scorecardresearch
 

১৯৮৮-র পর ভারতে টেস্ট জেতেনি , ঘরের মাঠে টানা ১৪ সিরিজ জয় ভারতের

ঘরের মাঠে ১১ সিরিজ জয় বিরাট কোহলির। ১৯৮৮ সালের পর ভারতে টেস্ট জেতেনি নিউজিল্যান্ড। টানা ১৪ টি হোম সিরিজ জয়। রেকর্ড বুকের পাতা বেড়েই চলেছে।

লক্ষ্য ঠিক রয়েছে। ছবি-পিটিআই লক্ষ্য ঠিক রয়েছে। ছবি-পিটিআই
হাইলাইটস
  • ঘরের মাঠে ১১ সিরিজ জয় বিরাট কোহলির
  • টানা ১৪ টি হোম সিরিজ জয়
  • ১৯৮৮ সালের পর ভারতে টেস্ট জেতেনি নিউজিল্যান্ড

ঘরের মাঠে টানা ১৪ সিরিজ জিতল ভারত। অর্থাৎ ভারত ঘরের মাটিতে বাঘ। সেতো আগেও আজহারুদ্দিনের আমলেও ছিল। সৌরভের আমলেও ছিল। ধোনির আমলে লিমিটেড ওভারের তুলনায় টেস্টে ভারত আশ্চর্যজনকভাবে মুখ থুবড়ে পড়েছিল। তাঁর আমলেই শেষবার ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ হেরেছিল ভারত।বিরাটের আমলে ফের বিশ্ব ক্রিকেটে লাল বলে শ্রেষ্ঠত্বের অশ্বমেধের ঘোড়া ছুটিয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের শেষ ৫ উইকেট নিতে মুম্বই টেস্টের চতুর্থ দিনে ভারতের এক ঘণ্টাও বল করতে হয়নি। মাত্র  ৪৫ মিনিটেই হারিয়ে যায় কিউইরা। এদিন জয়ন্ত যাদব ৪ উইকেট এবং রবিচন্দ্রন অশ্বিন মিলে ভারতকে ৩৭২ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে দেয়। যা টেস্ট ক্রিকেটে রানের দিক থেকে তাদের সবচেয়ে বড় জয়।

প্রথম ইনিংসে ৬২ রানে গুটিয়ে যাওয়া নিউজিল্যান্ড তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬৭ রান করতে পেরেছে। তারা চতুর্থ দিনে সকালে মাত্র ২৭ রানে তাদের শেষ ৫ উইকেট হারিয়েছে। কানপুরে প্রথম টেস্ট ড্র করতে পারলেও, মুম্বইতে ফেরার কোনও জায়গা ছিল না।

আজাজ প্যাটেল ১৪ উইকেটের রেকর্ড গড়ে তোলা সত্ত্বেও, নিউজিল্যান্ড সিরিজটি হারে কারণ তাদের ব্যাটাররা উচ্চমানের ভারতীয় আক্রমণের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়। আজাজ টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে জিম লেকার এবং অনিল কুম্বলের পরে তৃতীয় বোলার হয়েছিলেন যিনি এক ইনিংসে সব কটি ১০ ​​উইকেট তুলেছিলেন। কিন্তু তিনি অভিজাত তালিকা থেকে প্রথম হয়েছিলেন যিনি পরাজিত দলের হয়েছিলেন।

এটি ছিল ঘরের মাঠে ভারতের টানা ১৪তম টেস্ট সিরিজ জয়। এছাড়াও, ভারত ঘরের মাঠে বিরাট কোহলির নেতৃত্বে খেলা তাদের ১১টি টেস্ট সিরিজের প্রতিটি জিতেছে

ভারত শেষ ১৪ টি মিটিংয়ে নিউজিল্যান্ডের কাছে ঘরের মাঠে কোনও সিরিজ হারেনি। ১৯৮৮ সালে ব্ল্যাক ক্যাপসরা ভারতের বিরুদ্ধে ভারতের বিরুদ্ধে শেষবার ভারতে জিতেছিল। তাছাড়া ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টানা চতুর্থ টেস্ট সিরিজ জিতল ভারত। এটা ছিল দর্শকদের শেষ টেস্ট ম্যাচ জয়।

ভারত পরবর্তীতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ৩ টেস্টের সিরিজ খেলবে। বহু প্রত্যাশিত সফরটি পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল এবং এখন ২৬ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে।

 

 
; ; ;