scorecardresearch
 

কয়েক সপ্তাহের লকডাউনই পারে ভারতকে বাঁচাতে, মত মার্কিন বিশেষজ্ঞের

ভারতের অবস্থা ক্রমাগত নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাচ্ছে। সামনে আসছে অক্সিজেনের সংকট। এই পরিস্থিতি আটকাতে টানা কয়েক সপ্তাহ লকডাউন প্রয়োজন। মত, মহামারি সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ অ্যান্থোনি ফৌসির।

LOCKDOWN LOCKDOWN
হাইলাইটস
  • ভারতে বেড়েই চলেছে করোনার সংক্রমণ
  • এই অবস্থায় লকডাউনের পরামর্শ মার্কিন বিশেষজ্ঞের
  • তাঁর মতে, লকডাউনই পারে ভারতকে বাঁচাতে

ভারতে করোনার সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে। বাড়ছে মত্য়ুর সংখ্যাও। এই অবস্থায় কয়েক সপ্তাহের লকডাউনই একমাত্র ভারতকে বাঁচাতে পারে। কমাতে পারে সংক্রমণ। মত, আমেরিকার মহামারি সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ অ্যান্থোনি ফৌসির। 

ভারতকে পরামর্শ
একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন ভারতের অবস্থা ক্রমাগত নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাচ্ছে। সামনে আসছে অক্সিজেনের সংকট। এই পরিস্থিতি আটকাতে টানা কয়েক সপ্তাহ লকডাউন প্রয়োজন। দরকার অক্সিজেন-সহ আরও প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের পর্যাপ্ত যোগান। তাঁর আরও পরামর্শ, এই নিয়ে একটি দল গঠন করা উচিত। যারা করোনার চিকিৎসা সংক্রান্ত বিষয়ে সর্বদা সজাগ থাকবে ও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করবে। 

তাঁর কথায়, 'আমি মনে করি, ভারতে দ্রুত লকডাউন কার্যকর করা প্রয়োজন। করোনাকে হারাতে এটাই একমাত্র সঠিক পদক্ষেপ। এছাড়াও অক্সিজেনের জোগান, পিপিই ইত্যাদি পর্যাপ্তভাবে থাকা দরকার।' 

এই মতের স্বপক্ষে তাঁর যুক্তি, চিনে যখন ভারতের মতো সংক্রমণ বাড়ছিল, তখন তারা লকডাউনের পথে হেঁটেছিল। টানা ৬ মাস লকডাউন করা সম্ভব নয়। তবে কয়েক দিনের জন্য করা যেতে পারে। তাতে সংক্রমণ কমবেই। 

Fausi
ভারতকে লকডাউনের পথে হাঁটার পরামর্শ মার্কিন বিশেষজ্ঞের

কেন্দ্রের সমালোচনা 
ভারতে করোনার সংক্রমণের জন্য কেন্দ্রের সমালোচনাও করেন অ্যান্থোনি ফৌসি। তিনি বলেন, 'আমি শুনেছি, ভারতে অনেক জায়গায় সাধারণ মানুষ অক্সিজেনের সিলিন্ডার নেওয়ার জন্য রাস্তায় নেমেছে। এটা তো হওয়া উচিত নয়। সরকার আগে থেকে এগুলো কেন প্রস্তুত রাখেনি? সরকারের ব্যর্থতা এক্ষেত্রে সামনে চলে এসেছে। সংগঠিত হয়ে এর মোকাবিলা করতে হবে।' 

ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী দেশগুলির মধ্যে অন্যতম। তাহলে সেখানে ভ্যাকসিনের অভাব দেখা দিচ্ছে কেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এই মহামারি বিশেষজ্ঞ। 

ভারতের অবস্থা 
প্রসঙ্গত, গত ২৪ ঘণ্টায় চার লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে দেশের করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। গোটা বিশ্বে এই প্রথম কোনও একটি দেশে আক্রান্তের সংখ্যা এক দিনে ৪ লক্ষ ছাড়াল।গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৩ হাজার ৫২৩ জনের। একাধিক রাজ্য লকডাউন বা নাইট কারফিউ ঘোষণা করলেও সংক্রমণ কমছে না।