scorecardresearch
 

"ওটা লাথি নয়, আসলে ভালোবাসা", বিতর্ক উসকে দিলেন সন্দেশ

গত সোমবার মুম্বই সিটি এফসি'র বিরুদ্ধে অখেলোয়াড়সুলভ আচরণ করলেন এটিকে মোহনবাগানের ডিফেন্ডার সন্দেশ ঝিংগান। ম্যাচের একেবারে শেষ মুহূর্তে মাটিতে পড়ে গিয়েছিলেন মুম্বইয়ের ফুটবলার বিক্রম প্রতাপ সিংহ। এমনই একটি পরিস্থিতিতে সন্দেশ শুয়ে থাকা বিক্রমের গায়ে পা ঠেকিয়ে জিজ্ঞাসা করেন যে তাঁর কী হয়েছে।

সন্দেশ ঝিংগান, সেদিনের ওই ম্যাচের দৃশ্য (ছবি - টুইটার) সন্দেশ ঝিংগান, সেদিনের ওই ম্যাচের দৃশ্য (ছবি - টুইটার)
হাইলাইটস
  • মুম্বই সিটি এফসি'র বিরুদ্ধে এক গোলে হেরে যায় এটিকে মোহনবাগান
  • এই ম্যাচের পর এটিকে মোহনবাগানের থেকে মুম্বই পাঁচ পয়েন্টে এগিয়ে যায়
  • বাগানের দখলে আপাতত ২০ পয়েন্ট রয়েছে

গত সোমবার মুম্বই সিটি এফসি'র বিরুদ্ধে অখেলোয়াড়সুলভ আচরণ করলেন এটিকে মোহনবাগানের ডিফেন্ডার সন্দেশ ঝিংগান। ম্যাচের একেবারে শেষ মুহূর্তে মাটিতে পড়ে গিয়েছিলেন মুম্বইয়ের ফুটবলার বিক্রম প্রতাপ সিংহ। এদিকে সময় নষ্ট হওয়ার কারণে ক্রমশ অধৈর্য্য হয়ে উঠছে সবুজ-মেরুন ব্রিগেড। কারণ ততক্ষণে তারা এক গোলে পিছিয়ে রয়েছে। এমনই একটি পরিস্থিতিতে সন্দেশ শুয়ে থাকা বিক্রমের গায়ে পা ঠেকিয়ে জিজ্ঞাসা করেন যে তাঁর কী হয়েছে। এই ছবিটি মুহূর্তের মধ্যে সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। সকলেই একবাক্যে স্বীকার করে নেন, এমন কাজ কখনই সন্দেশের উচিত হয়নি।

তবে ম্যাচের শেষেও এই ঘটনার রেশ চলতে থাকে। সকলেই প্রশ্ন করতে শুরু করেন, কীভাবে একজন ফুটবলার অপর ফুটবলারের গায়ে ইচ্ছাকৃতভাবে পা দিতে পারেন? এমনকী ঘটনাটি নিয়ে মুম্বই সিটি এফসি অভিযোগও জানায়। এরপর সন্দেশ নিজের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে বিষয়টি নিয়ে মুখ খোলেন। তিনি বললেন, "বিক্রম একেবারে আমার নিজের ভাইয়ের মতো। আমরা একসঙ্গে অনুশীলন করি। লাথি এবং ভালোবাসার মধ্যে পার্থক্যটা বুঝতে শিখুন। আর এসব কথা বলার আগে একবার অন্তত ভাবুন।"

তবে এই পরিস্থিতিতে সন্দেশের পাশে দাঁড়িয়েছেন মুম্বইয়ের গোলরক্ষক অমরিন্দর সিং। তিনি লিখেছেন, "কোনও ফুটবলারই ইচ্ছে করে অপর ফুটবলারকে আঘাত করতে চায় না। আমরা তোমাকে খুব ভালো করেই চিনি। দলের সতীর্থ খেলোয়াড়দের প্রতি তুমি কতটা যে যত্নবান, সেকথাও আমরা জানি। আমাদের বন্ধুত্ব কতটা গভীর, সেটা সাধারণ মানুষের পক্ষে বোঝা সম্ভব নয়।"

পাশাপাশি বিক্রম প্রতাপ সিংও এই পোস্টে কমেন্ট করেছেন। তিনি লিখেছেন, "সব ঠিক আছে। এটা যে আসলে খেলারই একটা অংশ সেটা আমি খুব ভালো করেই বুঝি। তুমি ইচ্ছাকৃতভাবে আমার গায়ে পা দিতে চাওনি। তোমার সঙ্গে অনুশীলন করি বলেই তোমাকে খুব কাছ থেকে চিনি। দলের সতীর্থ ফুটবলারদের স্বাস্থ্য সম্পর্কে তুমি কতটা চিন্তা কর, সেকথা আমরা সকলেই জানি।"