scorecardresearch
 
 

চাপে যোগী? দিল্লি গিয়ে দরবার শাহের কাছে, সময় নিলেন মোদীরও

বাংলার নির্বাচন শেষ। বড় আশা করেও স্বপ্ন সফল হয়নি গেরুয়া শিবিরের। বাংলা জয় অধরাই থেকেছে। এই আবহে আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচন দেশের সবচেয়ে বড় রাজ্যে। উত্তরপ্রদেশে ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়ে ভারতীয় জনতা পার্টি। তার অঙ্ক কষাও শুরু হয়ে গিয়েছে। বুধবারই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন রাহুল গান্ধীর তরুণ ব্রিগেডের অন্যতম সদস্য জিতিন প্রসাদ। উত্তরপ্রদেশের ব্রাহ্মণ ভোটকে নিজেদের দিকে রাখতেই জিতিনকে গেরুয়া শিবির টেনেছে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। এদিকে জিতিনের বিজেপি যোগের ২৪ ঘণ্টা পার হতে না হতেই দিল্লি গেলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

দিল্লি ছুটলেন যোগী আদিত্যনাথ দিল্লি ছুটলেন যোগী আদিত্যনাথ
হাইলাইটস
  • বুধবার বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন জিতিন প্রসাদ
  • বৃহস্পতিবার দিল্লি ছুটলেন যোগী আদিত্যনাথ
  • এদিকে আগামী বছর উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা নির্বাচন

বাংলার নির্বাচন শেষ। বড় আশা করেও স্বপ্ন সফল হয়নি গেরুয়া শিবিরের। বাংলা জয় অধরাই থেকেছে। এই আবহে আগামী বছর বিধানসভা নির্বাচন দেশের সবচেয়ে বড় রাজ্যে। উত্তরপ্রদেশে ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়ে ভারতীয় জনতা পার্টি। তার অঙ্ক কষাও শুরু হয়ে গিয়েছে। বুধবারই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন রাহুল গান্ধীর তরুণ ব্রিগেডের অন্যতম সদস্য জিতিন প্রসাদ। উত্তরপ্রদেশের ব্রাহ্মণ ভোটকে নিজেদের দিকে রাখতেই জিতিনকে গেরুয়া শিবির টেনেছে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। এদিকে জিতিনের বিজেপি যোগের ২৪ ঘণ্টা পার হতে না হতেই দিল্লি গেলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। বৃহস্পতিবার অমিত শাহ-সহ দলের একাধিক নেতার সঙ্গে দেখা করেন যোগী। শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সকাল পৌনে এগারোটায় সাক্ষাতের কথা রয়েছে তাঁর।

অদিন অমিত শাহের বাসভবনে গিয়ে দেখা করেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী। শুক্রবার ১০.৪৫ মিনিটে তাঁর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের কথা। বেলা ১২.৩০ নাগাদ যোগী দেখা করবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার সঙ্গে। এদিকে এদিন প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে হাজির হন নাড্ডা। আগামিকাল এই দুই নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন যোগী। তার আগে মোদী-নাড্ডার বৈঠক বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। শোনা যাচ্ছে বৃহস্পতিবার প্রায় দেড় ঘণ্টা অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করেন যোগী। 

যোগীর এই দিল্লি সফর বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। আগামী বছর নির্বাচন। তার আগে উত্তরপ্রদেশে যোগী সরকারের বিরুদ্ধে কোভিড নিয়ে নানা বিতর্ক তৈরি হয়েছে। বিরোধীরা তো বটেই, রাজ্য বিজেপি-র অন্দরেও যোগীর ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ দানা বেঁধেছে বলে সূত্রের খবর। এই নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সাংগঠনিক স্তরেও রিপোর্ট নিয়েছে বলে খবর। তাই যোগীর দিল্লি সফর গুরুত্বপূর্ণ মনে করা হয়েছে। বাংলায় পরাজয়ের পর উত্তরপ্রদেশ নিয়ে বড্ড বেশি স্পর্শকাতর গেরুয়া শিবির। তাই এখন থএকেই নির্বাচনী কৌশল তৈরিতে নেমে পড়তে চাইছেন থিঙ্কট্যাকরা। পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশে দলের সংগঠন ও মন্ত্রিসভার সম্প্রসারণ নিয়েও আলোচনা হতে পারে। 

জিতিনকে কেন দলে নিল বিজেপি?
কংগ্রেস ছেড়ে বছর সাতচল্লিশের জিতিন প্রসাদ বিজেপিতে নাম লেখালেন। উত্তর প্রদেশে ভোট আসছে। তার আগে জিতিনকে দলে নিল  বিজেপি। ২০১৭-য় উত্তরপ্রদেশে ৪০৩টির মধ্যে ৩১২টি আসনে জিতেছিল বিজেপি। পেয়েছিল ৪১.৭ শতাংশ ভোট। যোগী আদিত্যনাথকে মুখ্যমন্ত্রী করে চমক দিয়েছিলেন মোদী-শাহ। কিন্তু বর্তমানে ব্রাহ্মণ সমাজের মধ্যে বিজেপির সমর্থন  বেশ কমতির দিকে। ১২ শতাংশ ব্রাহ্মণ ভোট এখানে, যা শুধু ভোটবাক্সের ক্ষেত্রেই নয়, সমাজে প্রভাবপ্রতিপত্তির বিচারেও দারুণ গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু তা সত্ত্বেও ঠাকুর সমাজের যোগী আদিত্যনাথকে মুখ্যমন্ত্রী করা হয়েছিল গতবার। উত্তরপ্রদেশে ঠাকুরদের সংখ্যা ৮ শতাংশ। বিষয়টি ব্রাহ্মণসমাজ শুরু থেকেই ভাল চোখে দেখেনি।  ব্রাহ্মণ-ক্ষোভ বিজেপি সরকারকে  ক্রমেই বিড়ম্বনায় ফেলছে। অযোধ্যা ও বারাণসীতে স্থানীয় ভোটে বিজেপি যেভাবে ধাক্কা খেয়েছে, তাতে এই অ-ঠাকুরদের ক্ষোভটাই স্পষ্ট হয়ে উঠেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। এই অবস্থায়  ব্রাহ্মণ সমাজের বড় মুখ জিতিন প্রসাদের মতো তরুণ একজনকে বিজেপিতে এনে গেরুয়া ব্রিগেড ভোটের আগে সেই ক্ষোভে জল ঢালতে মরিয়া বলে মনে করছে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ মহল। জিতিনের পরিচয় তিনি প্রয়াত কংগ্রেস নেতা জিতেন্দ্র প্রসাদের ছেলে। পাশাপাশি প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, রাহুল ব্রিগেডের বড় মুখ ছিলেন।