scorecardresearch
 
 

Coronil Kit : নেপালে বিক্রি বন্ধ রামদেবের করোনিল কিটের, কেন?

পতঞ্জলি (Patanjali) যোগপীঠ নেপাল ভারত থেকে ১০০ কার্টন করোনিল কিট (Coronil Kit) আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। নেপালে করোনা সংক্রমণ বাড়ছিল।

যোগগুরু বাবা বামদেব যোগগুরু বাবা বামদেব
হাইলাইটস
  • নেপালে রামদেবের সংস্থা পতঞ্জলির করোনিল কিট বিক্রি এবং বিতরণ নিষিদ্ধ হয়েছে
  • এ নিয়ে স্বাস্থ্য দফতর একটি বিষয় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে
  • তা হল, তারা ততক্ষণ তা বিক্রির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেনি, যতক্ষণ সেটি নেপাল সরকারের নিয়ম মেনে সংশ্লিষ্ট বিভাগে নথিভুক্ত হয়ে যায়

নেপালে রামদেব (Ramdev)-এর সংস্থা পতঞ্জলি (Patanjali)-র করোনিল কিট (Coronil Kit) বিক্রি এবং বিতরণ নিষিদ্ধ হয়েছে। এ নিয়ে স্বাস্থ্য দফতর একটি বিষয় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে। তা হল, তারা ততক্ষণ তা বিক্রির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেনি, যতক্ষণ সেটি নেপাল সরকারের নিয়ম মেনে সংশ্লিষ্ট বিভাগে নথিভুক্ত হয়ে যায়।

ঘটনা হল, পতঞ্জলি (Patanjali) যোগপীঠ নেপাল ভারত থেকে ১০০ কার্টন করোনিল কিট (Coronil Kit) আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। নেপালে করোনা সংক্রমণ বাড়ছিল। আর তাদের সাহায্যে করতে সরকার সেগুলি উপহার হিসেবে দিয়েছিল।

৩১ মে সেগুলি দেওয়া হয়েছিল। পতঞ্জলি (Patanjali) যোগপীঠ নেপালের অছি পরিষদের প্রধান শালিগ্রাম সিংহ নেপালের তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী হৃদয়েশ ত্রিপাঠীকে ১,৫০০ করোনিল (Coronil Kit) দিয়েছিলেন। সেগুলি উপহার হিসেবে দেওয়া হয়েছিল।

স্বাস্থ্যমন্ত্রক সেগুলি তুলে দিয়েছিল আয়ুর্বেদ বিভাগে। নেপালে আয়ুর্বেদ আইসোলেশন সেন্টার চলছিল। বলা হয়েছিল, সেখানে থাকা চিকিৎসকদের পরামর্শ মেনে সেগুলি ব্যবহার করতে হবে।

আয়ুর্বেদ বিভাগের মহাসচিব ডাঃ বাসুদেব উপাধ্য়ায় জানিয়েছেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রক থেকে করোনিল কিট পাওয়া গিয়েছিল। আর তা ব্যবহার করার জন্য কিছু সময়ের জন্য বিরত থাকা হয়েছিল।

তিনি আরও জানিয়েছেন, করোনিল কিট (Coronil Kit) এখনও নেপালের ওষুধ সংক্রান্ত বিভাগের প্রক্রিয়া শেষ করতে পারেনি। যখনই সে সংক্রান্ত অনুমতি পাওয়া যাবে, তখনই তা ব্য়বহারের অনুমতি দিয়ে দেওয়া হবে।

এদিকে, যোগগুরু রামদেবকে চিঠি লিখে ক্ষমা চাইতে বললেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। দিন কয়েক আগে তিনি ওই চিঠি লিখেছেন। তাঁর মন্তব্যে জন্য ক্ষমা চাইতে বলেছেন। রামদেবের মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। তাঁর মন্তব্যের বিরোধিতা করছে ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (আইএমএ)।

তবে রামদেব নিজের মন্তব্য ফিরিয়ে নিয়েছেন। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন চিঠি দিয়েছেন। এ ব্যাপারে তিনি একটি টুইট করেছেন। আশা করা হচ্ছে, এর ফলে বিতর্কের শেষ হবে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন বলেছেন, ভারতের অতুলনীয় স্বাস্থ্যকর্মীরা করোনার বিরুদ্ধে লড়ছেন। দিন নেই, রাত নেই, তাঁরা পরিশ্রম করে চলেছেন দেশের মানুষের জন্য।

তিনি আরও বলেছেন, রামদেবের বক্তব্য দেশের মানুষের আবেগকে অপমান করেছে। 'কোভিড যোদ্ধা'দের অসম্মান করায় দেশের মানুষের আবেগকে ধাক্কা দেওয়া হয়েছে।

ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধনের এই অবস্থানকে স্বাগত জানিয়েছে। তিনি পরিস্থিতি বুঝেছেন বলে তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়েছে চিকিৎসকদের ওই সংগঠন। তারা বলেছে, রামদেবের মন্তব্যের জন্য চিকিৎসক সমাজে রাগ এবং ব্যথা তৈরির বিষয়টি বুঝতে পারার জন্য মন্ত্রীকে ধন্যবাদ।