scorecardresearch
 

বিশ্বের বিরুদ্ধে চিনের হাতিয়ার করোনা? ফাঁস চাঞ্চল্যকর তথ্য

মারণ ভাইরাস করোনার জন্ম চিনে। এই দাবি বারবার করে এসেছে বিশ্বের তাবড় তাবড় বিজ্ঞানীরা। চিন এখন করোনা মুক্ত অথচ সেই মারণ ভাইরাস দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বিশ্বজুড়ে। চিনেই যে ভাইরাসের প্রথম সন্ধান পাওয়া গেল, তা থেকে কীভাবে মুক্ত হল লাল ফৌজের দেশ?

China China
হাইলাইটস
  • কোভিড ভাইরাসকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে চিন?
  • সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য
  • আমেরিকার সংবাদপত্রে এই তথ্য সামনে এসেছে

মারণ ভাইরাস করোনার জন্ম চিনে। এই দাবি বারবার করে এসেছে বিশ্বের তাবড় তাবড় বিজ্ঞানীরা। চিন এখন করোনা মুক্ত অথচ সেই মারণ ভাইরাস দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বিশ্বজুড়ে। চিনেই যে ভাইরাসের প্রথম সন্ধান পাওয়া গেল, তা থেকে কীভাবে মুক্ত হল লাল ফৌজের দেশ? এই প্রশ্ন এখন ভাবাচ্ছে বিজ্ঞানীদের। আর তারই সূত্র ধরে চাঞ্চল্যকর তথ্য এল আমারিকার হাতে। 

মার্কিন সংবাদমাধ্যমের একাংশের দাবি, তাদের বিদেশ বিভাগের কাছে এমন কিছু তথ্য হাতে এসেছে যা চমকে দেওয়ার মতো। সংবাদমাধ্যমের দাবি, ২০১৫ সালে গোটা বিশ্ব করোনা নিয়ে ওয়াকিবহাল ছিল না। অথচ সেই সময়ই নাকি চিন এই করোনাকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের জন্য ভাবনা-চিন্তা শুরু করে দিয়েছিল। চিনের বিজ্ঞানীরা নাকি, তখন থেকেই তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছিল।

আরও পড়ুন : করোনার সঙ্গে চোখ রাঙাচ্ছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস, কাড়তে পারে প্রাণও

বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ২০১৫ সালেই চিনের PLA কমান্ডার এই ভাইরাসের মাধ্যমে জৈবিক হামলার আলোচনা করেছিলেন। বিজ্ঞানীরাও এই ভাইরাসকে 'জেনেটিক হাতিয়ারের নতুন যুগ' হিসেবে ব্যবহৃত করছিলেন। 

আমেরিকার হাতে যে নথি সামনে এসেছে তা থেকে জানা যাচ্ছে, এই ভাইরাসটি তৈরি হয়েছে চিনের সরকারি গবেষণাগারে এবং চিনের সামরিক বিভাগের বিজ্ঞানীরা এটিকে জৈব হাতিয়ার রূপে ব্যবহার করার জন্য আলোচনা চালাচ্ছিলেন দীর্ঘদিন ধরেই। 

প্রসঙ্গত, চিন বরাবর দাবি করে এসেছে, করোনা ভাইরাস ছড়ানোর পিছনে তাদের কোনও হাত নেই। তবে সম্প্রতি যে তথ্য সামনে এসেছে তার জেরে চিনের উপর আন্তর্জাতিক মহলের চাপ বাড়বে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।