scorecardresearch
 

বোলপুরে অন্তঃসত্ত্বা বধূকে ছাদ থেকে ফেলে খুনের অভিযোগ শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে

পারিবারিক অশান্তির জেরে বাড়ির ছাদ থেকে ফেলে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ফেলে খুন করার অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

ফাইল ছবি ফাইল ছবি
হাইলাইটস
  • ছাদ থেকে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ
  • অন্তসত্ত্বা ছিলেন ওই গৃহবধূ
  • তদন্তে নেমেছে পুলিশ
  • পলাতক স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোক

বাড়ির ছাদ থেকে ফেলে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ফেলে খুন করার অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। জলজ্যান্ত ও প্রাণবন্ত এক যুবতীর এভাবে মৃত্যুতে হতভম্ব এলাকার বাসিন্দারা।

পালিয়ে গিয়েছে শ্বশুরবাড়ির লোক

ছাদ থেকে পড়ার পর  গুরুতর জখম অবস্থায় ওই বধূকে বোলপুর হাসপাতালে ভর্তি করান শ্বশুরবাড়ির লোকেরাই। তারপরই পালিয়ে যান তারা। তাতেই সন্দেহ দানা বেঁধেছে। মৃতার বাপের বাড়ির অভিযোগের ভিত্তিতে গোটা ঘটনায় তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

ছাদ থেকে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ

পুলিশ জানিয়েছে মৃতার নাম বীণা খাতুন (২৪)। এক বছর আগে বর্ধমান জেলার কেতুগ্রাম থানার কাটারি গ্রামের বীণার সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল বীরভূমের পাড়ুই থানার কেন্দ্রডাঙ্গাল গ্রামের গোফুর শেখের ৷ ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিল ওই গৃহবধূ। অভিযোগ, পারিবারিক অশান্তির জেরে তিন তলা বাড়ির ছাদ থেকে অন্তঃসত্ত্বা মহিলাকে ফেলে দেয় শ্বশুর বাড়ির লোকজন। হাত-পা ভেঙে গুরুত্বর জখম হয়। পরে শ্বশুরবাড়ির লোকজনই তাকে বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করে। ভর্তির পরেই চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করে ৷ এরপরই স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন মৃতদেহ ফেলে রেখেই পালিয়ে যায়৷ 

খুনই করা হয়েছে দাবি মৃতার মাসি, কাকার

খবর পেয়ে মৃতার পরিবারের লোকজন আসে হাসপাতালে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য রাখা হয়েছে ৷ মৃতার মাসি রনিজা খাতুন বলেন, "আমাদের জানানো হয় পড়ে গিয়েছে ৷ কিন্তু, ছাদ থেকে ফেলে মেরে দিয়েছে বলেই আমাদের বিশ্বাস ৷ তারপর হাসপাতালে ভর্তি করে পালিয়ে গিয়েছে। আমরা এর বিচার চাই।" মৃতার কাকা আব্দুর সুকুর বলেন, "আমাদের ফোন ধরছে না শ্বশুরবাড়ি লোকেরা৷ ওরাই ছাদ থেকে ফেলে অন্তঃসত্ত্বাকে মেরে দিয়েছে ৷ দোষীদের শাস্তি চাই আমরা।