scorecardresearch
 

ধর্ষণের চেষ্টার পর খুনের হুমকি, ময়নাগুড়িতে গায়ে আগুন নাবালিকার

খুনের হুমকি সইতে না পেরে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা নাবালিকার। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে নিয়ে যাওয়া হোল উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। নাবালিকার বাড়ি জলপাইগুড়ির ময়নাগুড়ির ধর্মপুর এলাকায়।

প্রতীকী ছবি প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • খুনের হুমকি সইতে না পেরে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা নাবালিকার
  • আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে নিয়ে যাওয়া হোল উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে
  • নাবালিকার বাড়ি জলপাইগুড়ির ময়নাগুড়ির ধর্মপুর এলাকায়

খুনের হুমকি সইতে না পেরে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা  নাবালিকার। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে  নিয়ে যাওয়া হোল উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। নাবালিকার বাড়ি  জলপাইগুড়ির  ময়নাগুড়ির ধর্মপুর এলাকায়। জানা যাচ্ছে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি নাবালিকা বাড়িতে একাই ছিল। অভিযোগ বাড়ি ফাঁকা থাকার সুযোগ নিয়ে সেদিন স্থানীয় এক যুবক তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। তার জামাকাপড় ছিড়ে দেওয়া হয়। এমনকি তার গোপনাঙ্গে পর্যন্ত হাত দেয়। এরপর নাবালিকা চিৎকার করলে অভিযুক্ত যুবক পালিয়ে যায়। অভিযুক্ত যুবকের দাদা স্থানীয় তৃণমূল নেতা বলে খবর। 

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত যুবক উধাও ছিল। এদিকে নাবালিকা পরিবার ময়নাগুড়ি থানার দারস্থ হয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। এর কিছুদিন পর অভিযুক্ত আদালত থেকে জামিন নেয়। নাবালিকার পরিবারের অভিযোগ,  বুধবার  দুপুরে দুই যুবক তাদের বাড়িতে মুখ ঢেকে আসে। সেই সময় ওই নির্যাতিতা একাই বাড়িতে ছিল। নাবালিকাকে ওই যুবকের বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগ প্রত্যাহার করে নিতে বলা হয়।  আরও বলা হয়,  যদি অভিযোগ তুলে না নেওয়া হয় তবে  বাড়ির সকলকে খুন করা হবে। সেই কথা বৃহস্পতিবার  সকালে নাবালিকা বাড়ির সকলকে খুলে বলে। এরপর  দুপুরে বাড়িতে গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে মেয়েটি।  প্রথমে  তাকে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া  হয়। সেখান থেকে তাকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে স্থানান্তরিত করা হয়।

ঘটনায় তৃনমূলকে কাঠগড়ায় তুলে বিজেপির জলপাইগুড়ি জেলা সভাপতি বাপী গোস্বামী বলেন,  গোটা রাজ্যে যা হচ্ছে এখানেও ঠিক তাই হোলো। এক মাসের বেশি সময় ধরে পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করলোনা। উল্টে এই অভিযুক্ত তৃনমূল নেতাদের ছত্র ছায়ায় থেকে গেলো বলে অভিযোগ করেন বাপী গোস্বামী। তাঁর কথায়, 'এই সরকারের কাছে কিছু চেয়ে কোনও লাভ নেই। এখানে প্রশাসন বলে কিছু নেই। অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শান্তি দিতে হবে।'

এদিকে  ময়নাগুড়ির ঘটনায় বিজয় রায় নামে এক অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে  জানিয়েছেন এস পি।  পাশাপাশি ময়নাগুড়ির ব্রহ্মপুর কান্ডে দোষীদের শাস্তি চাইলেন তৃণমূলের ব্লক সভাপতি শিবশঙ্কর দত্ত। এনিয়ে বৃহস্পতিবার রাতে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ময়নাগুড়ি ২ নং ব্লক তৃণমূল সভাপতি শিবশঙ্কর দত্ত দোষীদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। পাশাপাশি নিগৃহীতার পরিবারের পাশে থাকার কথা বলেছেন।