scorecardresearch
 
 

মনুয়া কাণ্ডের ছায়া চুঁচুড়ায়! প্রেমিককে নিয়ে স্বামীকে খুনের অভিযোগ

হুগলির চুঁচুড়ায় মনুয়া কাণ্ডের ছায়া। প্রেমিকের সঙ্গে মিলে স্বামীকে খুনের অভিযোগ মহিলা ও তার প্রেমিকের বিরুদ্ধে। ঘটনা সামনে আসতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। অভিযুক্ত মহিলাকে পোষ্টে বেঁধে চলে মারধর। শেষে পুলিশ এসে ওই মহিলাকে উদ্ধার করে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

স্বামীকে খুনের অভিযোগ স্বামীকে খুনের অভিযোগ
হাইলাইটস
  • মনুয়া কাণ্ডের ছায়া চুঁচুড়ায়
  • প্রেমিককে নিয়ে স্বামীকে খুনের অভিযোগ
  • মহিলাকে মারধর স্থানীয়দের

হুগলির চুঁচুড়ায় মনুয়া কাণ্ডের ছায়া। প্রেমিকের সঙ্গে মিলে স্বামীকে খুনের অভিযোগ মহিলা ও তার প্রেমিকের বিরুদ্ধে। ঘটনা সামনে আসতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। অভিযুক্ত মহিলাকে পোষ্টে বেঁধে চলে মারধর। শেষে পুলিশ এসে ওই মহিলাকে উদ্ধার করে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

ঠিক কী অভিযোগ

মৃত যুবকের নাম শুভদ্বীপ মিস্ত্রী। তার মৃত্যুর খবর সামনে আসার পরেই ক্ষোভে ফেঁটে পড়েন এলাকাবাসীরা। জানা গিয়েছে, শুভদ্বীপের বাড়ি চুঁচুড়া থানার ২নম্বর কাপাসডাঙ্গায়। তাঁর সঙ্গে বছর তিন আগে চুঁচুড়া গোয়ালটুলির প্রিয়াঙ্কার সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাঁদের একটি পুত্র সন্তানও হয়। স্থানীয়দের অভিযোগ, সম্প্রতি ওই মহিলার সঙ্গে পাড়ারই এক যুবকের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ওই যুবকের নাম টিঙ্কু দত্ত। অভিযোগ, স্বামীর সামনেই এই সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি নিয়ে পরিবারে প্রায়ই বচসা হয়। অভিযোগ গত মঙ্গলবার প্রিয়াঙ্কা ও টিঙ্কু দুজনে ষড়যন্ত্র করে শুভদ্বীপকে ঘাস মারার বিষ খাইয়ে দেয়। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে কল্যানীর একটি হাসপাতালে মৃত্যু হয় শুভদ্বীপের। ময়নাতদন্তের পর শুক্রবার রাতে শুভদ্বীপের মৃতদেহ বাড়িতে নিয়ে আসতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এলাকাবাসীরা। তাঁরা প্রিয়াঙ্কাকে পোষ্টে বেঁধে রাখে। মারধরও করা হয়। পরে পুলিশ গিয়ে প্রিয়াঙ্কাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। যদিও যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন শুভদ্বীপের স্ত্রী।

মহিলাকে মারধর স্থানীয়দের

স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রেমিকের সঙ্গে ষড়যন্ত্র করে স্বামীকে খুন করেছে প্রিয়াঙ্কা। এদিন পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। ওই মহিলাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে মহিলার প্রেমিক। মৃতের মা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। গোটা এলাকা এখন থমথমে রয়েছে। ওই মহিলার বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন এলাকাবাসীরা।