scorecardresearch
 

গর্ভবতী মহিলার গলা কেটে গয়না-টাকা লুঠ, আলিপুরদুয়ারে আতঙ্ক

এক দম্পতির গাড়ি থামিয়ে সোনার গয়না ও নগদ টাকা ছিনতাই করে গাড়িতে থাকা গর্ভবতী মহিলার গলা কেটে খুন করলো একদল দুষ্কৃতী। দুষ্কৃতীদের ধারালো অস্ত্রের কোপে গুরুতর জখম মৃত ওই গর্ভবতী মহিলার স্বামী মৃত্যুর সঙ্গে যুঝছেন।

এলাকায় চাঞ্চল্য এলাকায় চাঞ্চল্য
হাইলাইটস
  • গাড়ি দাঁড় করিয়ে লুঠপাট চালায় দুষ্কৃতীরা
  • মহিলার গলা কেটে গয়না, টাকা লুঠ
  • এলাকায় আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে

এক দম্পতির গাড়ি থামিয়ে সোনার গয়না ও নগদ টাকা ছিনতাই করে গাড়িতে থাকা গর্ভবতী মহিলার গলা কেটে খুন করলো একদল দুষ্কৃতী। দুষ্কৃতীদের ধারালো অস্ত্রের কোপে গুরুতর জখম মৃত ওই গর্ভবতী মহিলার স্বামী।
ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাতে ৪৮ নম্বর এশিয়ান হাইওয়েতে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ডিসেম্বর মাসের গোড়ায় ওই ফ্লাইওভার সংলগ্ন এলাকায় এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের ধার থেকেই উদ্ধার হয়েছিল জয়গাঁ থানার নিখোঁজ ট্রাফিক এএসআই রতন করের মৃতদেহ। ফের ওই এলাকায় এই ছিনতাই ও নৃশংস খুনের  ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ও আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। অভিযোগ পেয়েই পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমেছে। ঘটনার তদন্তের জন্য পুলিস জেলার বিভিন্ন থানার দক্ষ অফিসারদের নিয়ে তিনটি তদন্তকারী টিম গঠন করেছে।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত মহিলার নাম মজিদা বেগম (২০)। তাঁর স্বামীও জখম হয়েছেন।তাঁর স্বামীর নাম এক্রামুল হক। এক্রামুল সাহেবকে কোচবিহারের একটি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়েছে।বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর ছিনতাইয়ের ঘটনাটি ঘটে।

জেলার পুলিস সুপার ওয়াই রঘুবংশি বলেন, আমরা এই ঘটনাকে এখনই ছিনতাই বা অন্য কিছু বলছি না। ঘটনার তদন্তের জন্য জেলা পুলিশ থেকে তিনটি তদন্তকারী বিবেশষ টিম গঠন করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। আমরা আশা করছি দ্রুত ঘটনার কিনারা করতে পারব। 

মৃত ওই গর্ভবতী মহিলার  পরিবার আত্মীয়স্বজনদের সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ও জখম দম্পতির বাড়ি কোচবিহারের ঘোকসাডাঙা থানার কুশিয়ারবাড়ি গ্রামে। এক্রামূল সাহেব নিজেদের গাড়িতে স্ত্রী মজিদা বেগমকে নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে রাঙালিবাজনায় যান তাঁর দিদির বাড়িতে। এক্রামূল সাহেবই গাড়িটি চালাচ্ছিলেন। গাড়িতে আর অন্য কেউ ছিল না।

 রাঙালিবাজনায় দিদির বাড়ি থেকে এরপর তাঁরা বীরপাড়ায় যান হার্ডওয়্যারের কিছু সামগ্রী কিনতে। সেখান থেকে তাঁরা ফিরতি পথে জয়গাঁ যান ভুটানের টাকা বদল করতে। সন্ধ্যার পর জয়গাঁ থেকে কুশিয়ারবাড়ি ফেরার পথে হাসিমারা ফাঁড়ির অধীন ৪৮ নম্বর এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের ফ্লাইওভার সংলগ্ন রাস্তায় এই ঘটনা ঘটে। দুষ্কৃতীরা গাড়ি থামিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মজিদা বেগমের গলা কেটে সোনার চেন ও নগদ টাকা পয়সা ছিনিয়ে নেয়। বাঁধা দিতে গেলে দুষ্কৃতীরা এক্রামূল সাহবেকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে চম্পট দেয়।

খবর পেয়ে হাসিমারা ফাঁড়ির পুলিশ স্থানীয়দের সাহায্যে জখম ওই দম্পতিকে হাসিমারা বায়ুসেনা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে রাতেই তাঁদের আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে আনা হলে এখানে চিকিৎসকরা মজিদা বেগমকে মৃত বলে ঘোষণা করে। মৃত মজিদা বেগম আট মাসের গর্ভবতী ছিলেন। জখম এক্রামুল সাহেবকে পাঠানো হয় কোচবিহারে। বর্তমানে কোচবিহারের একটি নার্সিংহোমের আইসিইউতে ভর্তি আছেন তিনি।

পাতলাখাওয়া পঞ্চায়েতের পঞ্চায়েত সদস্য ও মৃতার বাপের বাড়ির প্রতিবেশী গোলাম মোস্তাফা সরকার বলেন, শুনেছি মাঝ রাস্তায় দুষ্কৃতীরা তাঁদের গাড়ি দিয়ে  এক্রামুলদের গাড়িটিকে দাঁড় করায়। তারপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাঁদের কুপিয়ে সোনার চেন ও নগদ টাকা নিয়ে চম্পট দেয়। আমাদের দাবি, এই ঘটনার সঠিক তদন্ত করে পুলিস দুষ্কৃতীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করুক।