scorecardresearch
 

Pakistan Election Results 2024: পাকিস্তানের কুর্সি দখলে জোর আলোচনা, কোন দল ঠিক কোথায় দাঁড়িয়ে?

পাকিস্তানে নতুন সরকার গঠন নিয়ে সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তা রয়েছে। কোনও দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। ইমরানের দল দাবি করেছে যে তারা জাতীয় পরিষদে ১৭০টি আসন জিতেছে। তাই প্রেসিডেন্ট পিটিআইকে সরকার গঠনের জন্য আমন্ত্রণ জানাবেন।

Advertisement
পাকিস্তান নির্বাচনের ফল পাকিস্তান নির্বাচনের ফল
হাইলাইটস
  • পাকিস্তানে নতুন সরকার গঠন নিয়ে সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তা রয়েছে
  • কোনও দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি

পাকিস্তানে নতুন সরকার গঠন নিয়ে সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তা রয়েছে। কোনও দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। ইমরানের দল দাবি করেছে যে তারা জাতীয় পরিষদে ১৭০টি আসন জিতেছে। তাই প্রেসিডেন্ট পিটিআইকে সরকার গঠনের জন্য আমন্ত্রণ জানাবেন। অন্যদিকে নওয়াজ শরিফও সরকার গঠনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে নওয়াজ শরিফের দলকে সমর্থনের ঘোষণা দিয়েছেন তিন নির্বাচিত নির্দল সাংসদ। পিপিপির বিলাওয়াল ভুট্টো বলেছেন, সরকার নিয়ে পিএমএলএন-এর সঙ্গে কোনও কথা হয়নি। কিন্তু তার দাবি নিয়েই প্রশ্ন উঠছে।

জারদারি ও শেহবাজ শরিফ বৈঠক করেছেন

এদিকে, নওয়াজ শরিফের দল পিএমএলএন নেতা মরিয়ম আওরঙ্গজেব ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেছেন, 'শেহবাজ শরিফ এবং আসিফ জারদারির মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়েছে। এ বৈঠকে চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত না হলেও আরও কথা বলার বিষয়ে একমত হয়েছে। আসিফ জারদারি অবশ্যই তাঁর দলের সঙ্গে পরামর্শ করবেন। নির্বাচন প্রক্রিয়ায় নির্দল প্রার্থীদের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আমরা প্রত্যেকের রায় স্বীকার করি। আজ একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হওয়ার কথা, নেতৃত্ব যা সিদ্ধান্ত নেবে তাই হবে। সবচেয়ে বড় দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ (এন। তাই পিটিআইয়ের নির্দল প্রার্থীদের সঙ্গে কথা বলার কোনও ইচ্ছা নেই।'

আরও পড়ুন

MQM-P শরিফকে সমর্থন করার ইঙ্গিত

ইতিমধ্যে, MQM-P প্রতিনিধিদল PML-N-এর আমন্ত্রণে লাহোরে পৌঁছেছে ভোট-পরবর্তী কৌশল নিয়ে আলোচনা করতে। এমকিউএম-র ১৭ জন সদস্য নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন, যার পরে তাদের ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। পিএমএল-এন সুপ্রিমো নওয়াজ শরিফ পিডিএম জোটের আদলে জাতীয় ঐক্য সরকার গঠনের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। এ জন্য তিনি তাঁর ভাই সাবেক প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন সরকার গঠনের জন্য অন্যান্য দলের সঙ্গে আলোচনা শুরু করার জন্য।

শেহবাজ শরিফ একটি সভা করছেন

Advertisement

এদিকে, শেহবাজ শরিফ মডেল টাউনে একটি দলীয় সভায় সভাপতিত্ব করেন এবং সমস্ত রাজনৈতিক দলকে পাকিস্তানের জন্য ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, 'আমরা জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করব। নতুন সরকারের উদ্দেশ্য হবে জনগণকে অর্থনৈতিক স্বস্তি দেওয়া। বৈঠকে, কেন্দ্রে সরকার গঠনের বিষয়ে অন্যান্য দলের সঙ্গে পিএমএল-এন-এর যোগাযোগের তথ্য দেওয়া হয়েছিল। বৈঠকে ইসলামাবাদ ও লাহোরে সরকার গঠনের বিভিন্ন বিকল্প নিয়েও আলোচনা হয়।'

পিপিপি নীরবতা পালন করলেও পিটিআই এবং পিএমএল নেতারা সরকার গঠনের বিষয়ে অনেক বিবৃতি দিচ্ছেন, পিপিপি এখনও তাদের কার্ড প্রকাশ করেনি। এর নেতারা নীরবতা পালন করছেন। দলের নেতারা শনিবার ডনকে বলেছেন যে তারা এটা জেনে বিস্মিত হয়েছেন যে তারা কেন্দ্রে পিএমএল-এন-এর নেতৃত্বাধীন জোট সরকারে যোগদানের জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত। যদিও এখনও এমন কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। এখনও পর্যন্ত দলের মধ্যেও এ নিয়ে আলোচনা হয়নি বলে দাবি করেন তিনি। পিপিপি চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো-জারদারি ডনকে বলেন, 'আমরা কেন্দ্রে ভবিষ্যতের কোনও অংশীদারিত্ব বা জোট সরকারের বিষয়ে কথা বলিনি।'

ইমরানের দলও প্রস্তুতি নিয়েছে

এআরওয়াই নিউজের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)ও সরকার গঠনের দাবি আদায়ের প্রস্তুতি শুরু করেছে। পিটিআই কোর কমিটির বৈঠকে ব্যারিস্টার উমায়ের নিয়াজীকে সরকার গঠনের জন্য জাতীয় পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ইসলামাবাদে পিটিআই-এর কোর কমিটির একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে বৈঠকের সদস্যরা সরকার গঠন সংক্রান্ত কৌশল নিয়ে আলোচনা করেন। বৈঠকের সদস্যরা সরকার গঠনের জন্য জাতীয় পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য অনেক নেতাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। খাইবার পাখতুনখোয়ায়, আলি আমিন গান্দাপুর প্রদেশে নবনির্বাচিত প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগের জন্য দায়ী থাকবেন। মিয়া আসলাম ইকবাল পাঞ্জাবে নবনির্বাচিত সদস্যদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। কমিটি নির্বাচনের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির ওপর জোর দেয় এবং গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার জন্য বিশ্বব্যাপী সমর্থনকে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে।

এতগুলো আসনের ফলাফল ঘোষণা

পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে এখনও পর্যন্ত ২৫৭টি আসনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে পিটিআই সমর্থিত নির্দলরা জিতেছে ১০২টি আসনে। নওয়াজের দল পেয়েছে ৭৩টি আসন এবং পিপিপি পেয়েছে ৫৪টি আসন। এমকিউএম পেয়েছে ১৭টি আসন। ছোট দলগুলো জিতেছে ১১টি আসনে। এখন মাত্র ৭টি আসনের ফলাফল আসতে বাকি আছে।

Advertisement