scorecardresearch
 

Sreelekha Mitra: 'কুকুরের বাচ্চার জন্য জান দিতে পারি, নিতেও পারি', লাইভে শ্রীলেখা

জুরিখের কফিশপে বসে রবিবার বিকেলে সোশাল মিডিয়া লাইভে এসে নিজস্ব ভঙ্গিতে সকল সমালোচনা এবং সমালোচকদের মাঠের বাইরে পাঠালেন শ্রীলেখা। একহাত নিলেন তথাকথিত রেড ভলান্টিয়ার্স এবং সিপিএমের সমর্থকদেরও।

শ্রীলেখা মিত্র শ্রীলেখা মিত্র
হাইলাইটস
  • আমি রেড ভলান্টিয়ার্সদের ছোট করিনি।
  • আমি শশাঙ্ককে বলেছি, সে রেড ভলান্টিয়ার্সদের নামে কলঙ্ক।
  • এর মানেটা কি ভেঙে বলে দিতে হবে?

গত কয়েক দিন ধরেই সোশাল মিডিয়ায় তাঁকে নিয়ে কুমন্তব্য এবং মিমে ভরে গিয়েছে। কিন্তু তা নিয়ে বিন্দুমাত্র ভাবিত নন শ্রীলেখা মিত্র (Sreelekha Mitra)। জুরিখের কফিশপে বসে রবিবার বিকেলে সোশাল মিডিয়া লাইভে এসে নিজস্ব ভঙ্গিতে সকল সমালোচনা এবং সমালোচকদের মাঠের বাইরে পাঠালেন শ্রীলেখা। একহাত নিলেন তথাকথিত রেড ভলান্টিয়ার্স এবং সিপিএমের সমর্থকদেরও।

শ্রীলেখা বলেন, 'আমি রেড ভলান্টিয়ার্সদের ছোট করিনি। বাংলা ভাষা বোঝার জন্য দাস ক্যাপিটাল পড়ার প্রয়োজন নেই। আমি শশাঙ্ককে বলেছি, সে রেড ভলান্টিয়ার্সদের নামে কলঙ্ক। এর মানেটা কি ভেঙে বলে দিতে হবে? ও মিথ্যে কথা বলে একটা জীবকে মৃত্যু মুখে ঠেলে দিয়েছে। ডাইরেক্ট বা ইনডাইরেক্টলি ও ওই কুকুরের বাচ্চাটির মৃত্যুর জন্য দায়ী। ওর অবহেলাতেই কুকুরটি মারা গিয়েছে। আমার ভুল হয়েছে আমি শুধুমাত্র রেড ভলান্টিয়ার বলে ওকে বিশ্বাস করেছিলাম। শ্রীলেখা মিত্র যদি ডেট করতে চায় তবে আর যাকেই হোক শশাঙ্ককে ডেট করবে না। আই হ্যাভ বেটার অপশনস।'

 

কুকুরের বাচ্চাটির মৃত্যুর ঘটনায় আয়ুশি দে এবং দময়ন্তী সেন নামে দুই People For Animals-এর দুই সদস্য শশাঙ্ককে মারধর করে বলে অভিযোগ। শ্রীলেখা জানান, তিনি তাঁদের কখনই শশাঙ্কর বাড়িতে তাঁদের পাঠাননি। তিনি বলেন, 'আমি এখনও বলছি যদি শশাঙ্ককে হাতের সামনে পেতাম তবে ২-৪টে থাবড়া অন্তত মারতাম। মেরে ফেলতাম বলেছি মানেই কী মানুষ মেরে ফেলে নাকি! আপনার বাড়ির সন্তানকে কেউ মারলে বা কোনও ক্ষতি করলে আপনারা হয়তো লিস্ট মিলিয়ে দেখে নেন কোনটা করা উচিত বা উচিত নয়। আমি তেমন নই।'

গত বুধবার শশাঙ্কর পাড়ায় গিয়ে তাঁকে মারধর করে ২ মহিলা। এই প্রসঙ্গে শশাঙ্ক অভিযোগ, "আয়ুশি দে এবং দময়ন্তী সেন নামে People For Animals-এর দুই সদস্য আমার বাড়িতে আসে এবং আমাকে সঙ্গে করে যে স্থানে কুকুরের ছানাটি মারা যায় সেই স্থান পরিদর্শন করে। এরপর আমাকে মারধর করা হয়।" মারধরের জেরে হাসপাতালে চিকিৎসাও করাতে হয় শশাঙ্ককে। ঘটনায় বেলঘড়িয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। একইসঙ্গে আইনি পথে হাঁটার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শশাঙ্ক। 

এদিকে আয়ুশি দে জানান, "শশাঙ্ক নামে ওই ভদ্রলোক মেনকা গান্ধীর সংস্থা পিপলস পর অ্যানিমাল থেকে একটি কুকুর ছানা দত্তক নেন। আমরা জানি না যে কী করে ওই কুকুরের ছানাটি মারা গিয়েছে। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই একটা উত্তেজনার সৃষ্টি হয়, ধাক্কাধাক্কি হয়। যাই হোক আমরা অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।"