scorecardresearch
 
 

প্রতারণা-তোলাবাজি, এবার বরানগরে জালে ভুয়ো পুলিশ অফিসার

শহরে পুলিশের জালে আসছে একের পর এক ভুয়ো আইএএস, আইপিএস, পুলিশ অফিসার। এবার বরানগর থেকে গ্রেফতার ভুয়ো পুলিশ আধিকারিক। নিজেকে লালবাজার পুলিশের অপরাধ দমন শাখার ইন্সপেক্টর পরিচয় দিয়ে মানুষের থেকে টাকা আত্মসাৎ করত বলে অভিযোগ।

 গ্রেফতার/ প্রতীকী ছবি গ্রেফতার/ প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • বরানগর থেকে গ্রেফতার ভুয়ো পুলিশ আধিকারিক
  • নিজেকে লালবাজার পুলিশের অপরাধ দমন শাখার ইন্সপেক্টর পরিচয় দিয়ে প্রতারণা
  • ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয় দেওয়া ব্যক্তির নাম অনিরুদ্ধ দত্ত

শহরে পুলিশের জালে আসছে একের পর এক ভুয়ো আইএএস, আইপিএস, পুলিশ অফিসার। এবার বরানগর থেকে গ্রেফতার ভুয়ো পুলিশ আধিকারিক। নিজেকে লালবাজার পুলিশের অপরাধ দমন শাখার ইন্সপেক্টর পরিচয় দিয়ে মানুষের থেকে টাকা আত্মসাৎ করত বলে অভিযোগ। ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয় দেওয়া ব্যক্তির নাম অনিরুদ্ধ দত্ত। বরানগর এম.এন.কে রোড থেকে তাকে গ্রেফতার করে বরানগর থানার পুলিশ। মঙ্গলবার সকালে বরনগর থানায় অনিরুদ্ধ দত্তর নামে প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করা হয়।

সূত্রের খবর, অনিরুদ্ধ দত্ত নিজেকে লালবাজার পুলিশের অপরাধ দমন শাখার ইন্সপেক্টর বলে পরিচয় দিত।  বরানগর ময়রাডাঙ্গার বাসিন্দা রথীন মল্লিকের কাছ থেকে টাকা নেয়। খোঁজ খবর নিয়ে রথীন বাবু জানতে পারেন এই নামে কোন অফিসার লালবাজারের অপরাধ দমন শাখায় কর্মরত নেই। 

তারপর তিনি গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অনিরুদ্ধ দত্তকে গ্রেপ্তার করা হয়। অনিরুদ্ধ দত্তকে জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে যে সে নকল পরিচয় পত্র ও নকল পুলিশের ড্রেস পরে বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে টাকা তুলতো। তাকে সাত দিনের পুলিশি হেফাজত চেয়ে ব্যারাকপুর আদালতে পাঠিয়েছে বরানগর থানার পুলিশ।

গত মাসেই হেলমেট না থাকায় ট্রাফিকের মামলা করতে গিয়েই পুলিশ বলে পরিচয় দিলে গ্রেফতার হয় এক ব্যক্তি। জানা যায়, ওই ব্যক্তির নাম রাজীব চক্রবর্তী। ভুয়ো পরিচয়পত্র দেখানোয় ফাঁস হয়ে যায় আসল সত্যিই। এরপর তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।