scorecardresearch
 

67 Years Bengaluru Man Dead: পরিচারিকার সঙ্গে মিলনরত অবস্থায় বৃদ্ধের মৃত্যু, প্লাস্টিক মোড়া দেহ রাস্তায়

67 Years Bengaluru Man Dead: পরিচারিকার সঙ্গে মিলনের সময় মৃত্যু বৃদ্ধের, প্লাস্টিক-চাদরে মোড়ানো লাশ মিলল রাস্তায়। ময়নাতদন্তে জানা গেল খুন হননি ওই ব্যক্তি। তাহলে কেন ফেলে দেওয়া হল দেহ? মিলল অবাক তথ্য।

পরিচারিকার সঙ্গে মিলনরত অবস্থায় বৃদ্ধের মৃত্যু, প্লাস্টিক মোড়া দেহ রাস্তায় পরিচারিকার সঙ্গে মিলনরত অবস্থায় বৃদ্ধের মৃত্যু, প্লাস্টিক মোড়া দেহ রাস্তায়
হাইলাইটস
  • পরিচারিকার সঙ্গে মিলনের সময় মৃত্যু বৃদ্ধের
  • প্লাস্টিক-চাদরে মোড়ানো লাশ মেলে রাস্তায়
  • খোলসা হল চমকে দেওয়ার মতো

67 Years Bengaluru Man Dead: কর্ণাটকের রাজধানী বেঙ্গালুরুতে ৬৭ বছরের বয়স্ক ব্যক্তির মৃত্যু হয়ে যায়। এই ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে হয়রান করে দেওয়া একটি ঘটনা সামনে এসেছে। ওই ব্যক্তি বাড়ির পরিচারিকার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের সময় হৃদরোগে আক্রান্ত হন এবং তার মৃত্যু হয়ে যায়। পুলিশি মামলায় জড়াতে না চেয়ে মহিলাটি ওই মহিলাকে প্লাস্টিকে মুড়িয়ে মৃতদেহটি রাস্তার ধারে ফেলে দিয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ  মাথাব্যথায় জীবন দূর্বিষহ? এভাবে চটজলদি দূর করুন

১৬ নভেম্বর জেপি নগরনিবাসী বালা সুব্রাহ্মনিয়ম নিজের নাতিকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাডমিন্টন ক্লাসে ছাড়তে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন। বিকেল পাঁচটা নাগাদ তিনি তার পুত্রবধূকে ফোন করেন এবং বলেন যে তার বাড়ি ফিরতে দেরি হবে। কারণ তাঁর কোনও কাজ পড়ে গিয়েছে। এরপরে রাত পর্যন্ত না ফিরলে পুলিশ যোগাযোগের চেষ্টা করেন, কিন্তু তাঁর মোবাইল নম্বর সুইচ অফ পাওয়া যায়। অনেক রাত্রি পর্যন্ত ফেরায় ওই বৃদ্ধের ছেলে নগরে থানায় গিয়ে মিসিং ডায়েরি করেন।

অন্যদিকে পরেরদিন ১৭ নভেম্বর জেপি নগরের সিক্স ফেজের পাশে পুলিশ একটি মৃতদেহ পায়। মৃতদেহ সন্দেহজনক অবস্থায় প্লাস্টিক কভার এবং বেডশিটে জড়ানো অবস্থায় পাওয়া যায়। যাচাই করতে গেলে জানতে পারেন যে, ওই ব্যক্তি নিখোঁজ বালা সুব্রহ্মনিয়ম। যাঁর ছেলে গতকাল রাতে থানায় মিসিং ডায়রি করেছিল। ঘটনাস্থলে শণাক্তকরণ করা হয়। ময়নাতদন্তে জানা যায় যে, ব্যক্তির হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ হার্টের সমস্যা কমায় মাখন, নিয়ন্ত্রণ করে ওজনও, কীভাবে খাবেন?

এই ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়। পুলিশ অবাক হয়ে যায় যে হৃদরোগে আক্রান্তের মৃতদেহ কেন এভাবে ফেলে দেওয়া হয়েছে?  কে বা ফেলেছে? জিজ্ঞাসাবাদের সময় ৩৫ বছরের পরিচারিকা পুলিশের সামনে স্বীকার করেন যে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে সময়ে হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। পুলিশের কেসে জড়িয়ে পড়ার ভয় পেয়ে যান, তাই মৃতদেহ পলিথিন এবং চাদরে জড়িয়ে ফেলে দিয়েছিলেন। মৃতদেহ প্যাক করতে তিনি তার নিজের স্বামী এবং ভাইয়ের সাহায্য নেন। পুলিশ জানিয়েছেন যে সুব্রহ্মনিয়ম, পরিচারিকা সঙ্গে লম্বা সময় পর্যন্ত অবৈধ সম্পর্ক ছিল। যখন বাড়িতে কেউ থাকতেন না, তখন তাঁরা এই কাজ করতেন। ওই ব্যক্তি কত বছর এনজিওপ্লাস্টি সার্জারি হয়েছিল।

 

 
; ; ;