scorecardresearch
 

খাবারের পর এবার পানীয় জলের সঙ্কট, হাহাকার বাড়ছে পাকিস্তানে

আর্থিক সঙ্কটের পাশাপাশি দেশের হাজারো সমস্যায় জর্জরিত পাকিস্তান। অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। পানীয় জলের সঙ্কট ভয়াবহ আকার ধারণ করছে।

পাকিস্তানে জলের আকাল। পাকিস্তানে জলের আকাল।
হাইলাইটস
  • আর্থিক সঙ্কটের পাশাপাশি দেশের হাজারো সমস্যায় জর্জরিত পাকিস্তান।
  • অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে।

আর্থিক সঙ্কটের পাশাপাশি দেশের হাজারো সমস্যায় জর্জরিত পাকিস্তান। অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। পানীয় জলের সঙ্কট ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। সিন্ধু-পাঞ্জাব ও বেলুচিস্তানে জল অমিল। দেশের কোষাগার ক্রমাগত খালি হয়ে যাচ্ছে এবং এই অর্থনৈতিক সঙ্কট থেকে উত্তরণের কোনও উপায় দেখছে না সরকার। ঋণের জন্য অন্যান্য দেশের দিকে তাকিয়ে থাকা পাকিস্তান এখন আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছ থেকেও ঘাড় ধাক্কা খেয়েছে।

বেলুচিস্তানে পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে
পাকিস্তানের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে কথা বললে, অন্ধকার দূর করতে দেশে বিদ্যুৎ নেই, মানুষের থালায় রুটি নেই, রান্নার জন্য এলপিজি গ্যাস নেই এবং এখন খাবার পানির সংকট। এমতাবস্থায় জনজীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়ছে। এএনআই-এর সাম্প্রতিক প্রতিবেদন অনুসারে, বেলুচিস্তান রাজ্যের সমস্ত অংশ জলের ঘাটতির সম্মুখীন হচ্ছে এবং এই সমস্যা আরও খারাপ হচ্ছে। এতে বলা হয়েছে, প্রশাসনের অবহেলা ও তদারকির অভাবে খাবার পানির ফিল্টার প্লান্টগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। যার কারণে অর্থনৈতিকভাবে বিপর্যস্ত দেশটিতে পানির সংকট ঘনীভূত হচ্ছে।

সিন্ধু ও পাঞ্জাব প্রদেশেও জলের সঙ্কট
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের বেলুচিস্তানের মাত্র ২৫ শতাংশ মানুষ খাওয়ার জল পাচ্ছেন। শুধু বেলুচিস্তান নয়, সিন্ধু প্রদেশেও এমন পরিস্থিতি দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া পাঞ্জাব প্রদেশে জলের সমস্যা দিন দিন বাড়ছে। পাঞ্জাবের প্রয়োজন ১,২৭,৪০০ কিউসেক জল, যেখানে এটি পাচ্ছে মাত্র ৫৩,১০০ কিউসেক জল৷ রাজ্যে ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত মানুষ জলের ঘাটতির সম্মুখীন হচ্ছে।

অন্ধকারে খালি পেটে থাকতে বাধ্য মানুষ
চোখের সামনে অন্ধকার নেমে এসেছে পাকিস্তানে ৷ এর আগেও ২০২১-এ এমন ঘটনা ঘটেছিল পাকিস্তানে ৷ অন্ধকারে যেন ডুবে গিয়েছে পাকিস্তান ৷ অধিকাংশ জায়গাতেই ২৪-৪৮ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে ইলেকট্রিসিটি থাকছে না। আর সেই কারণেই মোবাইল টাওয়ারগুলি যথাযথ ভাবে চলছেও না এবং মানুষও তাঁদের মোবাইলে সিগন্যাল পাচ্ছেন না।

খাবারের জন্য হাহাকার তৈরি হয়েছে পাকিস্তানে। মূল্য এতটাই বেড়েছে যে একটা রুটির দাম হয়েছে ২৫ টাকা। নিজেদের জীবনের মায়া ত্যাগ করে যেভাবে চলন্ত লরি থেকে তারা গমের বস্তা ছিনতাই করছে তা দেখে শিউরে উঠছেন নেটিজেনরা। পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরেও খাবারের জন্য হাহাকার শুরু হয়েছে। বাঘ ও মুজাফফরাবাদ-সহ এই এলাকার অনেক অঞ্চলে খাবারের জন্য দাঙ্গাও হয়ে গেছে। এখানকার মানুষের অভিযোগ, পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের সরকার ও ইসলামাবাদের কারণেই খাদ্যের অভাব দেখা গেছে।

আরও পড়ুন- 'ধ্বংস' থেকে বাঁচতে শেষ চেষ্টা পাকিস্তানের, এবার সরকারি কর্মীদের বেতনে কোপ

 

TAGS: