scorecardresearch
 

Kunal Ghosh: 'যান অরণ্যদেব গাঙ্গুলি যা করার ক্ষমতা করে নিন', কুণালের নিশানায় আসলে কে?

'অরণ্যদেব গাঙ্গুলি'র রাজনৈতিক অভিসন্ধি রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন কুণাল। তিনি বলেন,'জুনিয়র হিসেবে কোন সিনিয়রের পিছনে ঘুরতেন সেটা জানি। সেই রাজনৈতিক উইশলিস্ট বিচারপতির আসনে বসে বলা যায় না। আপনি হিরো সেজে বলবেন দালাল মুখপাত্র!'

কুণাল ঘোষ - ফাইল ছবি। কুণাল ঘোষ - ফাইল ছবি।
হাইলাইটস
  • অরণ্যদেব গাঙ্গুলিকে তোপ কুণালের।
  • বিচারপতির চেয়ারে বসে ভাবমূর্তি তৈরির চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ তাঁর।

'অরণ্যদেব গাঙ্গুলি'কে একের পর এক তোপ দাগলেন কুণাল ঘোষ। তাঁর দাবি, বিচারপতির চেয়ারে বসে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য পূরণ করেন অরণ্যদেব গাঙ্গুলি। তাঁর কথায়,'বিচারব্যবস্থার প্রতি আস্থা আছে। বিচারপতির চেয়ারে বসে কেউ যদি বলেন আমার দলকে তুলে দেবেন তাঁকে আমি রসগোল্লা খাওয়াব নাকি! যান অরণ্যদেব গাঙ্গুলি। যা করার ক্ষমতা আছে করে নিন।' 

এ দিন কুণাল বলেন,'বিচারব্যবস্থার প্রতি পূর্ণ আস্থা আছে আমাদের। হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টকে শ্রদ্ধা করি। বিচারব্যবস্থা আছে বলেই সমাজ টিকে রয়েছে। কোনও রায় পছন্দ হয়, কোনওটা পছন্দ হয় না। প্রত্যেক মামলায় একটা পক্ষ ভুল। আর একটা ঠিক। ঠিকটাকে বেছে নেওয়াই তো রায়। বিচারপতিদের হাতে অশেষ ক্ষমতা। তাঁদের নির্দেশ মানতে আমরা বাধ্য। এমন ধারণা দেওয়ার চেষ্টা না হয় হঠাৎ কেউ ন্যায়বিচার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। এমন বহু লোক রয়েছেন যাঁরা নীরবে কাজ করে চলেছেন। স্রোতের বিপরীতে সিদ্ধান্তও নিচ্ছেন। কেউ যদি মনে করে তাঁর উইশ লিস্ট পর্যবেক্ষণের মোড়কে সংবাদমাধ্যমের সামনে প্রকাশ করে নিজেকে অরণ্যদেব সাজবেন এটা খুব দুর্ভাগ্যজনক! সব বিচারপতি ন্যায়বিচার দেওয়ার জন্য বসে আছেন। নীরবে কাজ করে চলেছেন। ব্যক্তিগত ভাবমূর্তি তৈরি করেন না তাঁরা।' 

এ দিনই অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরি করে নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়ে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় কড়া মন্তব্য করেছেন,'নির্বাচন কমিশনকে বলে দলের স্বীকৃতি বাতিল করে দেব ৷'নাম না করেই কুণাল প্রশ্ন তুলেছেন, এটা একজন বিচারপতি কীভাবে বলতে পারেন? তাঁর কথায়,'আমি কার কোনও নাম বলছি না। আমি শুনেছি কেউ কেউ আমাদের দলের মুখপাত্র ব্যবহার করে কিছু বলেছেন। অনেক মুখথপাত্র আছেন। আমি একজন। যাঁর বলার ইচ্ছা নাম করতে বলতে পারে। আমিও কারও নাম করে বলছি না। আমি বলছি, এজি অরণ্যদেব গাঙ্গুলি। কেউ নিজেকে অরণ্যদেব ভাবছেন। বিচারব্যবস্থার প্রতি আস্থা রয়েছে। বিচারপতির চেয়ারের সুরক্ষা নিয়ে কেউ যদি বলেন আমার দলকে তুলে দেবেন তাঁকে আমি রসগোল্লা খাওয়াব নাকি! যান অরণ্যদেব গাঙ্গুলি যা করার ক্ষমতা আছে করে নিন।'পাঠকমনে প্রশ্ন জাগবে, কে এই অরণ্যদেব গাঙ্গুলি? রাজ্য রাজনীতির সম্পর্কে যাঁরা সম্যক ওয়াকিবহাল তাঁরা নিশ্চিতভাবে বুঝে নেবেন ঠিক কাকে নিশানা করেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ।     

'অরণ্যদেব গাঙ্গুলি'র রাজনৈতিক অভিসন্ধি রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন কুণাল। তিনি বলেন,'জুনিয়র হিসেবে কোন সিনিয়রের পিছনে ঘুরতেন সেটা জানি। সেই রাজনৈতিক উইশলিস্ট বিচারপতির আসনে বসে বলা যায় না। আপনি হিরো সেজে বলবেন দালাল মুখপাত্র। বিচারকের আসনে বসে নিজের ভাবমূর্তি তৈরি করছেন। অবসরের পর রাজনীতি করার জমি তৈরি করছেন। নির্দেশ দেবেন।এসব কী কথা, দল তুলে দিতে বলব। এটা হয়! কোনও বিচারপতি এই ধরনের ব্যক্তিপ্রচার কেন্দ্রিক প্রচার সমর্থন করবেন না।'

আরও পড়ুন- মমতার সঙ্গে কী নিয়ে কথা? জানালেন শুভেন্দু, সেটিং দেখছে CPM

 
; ; ;