scorecardresearch
 
টেক

কী কাণ্ড! নাসার মহাকাশযান দেখে 'শিস' দিল বৃহস্পতির উপগ্রহ গ্যানিমিড!

বৃহস্পতি
  • 1/7

বৃহস্পতি গ্রহের ৭৯টি চাঁদ রয়েছে। এর মধ্যে ৫৩টির নাম ঘোষণা হলেও ২৬টির নামকরণ হয়নি। এদিকে, মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার জুনো মহাকাশযানকে তার পাশ দিয়ে যেতে দেখে বৃহস্পতির বৃহত্তম চাঁদ শিস দিয়ে ওঠে। তবে জুনোও কিছু কম যায় না, সেই সিটির আওয়াজ রেকর্ড করে ফেলল জুনো। সেই শিসের রেকর্ড করা শব্দ নাসাকে পাঠিয়ে জানায় গ্যানিমিড এমন একটি কাজ করেছে।
 

জুনো মহাকাশযানের
  • 2/7

জুনো মহাকাশযানের প্রধান তদন্তকারী স্কট বোল্টন বলেন, গ্যানিমিডের স্বরের রেকর্ডিং খুবই স্পষ্ট। নাসার একটি অনুষ্ঠানে এই গ্যানিমিড ফ্লাইবাই, চৌম্বক ক্ষেত্র, বৃহস্পতি এবং পৃথিবীর মহাসাগরগুলি বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছিল। স্কট জানান, এই অডিও রেকর্ডটি ৫০ সেকেন্ডের। যেটি ৭ জুন ২০২১-এ গ্যানিমিডের কাছাকাছি উড়ে যাওয়া জুনো মহাকাশযান রেকর্ড করে।
 

স্কট জানান
  • 3/7

স্কট জানান, এই শব্দটি বৃহস্পতির চুম্বকমণ্ডলের মধ্যে বৈদ্যুতিক এবং চৌম্বকীয় রেডিও তরঙ্গের। তাদের থেকে নির্গত শব্দ শিসের মতো শোনাচ্ছে। যা জুনো রেকর্ড করে। এই স্বর শোনার সময় মনে হবে নিজেই জুনো গাড়িতে বসে বৃহস্পতি গ্রহের চারপাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে। যাই হোক, এই শব্দটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ গত দুই দশকে প্রথমবারের মতো জুনো গ্যানিমেডের কাছাকাছি ভ্রমণ করেছে।

আইওয়া
  • 4/7

আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শব্দ তরঙ্গ বিশেষজ্ঞ এবং এই গবেষণার সহ-লেখক উইলিয়াম কির্থ বলেছেন, জুনো মহাকাশযান যদি বিভিন্ন সময়ে গ্যানিমিডকে প্রদক্ষিণ করে তবে আমরা বিভিন্ন ধরণের শব্দ পেতাম। জুনো সম্প্রতি বৃহস্পতির ৩৪ তম রাউন্ড পূরণ করেছে। ঘূর্ণনের সময়, এটি সৌরজগতের বৃহত্তম  উপগ্রহ, গ্যানিমিডের পৃষ্ঠ থেকে মাত্র ১০৩৮ কিলোমিটার দূরে ছিল। এর গতি ছিল ঘণ্টায় ৬৭ হাজার কিলোমিটার।

নাসার
  • 5/7

নাসার গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারের জুনো মিশনের উপ-প্রধান তদন্তকারী জ্যাক কনেরি বলেছেন, জুনোর সাহায্যে আমরা বৃহস্পতি গ্রহের বিশদ মানচিত্রও তৈরি করেছি। বৃহস্পতির চারপাশে ৩২ বার ঘোরার পর এই মানচিত্রটি তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রহস্যময় জায়ান্ট গ্রেট ব্লু স্পট। যা গ্রহের বিষুবরেখার কাছে অবস্থিত। জুনোর তথ্য দেখায় যে বৃহস্পতির চৌম্বক ক্ষেত্র ক্রমাগত পরিবর্তিত হচ্ছে।
 

বৃহস্পতি গ্রহে
  • 6/7

বৃহস্পতি গ্রহে উপস্থিত রহস্যময় বিশালাকার গ্রেট ব্লু স্পট প্রতি সেকেন্ডে ২ ইঞ্চি বেগে পূর্ব দিকে যাচ্ছে। এই নীল দাগ গত ৩৫০ বছর ধরে এই কাজ করে আসছে। যেখানে, গ্রহের বাকি জিনিসগুলি একই অবস্থানে রয়েছে। অন্যদিকে, গ্রেট রেড স্পটটি বৃহস্পতির বিষুবরেখার দক্ষিণে অবস্থিত। এটি সাড়ে চার বছরে গ্রহের চারপাশে একটি বিপ্লব ঘটায়। এটি বৃহস্পতি গ্রহে উপস্থিত বৃহত্তম বায়ুমণ্ডলীয় অ্যান্টিসাইক্লোন।
 

বৃহস্পতি গ্রহের
  • 7/7

বৃহস্পতি গ্রহের নতুন মানচিত্র থেকে মনে হচ্ছে বাতাস ব্লু স্পট ভেঙে দিচ্ছে। এর মানে জোনাল বাতাস বৃহস্পতি গ্রহের গভীরতায় পৌঁছে যাচ্ছে। অর্থাৎ উপরের বায়ুমণ্ডলের বাতাস এখন ভূপৃষ্ঠে পৌঁছে যাচ্ছে। বৃহস্পতি গ্রহের একটি নতুন চৌম্বক মানচিত্রও প্রস্তুত, যা পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের সাথে তুলনা করা হচ্ছে।