scorecardresearch
 
 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে 'থ্যাঙ্ক ইউ মোদীজি' ব্যানার, UGC-নির্দেশে সরব শিক্ষামহল

দেশে সোমবার থেকে শুরু হয়েছে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সকলের ফ্রি টিকাকরণ। আর এই জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে ব্যানার টাঙ্গাতে হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলির চত্বরে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্চুরি কমিশন ( UGC) নাকি এমনই নির্দেশ পাঠিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এবং টেকিনিক্যাল ইনস্টিটিউটগুলির কাছে।

নরেন্দ্র মোদী নরেন্দ্র মোদী
হাইলাইটস
  • দেশে শুরু হয়েছে বিনামূল্যে টিকাকরণ
  • তার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন বার্তা
  • বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্চুরি কমিশন এমনটাই নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে

দেশে সোমবার থেকে শুরু হয়েছে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সকলের ফ্রি টিকাকরণ। আর এই জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে ব্যানার টাঙ্গাতে হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলির চত্বরে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্চুরি কমিশন ( UGC) নাকি এমনই নির্দেশ পাঠিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এবং টেকিনিক্যাল ইনস্টিটিউটগুলির কাছে।

গত ৭ জুন প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেন ২১ জুন থেকেই দেশের প্রতিটি নাগরিক বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাবেন। অর্থাৎ ১৮ বছরের ঊর্ধ্বরাও এবার থেকে বিনামূল্যে ভ্যাকসিনের লাইনে দাঁড়াতে পারবেন। গত পয়লা মে থেকে আঠেরো ঊর্ধ্বদের ভ্যাকসিনেশন শুরু হলেও তা নিজেদের উদ্যোগেই নিতে হচ্ছিল। কিন্তু সোমবার থেকে দেশের সকল নাগরিককেই বিনামূল্যে টিকা দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছে কেন্দ্র। এরপরেই দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আধিকারিকদের কাছে হোয়াটস অ্যাপ ম্যাসেজ পৌঁছেছে, যেখানে ইউজিসি সেক্রেটারি রাজনাথ জৈন আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে ব্যানার লাগানোর জন্য। সোশ্যাল মিডিয়া পেজ গুলিতেও 'থ্যাঙ্ক ইউ মোদীজি' লেখার কথা বলা হয়েছে। 

 ইউজিসি-র সেক্রেটারি রাজনাথ জৈনের বার্তায় বলা হয়েছে, "সোমবার ২১ জুন থেকে দেশে ১৮ ঊর্দ্ধদেব বিনামূল্যে টিকাকরণ শুরু হচ্ছে। আর দেশে বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলিকে অনুরোধ করা হচ্ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চত্বরে ধন্যবাদ জ্ঞাপন হোর্ডিং দেওয়ার জন্য।" জৈনের পাঠান হোয়াটস অ্যাপ ম্যাসেজে আরও রয়েছে, "ধন্যবাদ জ্ঞাপন বার্তা তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের তরফে হিন্দি এবং ইংরেজিতে তৈরি করা হয়েছে, সেই ডিজাইনও  পাঠান হচ্ছে। "

ইউজিসির পাঠান পোস্টারে নরেন্দ্র মোদীর ছবি রয়েছে, সঙ্গে লেখা, 'থ্যাঙ্ক ইউ মোদীজি'। ইতিমধ্যে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়, হায়দরাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়, ভোপালের এলএনসিটি বিশ্ববিদ্যালয়, বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়, গুরগাঁওয়ের নর্থক্যাপ বিশ্ববিদ্যালয়-সহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে তাদের সোশ্যাল মিডিয়া পেজে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাতে দেখা গেছে। সঙ্গে রয়েছে "ThankyouModiji" হ্যাশট্যাগ। 
 

এই নিয়ে দেশ জুড়ে প্রতিক্রিয়াও তৈরি হয়েছে। স্বরাজ ইন্ডিয়ার প্রেসিডেন্ট কথা ইউজিসির প্রাক্তন সদস্য যোগেন্দ্র যাদব ট্যুইটারে লেখেন, "ইউজিসির একজন প্রাক্তন সদস্য হিসাবে আমি লজ্জিত। ইউজিসিতে আগেও (২০১০-১২) তাবেদারি ছিল,  তবে এ জাতীয় দাসত্ব অভাবনীয়। প্রতিদিন, আমরা আরও নীচে নামছি।" বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং প্রাক্তন এক্সিকিউটিভ কাউন্সিল সদস্য রাজেশ ঝাও।  "এটি নজিরবিহীন। বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে সরকারি প্রচারের ব্যবহার করা উচিত নয়।" প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন তিনি। একই মত দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিচার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য আভা দেব হাবিবেরও। ফেসবুকে তিনি লেখেন, "প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে প্রচার চালানোর জন্য প্রতিষ্ঠানগুলি ব্যবহার করা হচ্ছে।" জেএনইউ-এর টিচার অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি মৌসুমী বলু থেকে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর হংসরাজ সুমন সবাই ইউজিসিরর পদক্ষেপের তীব্র নিন্দা করেছেন। মুখ খুলেছেন দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মনীষ শিশোদিয়াও। 

দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রকে আক্রমণ করে বলেন  যে একদিকে মোদী সরকার রাজ্যগুলিকে ভ্যাকসিন সরবরাহ করতে ব্যর্থ হয়েছে, অন্যদিকে  "ধন্যবাদ মোদীজি" এর বিজ্ঞাপন দেওয়ার আদেশ জারি করা হচ্ছে। কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠনের সভাপতি নীরজ কুন্দনও তীব্র প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। ছাত্ররা এখনও ভ্যাকসিন পায়নি, তার সরকার প্রচার চালানোর চেষ্টা করছে। ছাত্রদের শিক্ষাঋণ থেকে মুক্তি দিক কেন্দ্র তাহলেই কাজের কাজ হবে বলে মন্তব্য করেন নীরজ।