scorecardresearch
 
 

সোয়াব টেস্ট করতে লাগবে ওটিপি, ভুয়া রিপোর্ট রুখতে বন্দোবস্ত শিলিগুড়িতে

শিলিগুড়িতে ভুয়া রিপোর্টের চক্র ভাঙতে এবার ওটিপি পরিষেবা চালু করতে যাচ্ছে বৈধ ল্যাবগুলি। ল্যাবের এজেন্টরা রোগীদের বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করতে গেলে সেক্ষেত্রে গ্রাহকের ফোনে আসা ওটিপি প্রদান করতে হবে। সঠিক ওটিপি দিলেই তবেই পরিষেবা মিলবে।

বৈঠকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্য়াল কলেজ কর্তৃপক্ষ বৈঠকে উত্তরবঙ্গ মেডিক্য়াল কলেজ কর্তৃপক্ষ
হাইলাইটস
  • ওটিপি ছাড়া রিপোর্ট নয়, সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য কর্তাদের
  • বৈধ ল্যাবের ডাটাবেস তৈরি হচ্ছে
  • শিলিগুড়িতে ICMR অনুমোদিত তিনটি ল্যাব রয়েছে

ওটিপি ছাড়া রিপোর্ট নেবেন না

শিলিগুড়িতে ভুয়া রিপোর্টের চক্র ভাঙতে এবার ওটিপি পরিষেবা চালু করতে যাচ্ছে বৈধ ল্যাবগুলি। ল্যাবের এজেন্টরা রোগীদের বাড়ি গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করতে গেলে সেক্ষেত্রে গ্রাহকের ফোনে আসা ওটিপি প্রদান করতে হবে। সঠিক ওটিপি দিলেই তবেই পরিষেবা মিলবে।

বৃহস্পতিবার বৈঠকে সিদ্ধান্ত

বৃহস্পতিবার পুলিশ ও ল্যাবগুলির সঙ্গে বৈঠকের পর এমনই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানালেন  উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডিন সন্দীপ সেনগুপ্ত। তিনি বলেন, যারা ভুয়া ল্যাবের ভুয়া রিপোর্ট রোগীদের সরবরাহ করছে, তাদের ইতিমধ্যে চিহ্নিত করা হয়েছে। দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তাদের কালো তালিকাভুক্ত করার প্রক্রিয়া ষশুরু হয়েছে।

ভুয়া ল্যাব রুখতে পদক্ষেপ

করোনার সুযোগে শিলিগুড়ি শহর জুড়ে গজিয়ে উঠেছে ভুঁইফোঁড় বিভিন্ন ল্যাব। যেখানে ফোন করলেই মিলবে পরিষেবা। অর্থাৎ বাড়ি এসে সেই ল্যাবের এজেন্টরা নমুনা সংগ্রহ করে রিপোর্ট পৌঁছে দেবেন বাড়িতে। তবে এতে যেমন শহরবাসী সুবিধে হচ্ছে, তেমনই বিপাকে পড়ছে বহু মানুষ। শিলিগুড়িতে গজিয়ে উঠেছে ভুয়া ল্যাব। যার কারণে চিন্তায় কপালে ভাঁজ পড়েছে চিকিৎসক মহলে।

রিপোর্ট আছে, ল্যাব নেই

সম্প্রতি বেশ কয়েকদিন আগে বিশাল দত্ত নামে এক যুবকে ভুয়া করোনা রিপোর্ট সরবরাহ করার অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরে নড়েচড়ে বসেছে পুলিশ প্রশাসন। শিলিগুড়ি শহরের বেশ কয়েকটি জায়গায় দেখা যাচ্ছে যে কোম্পানির নাম রয়েছে, রিপোর্ট রয়েছে, কিন্তু ল্যাব নেই। এই সমস্ত ভুতুড়ে ল্যাবের পর্দা ফাঁস করতে তৎপর শিলিগুড়ি পুলিশ কমিশনারেট সহ জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর।

অসাধু ল্যাবের ডেটাবেস তৈরি হচ্ছে

এই ভুতুড়ে ল্যাবের অসাধু ব্যবসায়ী বন্ধ করতে ইতিমধ্যেই তথ্য সংগ্রহ করা হয়ছে। দার্জিলিং জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক এর সহযোগিতায় এই রেজিস্টার্ড ল্যাবের ডেটাবেস তৈরি করা হবে। শুধু তাই নয়, পাশাপাশি একটি বা দুটি করে কন্টাক্ট নম্বর নথিভুক্ত থাকবে। যেখানে মানুষ তাদের প্রয়োজনে ফোন করবেন। আগামী দিনে শহরের মানুষের সুবিধার কথা মাথায় রেখেও ওটিপি পরিষেবা চালু করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

শিলিগুড়িতে ICMR অনুমোদিত তিনটি ল্যাব রয়েছে

My doctor's নামে একটি সংগঠন রয়েছে চিকিৎসক,ল্যাব ও টেকনিশিয়ানদের নিয়ে। এই সংগঠনের তরফে তৈরি করা হচ্ছে একটি অ্যাপ।এই অ্যাপে শিলিগুড়ির সমস্ত ল্যাবের তথ্য থাকবে এবং সেখান থেকেই শহরবাসী তার প্রয়োজনে পরীক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবেন। জানা গিয়েছে করোনার পরীক্ষার জন্য এই মুহূর্তে শিলিগুড়িতে ICMR অনুমতি তিনটি ল্যাব রয়েছে। 

ডিনের সতর্কবার্তা

সন্দীপ সেনগুপ্ত বলেন, মানুষ প্রতারিত হচ্ছে। কারন তার যে অসুখ সেই অসুখের জন্য রক্তের নমুনা সংগ্রহ করার পরেও তা কোন রকম ভাবে পরীক্ষায় না হয়ে। শুধুমাত্র সাক্ষরের মাধ্যমে একটি ভূয়ো রিপোর্ট সরবরাহ করা হলো এই ব্যাপারটি যথেষ্ট বিপদজনক। সে ক্ষেত্রে ঘটতে পারে চিকিৎসা-বিভ্রাটে। তিনি আরও বলেন, শুধু শিলিগুড়ি নয় শিলিগুড়ি শিলিগুড়ি এর পার্শ্ববর্তী জেলাগুলিতেও এমন ভূয়ো ল্যাব তৈরি হয়েছে সে খবরও আমাদের কাছে আসছে সে কারণেই জনসাধারণকে সচেতন করব। পুলিশের তরফ থেকে যৌথভাবে জনসাধারণকে সচেতন করা হবে। যাতে জনসাধারণ বুঝতে পারেন কিভাবে তারা প্রতারিত হচ্ছেন।

পুলিশ ও অ্যাসোসিয়েশনের দাবি

অ্যাসোসিয়েশন অফ ল্যাবরেটরি কনসালটেন্ট অফ নর্থ বেঙ্গলের সম্পাদক ডাক্তার কল্যাণ খাঁ বলেন, যে কোনও ল্যাবের কর্মী বাড়িতে এলে তার পরিচয় পত্রটিকে সঠিক ভাবে যাচাই করে ল্যাবের ফোন নাম্বারে ফোন করে কনফার্ম করুন। অন্যদিকে এই প্রসঙ্গে শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসিপি কুঁয়র ভূষণ সিং বলেন, করোনা পরীক্ষা করাতে হলে আইসিএমআর অনুমোদিত ল্যাবরেটরি থেকে করানো উচিত। ওই ল্যাবে স্যাম্পল নেওয়া হলে তার একটি মেসেজ রেজিস্টার মোবাইল নাম্বারে আসে। এছাড়াও পুলিশের তরফে শহরবাসীকে ভুয়ো ল্যাবের বিরুদ্ধে সচেতন করতে লাগাতার প্রচার অভিযান চালানো হবে।