scorecardresearch
 
 

বাংলার পঞ্চায়েত ভোট পাখির চোখ, ঘর গোছাচ্ছে AAP

আপ (AAP)-এর দাবি ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি জেলায় ভাল সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে তৈরি করা হয়ে গিয়েছে জেলা কমিটি। এমন জেলার সংখ্যা ১৬।

আপ প্রধান, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল আপ প্রধান, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল
হাইলাইটস
  • বাংলার পঞ্চায়েত ভোটকে পাখির চোখ করছে আদমি পার্টি (আপ)
  • আর তাই ঘর গোছানোর কাজ শুরু করল দল
  • সংগঠন তৈরি ওপর আরও জোর দেওয়া হয়েছে

বাংলার পঞ্চায়েত ভোটকে পাখির চোখ করছে আদমি পার্টি (আপ বা AAP)। আর তাই ঘর গোছানোর কাজ শুরু করল দল। সংগঠন তৈরি ওপর আরও জোর দেওয়া হয়েছে। তৈরি করা হচ্ছে বিভিন্ন জেলার কমিটি।

আপ (AAP)-এর দাবি ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি জেলায় ভাল সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে তৈরি করা হয়ে গিয়েছে জেলা কমিটি। এমন জেলার সংখ্যা ১৬। সেখানে জেলা ইনচার্জও রয়েছেন। ইনচার্জই হল সংশ্লিষ্ট জেলার সভাপতি।

কলকাতা, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বীরভূম, হাওড়া, হুগলি, নদিয়া, মালদা-সহ আরও কয়েকটি জেলায় আপ (AAP)-এর ইনচার্জ রয়েছেন। বাকি জেলাতেও দলের সংগঠন আরও পাকা করার কাজ করা হচ্ছে।

মুর্শিদাবাদ, উত্তর ২৪ পরগণায় ভাল সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। সেখানে ইনচার্জ দেওয়া যায়নি। তবে পর্যবেক্ষক রয়েছেন। আপ (AAP)-এর দাবি, খুব শিগগিরি সেখানে ইনচার্জ পদে কাউকে আনা যাবে।

দলের তরফ থেকে ১৮ জুন পর্যন্ত যে যে জেলার সভাপতির নাম ঘোষণা করা হয়েছে, সেগুলি হল- নদিয়ায় জর্জ গোমস, বীরভূম বিশ্বদ্বীপ মৈত্র, পশ্চিম মেদিনীপুরে ডঃ সৌরভ ঘোষ, মালদা অনিমেষ সাহা, জলপাইগুড়ি আনন্দকুমার রায়, পুরুলিয়া অর্পণ রায়, এবং বাঁকুড়ায় সুশোভন বিশ্বাস।

সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষকে দলে শামিল করার চেষ্টা করা হচ্ছে আপ (AAP)-এ। তাই জেলা কমিটি গঠন করা হচ্ছে সে কথা মাথায় রেখে। জেলার কমিটিতে মহিলা, যুব, তপশীলি জাতি-উপজাতি, সংখ্যালঘুদের মতো সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের জন্য আলাদা শাখা রয়েছে।

শুক্রবার সুশোভন বিশ্বাস জানান, কিছুদিন আগে রাষ্ট্রনির্মাণ অভিযানের ডাক দেওয়া হয়েছিল। ঠিক হয়েছে, ওই কর্মসূচির মাধ্যমে সংগঠন তৈরির কাজ হবে। সে কাজ করা হচ্ছে।

কী ভাবে কাজ করছেন তাঁরা
আপ (AAP)-এর দাবি, ২১ জেলায় হেল্পলাইন নম্বর চালু হয়েছে। কোভিড সংক্রান্ত বিষয়ে মানুষকে সাহায্য করেছে। বিধানসভা ভিত্তিক সংগঠনে তৈরি হচ্ছে। এরপর বুথ ইন-চার্জ পর্যন্ত তৈরি করা হবে। দিল্লিতে আপ কী কাজ কাজ করতে পেরেছে, তা তুলে ধরা হচ্ছে।

আপ-এর পক্ষে সুশোভন বিশ্বাস জানান, একুশের ভোটে লড়ার শক্তি ছিল না। তাই ডাক দেওয়া হয়েছিল, বিজেপি বাদে যে জায়গায় যে শক্তিশালী তাকে জেতানো হোক।

তিনি জানান, দিল্লিতে যা যা কাজ হয়েছে, সেগুলি বলছি। দুর্নীতিমুক্ত দেশ, রাজ্য গড়ার কথা বলছি। ইতিবাচক জিনিস নিয়ে যাচ্ছি।