scorecardresearch
 

WhatsApp থেকে কল আর ফ্রি হবে না, নতুন বিল আনার প্রস্তুতি শুরু

কী হবে যদি আপনাকে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করার বদলে অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়?  নতুন টেলিকম বিলের খসড়ার পর এই জল্পনা চলছে। ভারতে হোয়াটসঅ্যাপের সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪০০ মিলিয়নেরও বেশি। সরকার ভারতীয় টেলিকমিউনিকেশন বিল, ২০২২-এর খসড়া তৈরি করেছে।

হোয়াটসঅ্যাপ/ প্রতীকী ছবি হোয়াটসঅ্যাপ/ প্রতীকী ছবি
হাইলাইটস
  • এখন কি তবে হোয়াটসঅ্যাপ কলিং এবং অন্যান্য অ্যাপের জন্যও টাকা দিতে হবে?
  • কারণ এই অ্যাপগুলোর অপারেশনের জন্য লাইসেন্স প্রয়োজন
  • এই বিলে লাইসেন্স ফি সংক্রান্ত কিছু নিয়মও যুক্ত করেছে সরকার

কী হবে যদি আপনাকে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করার বদলে অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়?  নতুন টেলিকম বিলের খসড়ার পর এই জল্পনা চলছে। ভারতে হোয়াটসঅ্যাপের সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪০০ মিলিয়নেরও বেশি। সরকার ভারতীয় টেলিকমিউনিকেশন বিল (Telecommunication Bill), ২০২২-এর খসড়া তৈরি করেছে।

বিলের খসড়াটি ডট-এর ওয়েবসাইটে সকলেই দেখতে পাবেন। বিলটি পাস হলে তা অনুসরণ করবে টেলিযোগাযোগ বিভাগ। ভারতীয় টেলিকমিউনিকেশন বিল, ২০২২-এর খসড়ায় অনেক নতুন জিনিস অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

টেলিকম লাইসেন্স থাকতে হবে

হোয়াটসঅ্যাপ (WhatsApp), স্কাইপ (Skype), জুম (Zoom), টেলিগ্রাম (Telegram) এবং গুগল ডুও (Google Duo)-এর মতো কলিং এবং মেসেজিং পরিষেবা অ্যাপগুলিকে লাইসেন্স নিতে হবে। ভারতে কাজ করতে হলে তাদের টেলিকম কোম্পানির মতো লাইসেন্স লাগবে। একই সময়ে, OTT প্ল্যাটফর্মগুলিও নতুন টেলিযোগাযোগ বিলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

তারপর থেকে জল্পনা চলছে, এখন কি তবে হোয়াটসঅ্যাপ কলিং এবং অন্যান্য অ্যাপের জন্যও টাকা দিতে হবে? কারণ এই অ্যাপগুলোর অপারেশনের জন্য লাইসেন্স প্রয়োজন। তবে কীভাবে এই লাইসেন্স পাওয়া যাবে এবং হোয়াটসঅ্যাপ সহ অন্যান্য অ্যাপের জন্য কত টাকা খরচ হবে সে বিষয়ে কোনও তথ্য নেই।

লাইসেন্স সংক্রান্ত বিধান কি কি?

এই বিলে লাইসেন্স ফি সংক্রান্ত কিছু নিয়মও যুক্ত করেছে সরকার। এর আওতায় লাইসেন্স ফি আংশিক বা সম্পূর্ণ মওকুফ করার অধিকার সরকারের রয়েছে। এর সঙ্গে ফেরত দেওয়ার বিধানও যুক্ত করা হয়েছে। যদি কোনো টেলিকম বা ইন্টারনেট প্রদানকারী তার লাইসেন্স সমর্পণ করে, তাহলে সে অর্থ ফেরত পেতে পারে।

হোয়াটসঅ্যাপের বিনামূল্যে কলের পরিষেবা কি শেষ হয়ে যাবে?

হোয়াটসঅ্যাপ বা অন্যান্য অ্যাপে কল করার জন্য চার্জ দিতে হবে। এখন ডেটা খরচ হিসাবে এই চার্জ প্রদান কর হয়, তবে লাইসেন্স ফি পরে কী হবে তা কিছু বলা যাচ্ছে না।

এটা হতে পারে, কোম্পানিগুলি তাদের প্ল্যাটফর্মে একটি ফি চার্জ করা শুরু করতে পারে বা আপনাকে কিছু পরিষেবা ব্যবহার করার জন্য সদস্যপদ নিতে হতে পারে। এছাড়া কোম্পানিগুলি বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে বিনামূল্যে সেবা দিতে পারে। বর্তমানে ২০ অক্টোবর পর্যন্ত খসড়া বিলের বিষয়ে জনগণের পরামর্শ চেয়েছে সরকার। এর পরই এ বিষয়ে কোনো পরিস্থিতি পরিষ্কার হবে।

অনেক নতুন নিয়ম যোগ করা হয়েছে

নতুন বিলের অধীনে, সমস্ত টেলিযোগাযোগ পরিষেবা প্রদানকারীকে লাইসেন্স নিতে হবে এবং তাদের টেলিকম অপারেটরের নিয়ম অনুসরণ করতে হবে। গত কয়েক বছর ধরে টেলিকম অপারেটররা এই দাবি করে আসছিল। এ ছাড়া, কোনও টেলিকম কোম্পানি দেউলিয়া হয়ে গেলে তার প্রদত্ত স্পেকট্রামের নিয়ন্ত্রণ থাকবে সরকারের কাছে।