে ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

চর্চার কেন্দ্র এখন ব্যথিত প্রেমিক

ওই প্রেমিককে ঘিরে এখন সোস্যাল সাইট থেকে পাড়ার চায়ের ঠেক উত্তাল হয়ে উঠেছে। কেউ বলছেন, প্রেমিককে ধরে করোনা রোগীর সঙ্গে রাখা হোক, কেউ আবার এমন পরিস্থিতিতেও কোনও কিছুকে তোয়াক্কা না করে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ প্রেমিককে বিশেষ পুরস্কারে পুরস্কৃত করার দাবিও জানিয়েছেন। কারও দাবি এ সময় এমন বেয়াদপি বরদাস্ত করা উচিত নয় মোটেই। প্রশাসন কড়া ব্যবস্থা নিক। কেউ আবার মনে করছেন প্রেমিকার সঙ্গেই তাঁর বিয়ে পাকা করার বন্দোবস্ত করা হোক। মোট কথা, করোনায় প্রতিদিন আক্রান্তের ও মৃত্যুর মিছিলের মধ্যে মনোরঞ্জনের খোরাক এখন মালদার এই নাছোড় প্রেমিকই।

ধরণার অকুস্থল

এদিন মালদার বামনগোলার পাকুয়াহাট অঞ্চলের কামারডাঙা গ্রামের ঘটনা ৷ বামনগোলার পাকুয়াহাটের মির্জাপুরের বাসিন্দা সঞ্জয় মণ্ডলের ধরণার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ৷ তবে তাঁকে নিরস্ত করার জন্য দুপুর পর্যন্ত ঘটনাস্থলে কোনও প্রশাসনিক আধিকারিক কিংবা পুলিশকর্মীর দেখা মেলেনি ৷ ফলে এলাকার উত্তাপ ও এলাকাবাসীর কৌতুহলের মাত্রা বাড়িয়ে প্রেমিক বাবাজি দিব্য অবস্থান করছেন নিজের জায়গায়।

প্রেমিকের বায়োডাটা


শনিবার তিনি ওই এলাকার কামারডাঙা গ্রামে প্রেমিকা মমতা দাসের বাড়ি থেকে ১০০ মিটার দূরে ধরণায় বসেছেন ৷ তাঁর দাবি, গত আট বছর ধরে তাঁর সঙ্গে মমতার প্রেমের সম্পর্ক ছিল ৷ তাঁরা বিয়ে করবেন বলেও ঠিক হয়েছিল। এর মধ্যে  এক মাস আগে তাঁর সঙ্গে মমতা আচমকা সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করে দেন। এক মাস ধরে মমতা তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেননি ৷ তিনি যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাতে কাজ হয়নি। এরপর তিনি খোঁজ খবর শুরু করেন। জানতে পারেন, মমতার বিয়ে ঠিক হয়েছে৷ এরপরই তিনি নিজেকে ঠিক রাখতে পারেননি বলে দাবি করেছেন। তাই তিনি প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে বাড়িতে যান৷  কিন্তু বাড়িতে কারও দেখা না মেলায় তিনি প্রেমিকার বাড়ির সামনে ধরণায় বসেছেন৷

প্রেমিকের দাবি

যতক্ষণ পর্যন্ত না প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করবেন, তাঁর সঙ্গে কথা বলবেন, প্রেমিকাকে বিয়েতে নিরস্ত করে তাঁর সঙ্গে ফের সম্পর্ক জুড়বেন ততক্ষণ পর্যন্ত তিনি সেখান থেকে নড়বেন না।