scorecardresearch
 
 

'শার্দূলসুন্দরী' : অসম থেকে বাংলায় আসছে ২০টি রয়্যাল বেঙ্গল

হঠাৎ কে, কখন, কালে ভদ্রে একটা বাঘ দেখতে পেলেন, তা নিয়ে হইচই শুরু হয়ে যায়। উত্তরবঙ্গে এক সময় বক্সা থেকে মহানন্দা ওয়াইল্ডলাইফ কিংবা বৈকুণ্ঠপুর জঙ্গলে রয়্যাল বেঙ্গলের দেখা মিললেও অধুনা এ সমস্ত জঙ্গলে বাঘ প্রায় নেই বললেই চলে। শুধুমাত্র বক্সা আর নেওড়া জঙ্গলে রয়্যাল বেঙ্গলের আনাগোণা রয়েছে। তবে কটা সে নিয়েও বিস্তর জলঘোলা করেও সঠিক তথ্য মেলেনি। রয়্যাল বেঙ্গলের ছবি তুলে দিতে পারলে ঘোষণা করা হয়েছে পুরস্কারও। তবু দু-চার বছরে এক আধবার দর্শন মেলে তেনাদের। তবে এবার আক্ষেপ সুদে আসলে মিটিয়ে দিতে চলেছে রাজ্য বন দফতর।

ফাইল ছবি ফাইল ছবি
হাইলাইটস
  • ২০ টি রয়্যাল বেঙ্গল আসছে রাজ্যে
  • বক্সাতে থাকবে অতিথি শার্দুল সুন্দরীরা
  • পরে আ্ররও বাঘ আনার পরিকল্পনা

হঠাৎ কে, কখন, কালে ভদ্রে একটা বাঘ দেখতে পেলেন, তা নিয়ে হইচই শুরু হয়ে যায়। উত্তরবঙ্গে এক সময় বক্সা থেকে মহানন্দা ওয়াইল্ডলাইফ কিংবা বৈকুণ্ঠপুর জঙ্গলে রয়্যাল বেঙ্গলের দেখা মিললেও অধুনা এ সমস্ত জঙ্গলে বাঘ প্রায় নেই বললেই চলে। শুধুমাত্র বক্সা আর নেওড়া জঙ্গলে রয়্যাল বেঙ্গলের আনাগোণা রয়েছে। তবে কটা সে নিয়েও বিস্তর জলঘোলা করেও সঠিক তথ্য মেলেনি। রয়্যাল বেঙ্গলের ছবি তুলে দিতে পারলে ঘোষণা করা হয়েছে পুরস্কারও। তবু দু-চার বছরে এক আধবার দর্শন মেলে তেনাদের। তবে এবার আক্ষেপ সুদে আসলে মিটিয়ে দিতে চলেছে রাজ্য বন দফতর।

রয়্যাল ফ্য়ামিলিতে সদস্য় বৃদ্ধি

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই এ রাজ্যে আসছে কুড়িটি বাঘ। এ রাজ্যের বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে এবং ভারসাম্য বজায় রাখতেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গিয়েছে। খুব শিগগিরই রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারগুলি চলে আসবে বলে জানা গিয়েছে।

বন দফতরের বার্তা

বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক জানিয়েছেন, বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধির চেষ্টা করা হচ্ছে। অসমে রয়্যাল বেঙ্গলের সংখ্যা বেশি হওয়ায় তাদের কাছে বাঘ চাওয়া হচ্ছে। 

বক্সাতেই হবে আপাতত ঠিকানা

বাঘগুলিকে আলিপুরদুয়ারের বক্সা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কেন্দ্রে রাখা হবে। সেখানে রেখেই উত্তরবঙ্গের জঙ্গলের প্রকৃতির সঙ্গে তাদের খাপ খাওয়ানো হবে। বন দপ্তর এর ভাষা অনুযায়ী চলবে ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম। যদি উত্তরবঙ্গের জঙ্গলের সঙ্গে অসমের জঙ্গলের খুব একটা প্রকৃতিগত পার্থক্য নেই, তবু জঙ্গলের পরিবেশ এবং গাছের ঘনত্বের কিছুটা হেরফের রয়েছে। আলিপুরদুয়ারের বক্সা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কেন্দ্র বাঘের স্থায়ী আস্তানা হিসেবে বিগত কয়েক দশক ধরে ভালো কাজ করে চলেছে।

স্থায়ী প্রজনন কেন্দ্র তৈরির ভাবনা

বক্সার জঙ্গলে স্থায়ীভাবে প্রজননকেন্দ্র তৈরি করার চিন্তা ভাবনা চালাচ্ছে বনদপ্তর। বিশেষ করে কোনও এলাকায় বাঘের জন্য যদি একটি প্রজনন কেন্দ্র তৈরি করা যায় তাহলে তা আখেরে লাভদায়ক হবে। উত্তরবঙ্গের একমাত্র এই জঙ্গলে বাঘ বসবাসের পরিবেশ রয়েছে বলে দাবি বনকর্তাদের।

প্রচুর পরিমাণ বুনো শুয়োর, হরিণ, সম্বর, গাউর রয়েছে

এই এলাকাতে বাঘেদের স্বাভাবিক খাদ্য-খাদক অনুপাত সঠিকভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে বলে বনদপ্তরের আধিকারিকরা মনে করছেন। হরিণ,জংলি শুয়োর প্রচুর পরিমাণে রয়েছে এই জঙ্গলে। বিশেষ করে গত এক দেড় বছরে পর্যটক আনাগোনা কম হওয়ায় এবং মুভমেন্ট কমে যাওয়ায় সংখ্যা বেড়েছে। বিশেষ করে হরিণ এর সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

রয়্যাল এলেই ষোলকলা পূর্ণ হবে

বক্সার এই কুড়িটি বাঘ আনার পর সেগুলির ওরিয়েন্টেশন ঠিকঠাক হলে নেওড়া ভ্যালি জঙ্গলের জন্য আরও কয়েকটি বাঘ নিয়ে আসা হবে। এই মুহূর্তে রাজ্যের বিভিন্ন জঙ্গলে হাতির সংখ্যা বেড়েছে। বেড়েছে হরিণের সংখ্যাও। গরুমারা, জলদাপাড়া মিলিয়ে পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে গণ্ডার রয়েছে। চিতাবাঘ রয়েছে অগুনতি। কিন্তু সেই অনুপাতে সংখ্যা কম রয়্যাল বেঙ্গলের। তবে যে সমস্ত এলাকায় এরা বসবাস করে সেখানে চিতা ও রয়্যাল একসঙ্গে থাকতে পারে না। তবে লেপার্ড আশপাশের চা বাগান এবং অল্প জঙ্গলে বসবাস করে। কিন্তু ঘন ও নিজের পছন্দসই জঙ্গল ছাড়া রয়াল বেঙ্গল থাকে না। বক্সার এই জঙ্গলের সঙ্গেই ভুটানের জঙ্গলের সরাসরি যোগাযোগ থাকায় এলাকা অনেকটা বড়।