scorecardresearch
 

বাদ সাধছে পশ্চিমি ঝঞ্ঝা, বঙ্গে এসেও আটকে শীত

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এসেও জাঁকিয়ে শীতের দেখা নেই বাংলায়। হাওয়া অফিস বলছে, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ঢুকছে  পশ্চিমী ঝঞ্জা। তার জেরে পারদ নিম্নমুখী হতে পাচ্ছে না রাজ্যগুলিতে। এর প্রভাব পড়েছে বাংলাতেও। ফলে আপাতত কয়েকদিন এমনই আবহাওয়া চলতে থাকবে। 

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস। প্রতীকী ছবি- পিটিআই আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস। প্রতীকী ছবি- পিটিআই
হাইলাইটস
  • ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে নামতে পারে পারদ
  • এখন আবহাওয়া পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই
  • উত্তরবঙ্গে রয়েছে বৃষ্টির সম্ভাবনা

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এসেও জাঁকিয়ে শীতের দেখা নেই বাংলায়। হাওয়া অফিস বলছে, জম্মু-কাশ্মীর থেকে ঢুকছে পশ্চিমী ঝঞ্জা। তার জেরে পারদ নিম্নমুখী হতে পাচ্ছে না রাজ্যগুলিতে। এর প্রভাব পড়েছে বাংলাতেও। ফলে আপাতত কয়েকদিন এমনই আবহাওয়া চলতে থাকবে। 

কী বলছে আবহাওয়া দফতর

ভোরের দিকে ঠান্ডা, আবার বেলা গড়াতেই  উধাও শীত। দুই সপ্তাহ ধরেই এমনই রয়েছে বঙ্গের আবহাওয়া। নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকেই হাল্কা ঠান্ডার আমেজ পাওয়া গিয়েছিল। শেষ সপ্তাহ এসে পারদ বেশি খানিকটা নামে। কলকাতার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২০ ডিগ্রির নীচে যায়। কিন্তু ডিসেম্বরের শুরুতেই কনকনে ঠান্ডার আমেজ থেকে এখনও অনেক দূরে বঙ্গবাসী।  হাওয়া অফিস জানাচ্ছে, জম্মু-কাশ্মীর থেকে পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে। আপাতত টানা কয়েকদিন এমনই চলতে থাকবে।  আবহাওয়া পরিবর্তনের সম্ভাবনা তেমন নেই।

আরও পড়ুন, Ajker Rashifal 5 December 2020: শনির কোপ কোন রাশির উপর? কে পাবেন রক্ষা!

পশ্চিমী ঝঞ্ঝা একবার কেটে গেলেই বঙ্গে নতুন  করে আবহাওয়া ফের নিম্নমুখী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটই পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। তবে পশ্চিমী ঝঞ্ঝা একবার কেটে গেলেই রাজ্যে জাঁকিয়ে ঠান্ডা পড়ার আভাস দেওয়া হয়েছে।  ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ নাগাদ কলকাতার তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রির নিচে একলাফে নামতে পারে। এদিন সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ২৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। কলকাতার মতো পরিস্থিতি রয়েছে জেলাগুলিতেও। উত্তরবঙ্গে কালিম্পং ও দার্জিলিংয়ে হাল্কা বৃষ্টি হতে পারে বলে পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে

নজর বুরেভির দিকেও
 
অন্যদিকে নজর রয়েছে ঘূর্ণিঝড় বুরেভির দিকে। শ্রীলঙ্কার পরে এটি তামিলনাড়ুর উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলিতে আছড়ে পড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। ফলে সতর্ক করা হয়েছে দক্ষিণের রাজ্যগুলিকে। সেখানে প্রবল বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে এই ঘূর্ণিঝড়ে প্রভাব বাংলায় পড়ছে না।

বাংলার আপাতত কয়েকদিন আবহাওয়ার এই খামখেয়ালিপনা চলবে। ফলে ডিসেম্বর এসেও কনকনে ঠান্ডা আমেজ এখনই উপভোগ করতে পারছেন না বঙ্গবাসী।  আবহাওয়া দফতরে পূর্বাভাস অনুযায়ী, অপেক্ষা করতে হবে আর কয়েকটা দিন। পশ্চিমী ঝঞ্ঝা বিদায় নিলেই, বঙ্গে ইনিংস শুরু করতে পারে শীত।