scorecardresearch
 

Warning Sign: ক্যান্সার বাসা বাঁধছে কিনা জানিয়ে দেয় যে সব লক্ষণগুলি

Warning Sign: ক্যানসারের ক্ষেত্রে সঠিক উপায় হল সতর্কীকরণ চিহ্নের মাধ্যমে শনাক্ত করা, যাতে এটি তৃতীয় পর্যায়ে পৌঁছানো থেকে রোধ করা যায়। একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যদি শরীরে ক্যানসারের লক্ষণ বা সতর্কতামূলক লক্ষণ দেখা যায়, তাহলে দেরি না করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। ক্যানসারের ক্ষেত্রে এমন কিছু সতর্কতামূলক লক্ষণন সম্পর্কে জেনে নিন।

শরীরে সমস্যা। প্রতীকী ছবি শরীরে সমস্যা। প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • শরীরে এই লক্ষণগুলি থাকলে সাবধান
  • ঝুঁকি থাকে ক্যানসারের
  • জানুন বিস্তারিত তথ্য

Warning Sign: ক্যানসার শুরুতেই প্রতিরোধ করা প্রয়োজন। সঠিক সময়ে এ বিষয়ে যত্ন না নিলে ক্যানসার তৃতীয় পর্যায়ে পৌঁছে যেতে পারে। তখন আক্রান্ত ব্যক্তি অনেক সমস্যাতে পড়তে পারেন। ক্যানসারের ক্ষেত্রে সঠিক উপায় হল সতর্কীকরণ চিহ্নের মাধ্যমে শনাক্ত করা, যাতে এটি তৃতীয় পর্যায়ে পৌঁছানো থেকে রোধ করা যায়। একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যদি শরীরে ক্যানসারের লক্ষণ বা সতর্কতামূলক লক্ষণ দেখা যায়, তাহলে দেরি না করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। ক্যানসারের ক্ষেত্রে এমন কিছু সতর্কতামূলক লক্ষণন সম্পর্কে জেনে নিন।

মলে রক্ত
আলসার, পাইলস বা ইনফেকশন হলেও মলে রক্ত ​​আসে। কিন্তু ক্যানসার থাকলেও মলের রক্ত ​​একটি বড় সতর্কতা সংকেত। গ্যাস্ট্রো-ইনটেস্টাইনাল ট্র্যাক্টের কোনও সমস্যার কারণে মলে রক্ত ​​​​হয়ে থাকে। মল দিয়ে আসা রক্ত ​​উজ্জ্বল হলে মলদ্বার বা অন্ত্রের সমস্যা হতে পারে। গাঢ় রঙ পেটের আলসারের সমস্যার জন্য হয়। তবে উভয় ক্ষেত্রেই ডাক্তারের সাহায্যে যাচাই করা আবশ্যক।

খিদে কমে যাওয়া
ক্যানসার আপনার বিপাককে প্রভাবিত করে, যার কারণে খিদা কমে যায়। পাকস্থলী, অগ্ন্যাশয়, বৃহৎ অন্ত্র বা ডিম্বাশয়ের ক্যানসার হলে পাকস্থলীতে চাপ অনুভূত হয়, যার কারণে খিদা পায় না। ক্যানসার হলে নারী ও পুরুষ উভয়ের মধ্যেই এ ধরনের লক্ষণ দেখা যায়। তবে কোনও ভাইরাল জ্বরে কেউ আক্রান্ত হলেও তাঁর খিদা কমে যায়। এ বিষয়ে আপনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

প্রস্রাবে রক্ত
যদি আপনার প্রস্রাবে রক্ত ​​থাকে, তবে এটিও একপ্রকার ক্যানসারের লক্ষণ। যা কিডনি বা মূত্রাশয় ক্যানসারের উপসর্গ হতে পারে। যদিও কিডনিতে পাথর বা কিডনির অসুখ থাকলেও এমন হতে পারে। এর জন্য প্রথমেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

তবে এমন কিছু হলে প্রথমেই চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলতে হবে। কারণ, একমাত্র তিনিই বলতে পারবেন আপনি কোনও রোগে আক্রান্ত হয়েছেন কিনা। এই প্রতিবেদন শুধুমাত্র সতর্কতামূলক ভাবেই করা হয়েছে। কোনওরকম আতঙ্ক কিংবা প্যানিক ছড়ানোর জন্য নয়। এর কোনও তথ্য আজ তক বাংলা নিশ্চিত করে না।