scorecardresearch
 

৫ লাখ ঘুষ দিয়েও চাকরি না মেলার অভিযোগ, আত্মঘাতী মেদিনীপুরের যুবক

স্কুল সার্ভিস কমিশনের চাকরির ওয়েটিং লিস্টে নাম ছিল। প্রায় পাঁচ-ছ বছর ধরে চেষ্টা করেও চাকরি মেলেনি। কিন্তু চাকরির জন্য মরিয়া ছিলেন। দিয়েছিলেন পাঁচ লক্ষ টাকাও। কিন্তু চাকরি হয়নি। ধার-দেনা বাড়ছিল। শেষমেশ অবসাদের কাছে শেষ পর্যন্ত হার মানলেন বছর আঠাশের যুবক। বিষ খেয়ে আত্মঘাতী হলেন।

ssc ssc
হাইলাইটস
  • স্কুল সার্ভিস কমিশনের চাকরির ওয়েটিং লিস্টে নাম ছিল।
  • প্রায় পাঁচ-ছ বছর ধরে চেষ্টা করেও চাকরি মেলেনি।
  • কিন্তু চাকরির জন্য মরিয়া ছিলেন।

স্কুল সার্ভিস কমিশনের চাকরির ওয়েটিং লিস্টে নাম ছিল। প্রায় পাঁচ-ছ বছর ধরে চেষ্টা করেও চাকরি মেলেনি। কিন্তু চাকরির জন্য মরিয়া ছিলেন। দিয়েছিলেন পাঁচ লক্ষ টাকাও। কিন্তু চাকরি হয়নি। ধার-দেনা বাড়ছিল। শেষমেশ অবসাদের কাছে শেষ পর্যন্ত হার মানলেন বছর আঠাশের যুবক। বিষ খেয়ে আত্মঘাতী হলেন।

টেট উত্তীর্ণদের দুর্নীতি নিয়ে উত্তাল বাংলা। মামলা-মোকদ্দমাও বিস্তর হচ্ছে। চাকরি না পেয়ে আগেও আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। আবার পাশাপাশি অনেকেই বছরের পর বছর কলকাতার রাজপথে চাকরির আশায় ধর্নায়। অপেক্ষায়। দিনের পর দিন। কিন্তু আত্মহত্যা করলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুরের বুরালি গ্রামের বাসিন্দা তপল দোলই (২৮)। পুলিশ জানিয়েছে, বিষ খেয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন তপন। রবিবার তাঁর দেহের ময়নাতদন্ত করা হবে।

মৃত যুবকের দিদি বিজলী দোলই জানিয়েছেন, ইংরেজিতে এমএ এবং বিএড করেছে তপন। এসএসসি পরীক্ষা ভাল দিলেও ওয়েটিং লিস্টে নাম ছিল। টাকা দিলে চাকরি হবে, এই আশ্বাস পেয়ে পাঁচ লক্ষ টাকাও দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু কাকে টাকা দিয়েছিলেন তপন, তা বলতে পারেনি মৃতের পরিবার।

মৃতের দাদা সুকুমারের বক্তব্য, ঋণ নিয়ে পাঁচ লাখ টাকা দিয়েছিল তপন। কিন্তু তারপরেও চাকরি মেলেনি। এদিকে ঋণের বোঝা বাড়ছিল। সংসার চালাতে চাষবাস করত, টিউশন পড়াত তপন। তার অবসাদ ক্রমেই বাড়ছিল। তপন বিষ খেয়েছে জানতে পেরেই তড়িঘড়ি তাঁকে মেদিনীপুরের একটি নার্সিংহোমে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করা হয়। আজ, শনিবার বিকেলে সেখানেই মৃত্যু হয় তপনের। 

আরও পড়ুন : ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রধান-উপপ্রধান ও অঞ্চল সভাপতির ইস্তফা, কড়া নির্দেশ অভিষেকের