scorecardresearch
 

এই সবজিগুলি কখনওই কাঁচা খেতে নেই, কী হয় জানেন?

অনেকেই মনে করেন যে এমন কিছু জিনিস আছে যা রান্না করে খেলে পুষ্টিগুণ শেষ হয় যায়। আবার এমন কিছু জিনিস আছে যেগুলি রান্না করে খেলে তার পুষ্টিগুণ পাওয়া যায়। চলুন জেনে নেওয়া কী কী জিনিস কাঁচা খাওয়া উচিত নয়।

প্রতীকী ছবি প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • কিছু সবজি সবসময় রান্না করে খাওয়া উচিত
  • তবেই মিলবে সঠিক পুষ্টি
  • জেনে নিন তালিকা

বর্তমানে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন এবং ওজন কমানোর জন্য কাঁচা জিনিস খাওয়া একটি প্রবণতা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেকেই মনে করেন যে এমন কিছু জিনিস আছে যা রান্না করে খেলে পুষ্টিগুণ শেষ হয় যায়। আবার এমন কিছু জিনিস আছে যেগুলি রান্না করে খেলে তার পুষ্টিগুণ পাওয়া যায়। চলুন জেনে নেওয়া কী কী জিনিস কাঁচা খাওয়া উচিত নয়।

মাশরুম - মাশরুমে প্রচুর পরিমাণে এরগোথিওনিন নামক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে, যা রান্নার পর বের হয়। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কোষের ক্ষতিকারক ফ্রি র‌্যাডিক্যাল এবং রাসায়নিকগুলি ভেঙে দিতে সাহায্য করে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রোগ ও বার্ধক্যজনিত সমস্যা কমাতেও সাহায্য করে।

পালং শাক - পালং শাক হল পুষ্টির ভান্ডার। এতে রয়েছে আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং জিঙ্ক। তবে পালং শাক রান্না করে খাওয়ার সময় আমাদের শরীর এই সমস্ত পুষ্টি শুষে নেয়। কারণ পালং শাকে অক্সালিক অ্যাসিড পাওয়া যায়, যা আয়রন এবং ক্যালসিয়াম শোষণে বাধা দেয়। পালং শাক রান্না করলে ক্যালসিয়াম ও আয়রন বের হয়। যা আমাদের শরীর সহজেই শুষে নেয়। গবেষকরা বলছেন, পালং শাক ভাপিয়ে খেলে তাতে উপস্থিত ফোলেটের মাত্রা বজায় থাকে, যা অনেক ধরনের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

টমেটো - টমেটোতে লাইকোপিন নামক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে, যা দীর্ঘস্থায়ী রোগ এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। রান্না করা টমেটো খেলে এই লাইকোপিন নিঃসৃত হয়। টমেটো রান্না করে খেলে তাতে ভিটামিন সি ২৯ শতাংশ কমে গেলেও, ৩০ মিনিট রান্না করলে তাতে লাইকোপিন ৫০ শতাংশের বেশি বেড়ে যায়।

গাজর - রান্না করা গাজরে কাঁচা গাজরের চেয়ে বেশি পরিমাণে বিটা-ক্যারোটিন থাকে, যা ক্যারোটিনয়েড নামক একটি উপাদানকে শরীর ভিটামিন এ-তে রূপান্তরিত করে। এই ভিটামিন হাড়ের বৃদ্ধি, দৃষ্টিশক্তি এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। খোসা না ছাড়িয়ে গাজর রান্না করলে তার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শক্তি দ্বিগুণ হয়।

বেল পেপার/ক্যাপসিকাম - বেল পেপার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, বিশেষ করে ক্যারোটিনয়েড, বিটা-ক্যারোটিন, বিটা-ক্রিপ্টোক্সানথিন এবং লুটেইন-এ সমৃদ্ধ। এটিকে গরম করার ফলে, এর সেল ভল্ট ভেঙে যায়, ফলে আমাদের শরীর সহজেই ক্যারোটিনয়েডগুলি শোষণ করে। টমেটোর মতো বেল পেপারও সেদ্ধ করলে তাতে উপস্থিত ভিটামিন সি-এর পরিমাণ কমে যায়।

সবুজ মটরশুটি - সবুজ মটরশুঁটিতেও প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। কিন্তু এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলি তখনই পাওয়া যায় যখন আপনি এটি বেক করে বা গ্রিল করে খান। ফুটন্ত এবং চাপ রান্না এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলিকে ধ্বংস করে।

লেটুস - স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের জন্য অনেকেই স্যালাডে লেটুস খান। এটিকে খুব স্বাস্থ্যকরও মনে করা হয়। তবে ভাপিয়ে লেটুস খেলে সেটির উপকারিতা দ্বিগুণ হয়ে যায়। 

আরও পড়ুনCOVID বাড়ছে দেশে, বাংলাতেই একলাফে আক্রান্ত প্রায় সাড়ে ৭০০ 

আরও পড়ুনক্যান্সারে কেউ পাশে নেই, আত্মহত্যার আগে বাঁশদ্রোণীর দম্পতি লিখলেন...