scorecardresearch
 

গরমে হাজার ঝঞ্ঝাট থেকে মুক্তি চাইলে রোজ পাতে রাখুন করলা, আর দেখুন ম্যাজিক

গরমে হাজারটা ঝঞ্ঝাট। শরীরে অস্বস্তি, মুখে গোটা, বদ হজম। সবগুলি থেকে একবারে মুক্তি চাইলে রোজ পাতে রাখুন সাধারণ সবজি করলা। আর দেখুন ম্যাজিকের মতো গায়েব হবে সমস্যা।

করলা খান যত খুশি করলা খান যত খুশি
হাইলাইটস
  • গরমে হাজার ঝঞ্ঝাট থেকে মুক্তি দেয় করলা
  • রোজ পাতে রাখুন করলা
  • কাজ করবে ম্যাজিকের মতো

যতই তিতো লাগুক, যতই খাবারের পাতে এককোণে অচ্ছুতের মতো আচরণ করা হোক না কেন, এই গরমে করলা আপনাকে বাঁচাতে পারে অনেক রকম সমস্যা থেকে। গরমে শরীর থেকে বেরিয়ে যাওয়া ঘামের সঙ্গে দূষিত পদার্থ বের করে শরীরকে রাখে তরতাজা।

খাদ্যগুণে ভরপুর

এটি ভিটামিন বি ১, বি ৩ এবং বি ৩, সি, ম্যাগনেসিয়াম, ফোলেট, জিঙ্ক, ফসফরাস, ম্যাঙ্গানিজের একটি চমৎকার উৎস এবং উচ্চ খাদ্যতালিকাগত ফাইবার রয়েছে। হেলথ ডটকম অনুসারে এতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে এবং এতে ব্রকলির দ্বিগুণ বিটা-ক্যারোটিন, পালং শাকের দ্বিগুণ ক্যালসিয়াম এবং কলার দ্বিগুণ পটাসিয়াম রয়েছে।

করলা

কাঁচা করলার তিক্ত জুস

এমনকী কাঁচা করলার রস পান করাও উপকারী। কারণ এতে প্রয়োজনীয় ভিটামিনের পাশাপাশি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা আমাদের সকলের প্রয়োজন।

এখানে করলা খাওয়ার পাঁচটি স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে

১. ব্লাড পিউরিফায়ার হিসেবে কাজ করে:

করলার রসে উপস্থিত অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য ত্বকের সমস্যা, রক্তের সমস্যা, রক্ত ​​থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূর করতে এবং তা পরিশুদ্ধ করতে সাহায্য করে। এটি রক্ত ​​​​সঞ্চালনকেও উন্নত করে এবং ফুসকুড়ি, ব্রণ, সোরিয়াসিস, রক্ত ​​​​ফোঁড়া এবং এমনকি শরীরে ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধির মতো সমস্যাগুলি নিরাময়ে সহায়তা করে। গরমে ত্বকের মুখ অনবরত ঘামের জন্য খুলে যায়। তখন করলা খেলে এগুলি সহজেই শরীর থেকে বেরিয়ে যায়।

২.ওজন কমাতে সাহায্য করে:

করলার রস খাওয়া বা পান করা লিভারকে পিত্ত অ্যাসিড নিঃসরণ করতে উদ্দীপিত করে, যা শরীরের চর্বি বিপাকের জন্য প্রয়োজনীয়। এছাড়াও, ১০০ গ্রাম করলার পরিবেশনে মাত্র ১৭ ক্যালোরি থাকে। যা এটিকে ফিটনেস উত্সাহীদের জন্য একটি দুর্দান্ত বিকল্প হিসাবে তৈরি করে। গরমে টক্সিন বের করে দেয়। শরীরকে রাখে রোগমুক্ত, ঠাণ্ডা।

উচ্ছে

৩. অনাক্রম্যতা বাড়ায়:

করলা ভিটামিন সি-এর একটি অত্যন্ত সমৃদ্ধ উৎস, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটিতে শক্তিশালী অ্যান্টিভাইরাল সম্পত্তি রয়েছে, যা ইমিউন সিস্টেমকে উদ্দীপিত করে এবং হজমে সহায়তা করে। গরমে বদহজমে ভোগেন যাঁরা, তাঁদের জন্য় এটি মহৌষধি।

৪.ডায়াবেটিসের জন্য দুর্দান্ত:

করলার একটি নির্দিষ্ট ইনসুলিনের মতো প্রোটিন রয়েছে যার নাম পলিপেপটাইড পি যা ইনসুলিনের ক্রিয়াকে অনুকরণ করে এবং ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে শর্করার মাত্রা কমায়।

৫.ব্রণের বিরুদ্ধে লড়াই করুন:

গরমে ঘাম হলে শরীর তেল ছাড়ে। সেই তেল থেকে মুখে ব্রণ ও গোটা তৈরি হয়। করলা খাওয়া আপনাকে ব্রণ, দাগ এবং ত্বকের সংক্রমণ থেকে মুক্তি দিতে এবং আপনাকে একটি স্বাস্থ্যকর এবং উজ্জ্বল ত্বক দেয়।

 

 
; ; ;